Score

রিহ্যাব প্রক্রিয়া শুরু করেছেন সাকিব

অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন থেকে চিকিৎসা শেষে আজ (১৪সেপ্টেম্বর) দেশে ফিরেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেট সুপারস্টার সাকিব আল হাসান। প্রায় এক সপ্তাহের চিকিৎসা শেষে দেশে ফেরার আগেই অস্ট্রেলিয়াতে রিহ্যাব প্রক্রিয়া শুরু করেছিলেন সাকিব। ঢাকায় পৌঁছে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে থাকা সাংবাদিকদের এমনটিই জানিয়েছেন তিনি। 

 

সাকিবের মন্তব্যে বিব্রত বিসিবি


চলতি মাসের ৫ অক্টোবর আঙুলের চিকিৎসার জন্য অস্ট্রেলিয়া যান সাকিব আল হাসান। সেখানে চিকিৎসা শেষে ৯ দিন পর দেশে ফিরে আঙুলের বর্তমান অবস্থা জানিয়ে সাকিব বলেন, 
‘আঙুলটা যে শতভাগ ঠিক হবে না সেটা তো সত্যি কথা। যত যাই করুক এটা কখনোই পুরোপুরি ঠিক হবে না। এরকম অনেকেরই আছে। তবে ঠিক না হলে যে খেলতে পারবে না এমনটাও নয়। এ ব্যাপারে আমি কবে জেনেছি সেটা বলা মুশকিল। আঙুলে সার্জারির যে অপশনগুলো ছিল, সেগুলো করলেও যে পুরোপুরি ঠিক হবে না সেটা জেনেছিলাম মূলত।’ 

Also Read - ৬-১২ মাসের মধ্যে সাকিবের সার্জারি করা যাবে না

ইনজুরির কারণে ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ে ও উইন্ডিজ সিরিজে সাকিবকে পাচ্ছে না বাংলাদেশ। তবে দ্রুতই মাঠে ফিরতে মরিয়া সাকিব চিকিৎসকের পরামর্শে ইতোমধ্যে শুরু করেছেন রিহ্যাব প্রক্রিয়া। এই প্রসঙ্গে সাকিব বলেন,‘হাতের থেরাপিটা যত বেশি করা যাবে, ততই ভালো। আমি আসলে অস্ট্রেলিয়াতে থাকতেই রিহ্যাব প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছি। ওখানে হ্যান্ড থেরাপিস্টকে দেখানো হয়েছে। উনি যেভাবে বলেছে সেভাবে ফলো করে করে কাজ করতে হবে। যত বেশি করা যাবে তত আমার জন্য ভালো। যত বেশি করে করে হাতের শক্তিটা আবার আনা সম্ভব সেটাই এখন মূল উদ্দেশ্য। ‘ 


উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের টাইগারদের প্রথম মিশন ছিল শ্রীলঙ্কা ও জিম্বাবুয়ের সাথে ত্রিদেশীয় সিরিজ। সেটার ফাইনালে ফিল্ডিং করতে গিয়ে ইনজুরিতে পড়েন সাকিব আল হাসান। এরপর পুরোপুরি সুস্থ হবার আগে সেই ইনজুরি সঙ্গী করে নিদাহাস ট্রফিতে খেলতে যান। এরপর আফগানিস্তানের সাথে টি-টোয়েন্টি সিরিজ, উইন্ডিজের সাথে পূর্ণাজ্ঞ সিরিজ ইনজুরি নিয়েই খেলেছিলেন।

উইন্ডিজ সফর থেকে দেশে ফিরে হাতের অস্ত্রপচার করার কথা বলেছিলেন সাকিব। তবে এশিয়া কাপের মতো বড় আসরে এমন গুরুত্বপূর্ণ ক্রিকেটার না থাকা দলের জন্য বাড়তি দুশ্চিন্তার বিষয় হবে। তাই, এশিয়া কাপে সাকিবকে খেলার জন্য বিবেচনা করতে বলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আর হাতের অস্ত্রপচার এশিয়া কাপের পরেই করার পরিকল্পনা করা হয়। সেই অনুযায়ী সংযুক্ত আরব আমিরাতে এশিয়া কাপ খেলতে যান সাকিব। ।কিন্তু হাতের অবস্থা ভয়াবহ হওয়ায় টুর্নামেন্টের মাঝপথে দেশে ফিরতে হয় সাকিবকে।

 

 

 

 

Related Articles

টেলরের চোখে বাংলাদেশের স্পিন অ্যাটাক সবসময়ই ভয়ঙ্কর!

মুরালির রেকর্ড ভাঙতে পারবেন তো তাইজুল?

ফলোঅন নিয়ে যত রহস্য

যে কারণে মুশফিকের কিপিং করাটা গুরুত্বপূর্ণ

ট্রিপল সেঞ্চুরিও অসম্ভব নয়!