Scores

রিয়াদের জন্য মাশরাফির আফসোস, লক্ষ্মণের সাথে তুলনা

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সরাসরি আড্ডায় আসার তৃতীয় দিনে তামিম ইকবাল এনেছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। এই দুই সতীর্থ আলোচনা করেন অনেক বিষয় নিয়েই। আলোচনার এক পর্যায়ে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে আফসোস করেন তারা।

মাশরাফি ও রিয়াদ

রিয়াদ বাংলাদেশ দলের একজন ফিনিশার। দলকে অনেক ম্যাচেই জয়ের বন্দরে নিয়ে গিয়েছেন তিনি, অনেক ম্যাচেই দলের পুঁজিটাকে বড় করায় রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। যদিও সবসময় বড় ইনিংস খেলা তার হয়ে ওঠে না। রিয়াদকে সাবেক ভারতীয় ব্যাটসম্যান ভিভিএস লক্ষ্মণের সাথে তুলনা করেন মাশরাফি।

Also Read - ইউনিসের বিপক্ষে ‘ষড়যন্ত্রে’ নেমেছিলেন পাকিস্তানি ক্রিকেটাররা


বাংলাদেশের সাবেক অধিনায়ক বলেন, ‘রিয়াদ অনেকটা ভিভিএস লক্ষ্মণের মতো, প্রয়োজন হচ্ছে না তো রান করছে না। কিন্তু যখন দলের প্রয়োজন, রিয়াদই সেই ব্যক্তি যে সবসময় এগিয়ে আসে।’

রিয়াদ বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান যে কিনা বিশ্বকাপে শতক হাঁকান। টানা দুই ম্যাচ শতক হাঁকানোয় তিনি ব্যাট করেছিলেন ৪ এ। কিন্তু তারপর আবার নিচে নেমে যেতে হয় তাকে। এভাবে দলের স্বার্থে রিয়াদের ক্যারিয়ারকেই নিচে নামানো হয়েছে বলে মনে করেন মাশরাফি।

‘ও এমন একটা ক্রিকেটার, সে যদি ৪/৫ এ ব্যাটিং করতে পারতো, ওর পরিসংখ্যান কিন্তু আজকে অন্যরকম হতো। কিন্তু দলের স্বার্থে ওকে আমরা ৬ এ ব্যাটিং করাই। এইজন্য সে তার ক্যারিয়ারের অনেক রান নষ্ট করেছে,’ বলেন মাশরাফি।

তামিম, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিমদের নামের পাশে রানের সংখ্যার তুলনায় রিয়াদের রান বেশ কম। তবে এইজন্য দলের প্রতি রিয়াদের আত্মত্যাগের কথা জানান মাশরাফি।

দলের জন্য সব পরিস্থিতি হাসিমুখে মেনে নিয়েছেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান, ‘রিয়াদ অনেকবার মন খারাপ করেছে। কিন্তু সে আবার হাসিমুখে এটা মেনেও নিয়েছে। রিয়াদের জন্য তাই আমার খুব খারাপ লাগে। ওর নামের পাশে আজ হয়ত বা ৭-৮ হাজার রান হয়ে যেত। সে শুধুই দলের জন্য খেলে। এমন একটা পর্যায়ে খেলে যেখানে বল ও রান সমান খেলতে হবে।’

মাশরাফি আরও বলেন, ‘তাকে ২০ বলে ৩৫ রান বা ২৫ বলে ৪০ রানের ইনিংস খেলতে হয়। এমন ইনিংস একজন মানুষ প্রতিদিন পারে না। কিন্তু ও যখনই একদিন না পারে তখন ওকে ওর মতো করেই সমালোচনা শুনতে হয়। কোচ, দর্শক বা গণমাধ্যম থেকে সমালোচনা শুনে ও বলতে পারত আমিও তো ওপরে খেলতে পারি একজন সিনিয়র ক্রিকেটার হিসাবে। কিন্তু রিয়াদ কখনোই সেটা বলেনি। আমি মনে করি, বাংলাদেশ দলের জন্য ওর ত্যাগ স্বীকার অনেক।’

মাশরাফির কথায় একমত পোষণ করেন তামিমও। বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের বর্তমান অধিনায়ক জানান কীভাবে রিয়াদের ছোট ছোট ইনিংসগুলোও বাংলাদেশের জয়ের পাথেয় হয়েছে।

এইজন্য রিয়াদের প্রতি মাশরাফির বিশ্বাসের কথাও প্রকাশ্যে বলেন তামিম, ‘রিয়াদ ভাইয়ের ওপর আপনার একটা অন্যরকম বিশ্বাস আছে। গতকাল (রবিবার) রিয়াদ ভাইকে আমি বলছিলাম, আমরা ৭০/৮০ কিংবা ১০০ করি; প্রশংসা পাই। কিন্তু আপনি যে ২৫- ৩০ রানের ইনিংসগুলো খেলেন, ওটার জন্য কিন্তু ওভাবে প্রশংসা পান না। আমরা জানি, রিয়াদ ভাইয়ের ওই ইনিংসগুলো কতটা কার্যকর। ওই রানগুলোর কারণেই কিন্তু আমরা অনেক ম্যাচ জিতেছি।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

“তামিমের জন্য ধারাভাষ্য কক্ষ আদর্শ জায়গা”

বাংলাদেশে করোনা পরিস্থিতি খুবই উদ্বেগজনক : উইলিয়ামসন

তামিম-মুশফিকের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা উপভোগ করেন সাকিব

জাহানারার কণ্ঠে তামিমের সুর

বোনের জানাজায়ও যেতে পারলেন না আকরাম