Scores

রেকর্ড গড়ার লক্ষ্যে ব্যাট করেনি নিউজিল্যান্ড

হ্যামিল্টন টেস্ট দীর্ঘদিন মনে থাকবে ক্রেইগ ম্যাকমিলানের। ১৯৩০ সাল থেকে টেস্ট খেলছে নিউজিল্যান্ড। দীর্ঘ এই সময়ে কত কোচই তো দেখভাল করেছেন দলটির ব্যাটিংকে। কিন্তু ম্যাকমিলানের সময়েই তো দল গড়ল ৭০০-রও বেশি রানের রেকর্ড!

রেকর্ড গড়ার লক্ষ্যে ব্যাট করেনি নিউজিল্যান্ড

দিনের খেলা শেষে স্বাগতিক দলের প্রতিনিধি হিসেবে সংবাদ সম্মেলনে এলেন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং কোচ ম্যাকমিলানই। তার ছাত্ররা নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট হাতে যা কীর্তি দেখিয়েছেন, তাতে তো তারই প্রাদপ্রদীপের আলোয় আসা উচিত!

Also Read - ভিডিওঃ সেমি-ফাইনালে আফিফের ৬৫ রানের ঝড়


তবে সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে ম্যাকমিলান জানালেন, কোনো রেকর্ডের জন্য খেলেনি তার দল।

নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ স্কোর গড়া ইনিংস প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সর্বোচ্চ রানের মাইলফলক নিয়ে আমরা ভাবছিলাম না। আমরা দীর্ঘ সময় নিয়ে ব্যাট করতে চেয়েছি।’

৬ উইকেটে ৭১৫ রান করে নিউজিল্যান্ড তাদের প্রথম ইনিংস ঘোষণা করে। ব্যাটিং বান্ধব উইকেটের সুবিধা কাজে লাগিয়ে দলের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন হাঁকান দ্বি-শতক। ডাবল সেঞ্চুরি পূর্ণ করার পরপরই দলীয় ইনিংস ঘোষণা করেন উইলিয়ামসন। এ প্রসঙ্গে ম্যাকমিলান বলেন, ‘উইলিয়ামসন তার দ্বি-শতক পূর্ণ করার পর মনে করেছে ইনিংস ঘোষণা করার এটাই সময়। আর আমরা চাচ্ছিলাম বোলাররা তরতাজা উইকেট পাক; দিনের শেষভাগে ঘণ্টাখানেক সময় নয় শুধু।’

রেকর্ডের লক্ষ্যে না খেললেও ৭১৫ রানের মাইলফলক ঐতিহাসিক মর্যাদা পাচ্ছে কিউইদের ব্যাটিং কোচের কাছে। তিনি বলেন, ‘অবশ্যই, আমরা যে পরিমাণ রান করেছি তা ঐতিহাসিক কাতারে। এই ইনিংসে ব্যাটসম্যানরা দারুণ অবদান রেখেছে। যারা ভালো করেছে তারা বেশ গর্ব বোধ করছে।’

বাংলাদেশি বোলারদের বিপক্ষে উইলিয়ামসনের ডাবল সেঞ্চুরি হাঁকানো সহজ ছিল না জানিয়ে উইলিয়ামসনদের ব্যাটিং শিক্ষক ম্যাকমিলানের ভাষ্য, ‘এটা সহজ ছিল না ওর জন্য। এর পেছনে ওর অনেক কঠোর শ্রম আছে। এই কঠোর শ্রম তাকে এভাবে খেলতে সাহায্য করেছে। সে উইকেটের চারপাশে খেলতে পারে। সবকিছু মিলিয়ে এটা দারুণ এক ইনিংস ছিল।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

মাসাকাদজার বিদায়ী ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারাল জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশ সিরিজে ধোনিকে রাখার পক্ষে নন গাভাস্কার

এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন ধনাঞ্জয়া

সবাইকে ছাপিয়ে ‘রাজত্ব’ দখলে নিলেন কোহলি

জয়ের ধারায় বাংলাদেশ, টুইটারে প্রশংসা ও স্বস্তি