Scores

রোমাঞ্চ ঠাসা ম্যাচে এক রানে জিতল নেদারল্যান্ডস

লক্ষ্য ছিল দুইশ’ রানের নিচে। একজন ব্যাটসম্যান রান করেছেন ষাটের ঘরে, একজন চল্লিশের। তবু এক রানের পরাজয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে আয়ারল্যান্ড। টান টান উত্তেজনার এ ম্যাচ জিতে নিয়ে চতুর্থ বারের মতো কোনো টেস্ট খেলুড়ে দেশের বিপক্ষে জয় পেল ডাচরা। 

রোমাঞ্চ ঠাসা ম্যাচে জিতল নেদারল্যান্ডস
শুরুতেই হোঁচট খেলে সহজ লক্ষ্যের পথটাও কঠিন হয়ে যায় সফরকারী আয়ারল্যান্ডের জন্য। ইনিংস সূচনা করতে নামা উইলিয়াম পোর্টারফিল্ড ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে লোগান ফন বিকের বলে ফিরে যান এলবিডব্লিউ হয়ে। আড়াআড়ি ব্যাটে খেলতে গিয়ে লাইন মিস করেন পোর্টারফিল্ড। ঐ ওভারেই আইরিশ অধিনায়ক অ্যন্ডি ব্যালবিরনি পয়েন্টের হাতে ক্যাচ দেন।

পরের ওভারে ফ্রেড ক্লাসেনের বলে এলবির ফাঁদে পড়েন হ্যারি টেক্টর। রিভিউ নিয়েও বাঁচেননি টেক্টর। আরেক অভিজ্ঞ ওপেনার পল স্টার্লিং এক প্রান্ত আগলে রাখলেও আয়ারল্যান্ডের বাকি ব্যাটসম্যানরা তাকে সঙ্গ দিতে পারেননি। চতুর্থ উইকেটে  ডকরেল ও স্টার্লিং মিলে ৩২ রান যোগ করেন। এ জুটি ভাঙেন ব্রেন্ডন গ্লোভার। ১১ রান করে বোল্ড হন ডকরেল।

Also Read - সহজ ম্যাচ কঠিন করে জিতল তামিমদের প্রাইম ব্যাংক

বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি লোরসান টাকারও। এ উইকেটরক্ষক ৮ রান করে পিটার সিলারের বলে এলবিডব্লিউ হন। ৬৯ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে আয়ারল্যান্ড। সেখান থেকে দলকে পথ দেখান পল স্টার্লিং ও সিমি সিং। তাদের ৬৬ রানের জুটিতে ম্যাচে টিকে থাকে সফরকারীরা। ধৈর্য্যের সাথে ব্যাট করতে থাকা পল স্টার্লিং তুলে নেন অর্ধশতক।

এ জুটি ভেঙে নেদারল্যান্ডসকে ম্যাচে ফেরান  ফন ডার গাগটেন। তার করা অফ স্টাম্পের বিয়ারের বল ড্রাইভ করতে গিয়ে ক্যাচ তুলে দেন স্টার্লিং।  দলীয় সর্বোচ্চ ৬৯ রান আসে স্টার্লিংয়ের ব্যাট থেকে। এরপর সিমি সিং ও অ্যান্ডি ম্যাকব্রাইন যোগ করেন ৪৩ রান। তবে রানের গতি ছিল ডাচ বোলারদের নিয়ন্ত্রণে।

৪৭ তম ওভারে  পা ফসকে যায় আয়ারল্যান্ডের।  পিটার সিলার জোড়া আঘাত হানলে বিপাকে পড়ে তারা। শেষ ১৮ বলে ১৭ রান দরকার ছিল আয়ারল্যান্ডের। ৪৮ ও ৪৯তম ওভার মিলিয়ে রান হয় মাত্র ৫। শেষ ওভারের শুরুতে থিতু হওয়া সিমি রান আউট হলে আয়ারল্যান্ডের জয়ের স্বপ্ন মলিন হয়ে যায়। বোলার ফন বিক চার হজম করলেও ঐ ওভারে ১০ রান দিলে এক রানের জয় পায় স্বাগতিকরা।

এর আগে টস জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় নেদারল্যান্ডস। উদ্বোধনী জুটিতে দলকে ৩২ রানের ভিত গড়ে দেন স্টিফেন মাইবার্গ ও ম্যাক্স ও’ডোড। মাইবার্গের উইকেট নিয়ে দলকে প্রথম সাফল্য এনে দেন ক্রেইগ ইয়ং। এরপর দলীয় ৫১ রানের মাথায় ম্যাক্সকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে সিমি। পরের ওভারেই বেন কুপারও এলবিডব্লিউ হন। তার এক বল পর উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দেন অধিনায়ক পিটার সিলার।  জশ লিটলের এক ওভারে পতন ঘটে দুই উইকেটের।

নিজের পরের ওভারে এসে স্কট এডওয়ার্ডসকে বোল্ড করেন জশ লিটল। ৫১ রানে ১ উইকেট থেকে ৫৩ রানে ৫ উইকেট হয়ে যায় স্বাগতিকদের। এমন বিপর্যয়ের মুখে হাল ধরেন ব্যাস ডি লিড আর সাকিব জুলফিকার। তারা যোগ করেন ৪৯ রান। তবে তারাও পরপর দুই ওভারে আউট হলে আবার খাদের কিনারায় চলে যায় নেদারল্যান্ডস। অষ্টম উইকেটে ৭২ রানের জুটি গড়ে দলকে বাঁচান ফন ডার গাগটেন ও লোগান ফন বিক। ৪ ছক্কা আর ১ চারে সাজানো ৫৩ বলে ৪৯ রানের ইনিংস খেলেন গাগটেন। শেষ ওভারের শেষ বলে রান আউট হওয়া লোগান ফন বিক করেন ২৯ রান। মাঝে ফ্রেড ক্লাসেন করেন ৯ বলে চার। সব মিলিয়ে ৫০ ওভারে ১৯৫ রান করে নেদারল্যান্ডস।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

নেদারল্যান্ডস ১৯৫/১০, ৫০ ওভার
ফন ডার গাগটেন ৪৯,  ফন বিক ২৯, ম্যাক্স ২৩
ইয়ং ৩/৩৪, লিটল ৩/৩২

আয়ারল্যান্ড ১৯৪/৯, ৫০ ওভার
স্টার্লিং ৬৯, সিমি ৪৫, ম্যাকব্রাইন ১৭
সিলার ৩/২৭, ফন বিক ২/৪৪

Related Articles

পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজে আফগান স্কোয়াডে চমক

ভারতকে ৩ উইকেটে হারিয়ে ধবলধোলাই এড়াল শ্রীলঙ্কা

হারের জন্য ব্যাটিং ও ফিল্ডিংকে দুষলেন রিয়াদ

শাস্তি পেলেন প্রোটিয়া অধিনায়ক বাভুমা

চার দশক আগের স্মৃতির পুনরাবৃত্তি করল ভারত