রিয়াদের বিপিএল ট্রফি প্রয়োজন, নাকি বিপিএল ট্রফির রিয়াদকে?

0
1406

ছোটবেলা কী হতে চেয়েছিলেন? এমন প্রশ্ন করা হলে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ হয়ত ভেবে বলবেন- নিভৃতচারী!

রিয়াদের বিপিএল ট্রফি প্রয়োজন, নাকি বিপিএল ট্রফির রিয়াদকে?

স্বল্পভাষী। কথা বললেও দরকারি অল্প কথায় কাজ সারেন। দলের মধ্যমণি হয়ে থাকেন ঠিকই, তবে সেখানেও মাপা মাপা আচরণ। উদযাপনের আতিশয্যও নেই কখনই। তবে একটি কথা স্বীকার করতে হয় নির্দ্বিধায়- যে কয়টি কিংবা কজন ‘স্তম্ভের’ উপর ভর করে দেশের ক্রিকেট হামাগুড়ি থেকে হাঁটা শিখেছে, তাঁদেরই একজন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

Advertisment

২০০৭ সালে অভিষেকের পর থেকে পারফরম্যান্সের ধারাবাহিকতার পাশাপাশি আরও একটি জিনিসের ধারাবাহিকতা বজায় থেকেছে- নিজের কাজটি ঠিকঠাক করে আড়ালেই থেকে যাওয়া। নায়কদের ভিড়ে বেশিরভাগ সময়ই থেকেছেন পঞ্চপাণ্ডবের অন্য চার ক্রিকেটারের পার্শ্বনায়ক হয়ে। কিংবা নিজে নায়ক হলেও সেটি উপভোগে যেন তার বয়েই গেছে!

রিয়াদের স্তুতি বাদ দিয়ে এবার আসা যাক বিপিএল প্রসঙ্গে। ২০১২ সালে আয়োজিত প্রথম বিপিএলে চিটাগাং কিংসকে নেতৃত্ব দিয়ে রিয়াদের বিপিএল শুরু। পরের বছরও দলটির অধিনায়ক ছিলেন, ফাইনালেও তুলেছিলেন দলকে। যদিও হেরে যেতে হয়েছিল শক্তিশালী ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্সের কাছে।

২০১৫ সালে বিপিএলের তৃতীয় আসরে বরিশাল বুলসকে নেতৃত্ব দিয়ে বিপিএলের ফাইনালে তোলেন রিয়াদ। কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের কাছে হেরে যদিও আবারও স্বপ্নভঙ্গ হয় তার। ২০১৬ সালে খুলনা টাইটান্সের অধিনায়ক হিসেবে প্লে-অফ পর্যন্ত গেলেও রাজশাহী কিংসের কাছে হেরে আসরের দুরন্তপনা থামে অপ্রত্যাশিতভাবে, ফাইনাল থেকে এক ম্যাচ দূরত্বে।

সর্বশেষ গত বিপিএলে খুলনা টাইটান্স খুব একটা ভালো করতে না পারলেও রিয়াদের অধিনায়কত্ব কেড়ে নিয়েছে প্রশংসা। বিচক্ষণতা ও রোমাঞ্চ জন্ম দেওয়ার দিক থেকে বিপিএলের অন্যতম সফল অধিনায়ক এবারও মাঠে নামবেন খুলনা টাইটান্সের জাঋ গায়ে, এবারও নেতৃত্ব দেবেন দলকে। পাঁচটি আসরের দুটির ফাইনাল ও দুটির প্লে-অফ খেলা রিয়াদের দিকে এবারও থাকবে বিপিএলের দর্শকদের দৃষ্টি। রিয়াদ কি পারবেন ভক্তদের চাহিদা পূরণ করে একটি শিরোপা জিততে?

মূল লেখা- ইশরাক অদিত খান
সম্পাদনা- সিয়াম চৌধুরী

আরও পড়ুন: ওয়ানডেতে সাফল্যের বছরে দুই ফাইনালের আক্ষেপ