Scores

শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করবেন না ওয়ার্নার

বল বিকৃতির দায়ে এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছে স্টিভ স্মিথ, ক্যামেরন ব্যানক্রফট ও ডেভিড ওয়ার্নারকে। বিষয়টির জন্য অস্ট্রেলিয়া ফিরে সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের দায় স্বীকার করে দেশবাসী ও ক্রিকেটপ্রেমিদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন এই তিন ক্রিকেটার। অনেক ক্রিকেট বোদ্ধাদের মতে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার দেওয়া এই শাস্তি বেশিই মনে হয়েছে।

‘বল টেম্পারিং’ ইস্যুতে আলোচনার-সমলোচনার শেষ নেই ক্রিকেট পাড়ায়। নিজেদের কর্মকাণ্ডের জন্য সংবাদ সম্মেলনে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমা চেয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক স্টিভ স্মিথ ও ব্যাটসম্যান ক্যামেরন ব্যানক্রফট। কান্নায় ভেঙে পড়েন স্মিথ, ব্যানক্রফট। বল টেম্পারিং কাণ্ডে আনুষ্ঠানিকভাবে কথা বলার বাকি ছিলেন ওয়ার্নারই। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে দেশে ফিরে শনিবার সিডনিতে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন এই অস্ট্রেলিয়ার ওপেনার। সেখানে নিজের দুই সতীর্থ-স্মিথ, ব্যানক্রফটের মতো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ), তার সতীর্থদের কাছে ক্ষমা চান ওয়ার্নার। সেই সাথে ক্ষমা চান দক্ষিণ আফ্রিকার ক্রিকেটের ক্রিকেট ফ্যান হতে অন্যান্য বিভাগগুলোর কাছেও। ‘আমি তোমাদের অনেক হতাশ করেছি। আমি আশা করছি তোমরা যা কিছু আমাকে দিয়েছ, সেগুলো ফিরিয়ে দিতে এবং চেষ্টা করবো তোমাদের প্রিয় পাত্র হতে। এই ঘটনার জন্য আমার সতীর্থদের প্রতি ক্ষমাপার্থি। ঘটনার পুরো দায়ভার আমার কাঁধে নিচ্ছি। আমার কাণ্ডের জন্য ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছেও ক্ষমা চাচ্ছি।’ তিনি আরও যোগ করেন, ‘আমি তোমাদের প্রতিক্রিয়াতে পূর্ণ সমর্থন জানাচ্ছি। এই কাণ্ডের জন্য দক্ষিণ আফ্রিকা বোর্ড, ক্রিকেটার ও ভক্তদের কাছে ক্ষমাপার্থি। আমি খেলাকে অন্য পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছি তোমাদের মাটিতে। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেটের জন্য দারুণ একটি দেশ এবং প্রতিপক্ষ দলের ক্রিকেটার এবং আমার থেকে এর চেয়ে ভালো কিছু আশা করে।’ বল টেম্পারিং ঘটনার পর সবচেয়ে বেশি ক্ষেপেছেন দেশটির ক্রিকেট ভক্তরা। তাইত তারা ব্যানক্রফট, স্মিথ ও ওয়ার্নারকে আজীবনের জন্য নিষেধাজ্ঞার দাবি জানিয়েছিলেন। বল টেম্পারিং ইস্যুতে হস্তক্ষেপ করেছেন দেশটির সরকারও। অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট ভক্তরা হয়তো এমন কিছু আশাই করেননি ওয়ার্নার, ব্যানক্রফট এবং বিশেষ করে স্মিথের থেকে। তাই ওয়ার্নার দুঃখ প্রকাশ করেছেন ভক্তদের প্রতিও। ‘আমার কর্মকাণ্ডের জন্য সকল অস্ট্রেলিয়া বাসীদের কাছে দুঃখ প্রকাশ করছি। সত্যি বলতে, আমি সব সময় অস্ট্রেলিয়ার জন্য অর্জন, সম্মান বয়ে আনতে চেষ্টা করেছি। সিদ্ধান্তটা আমার ছিল কিন্তু এটার প্রভাব নেতিবাচকভাবে পড়েছে। এই কর্মকাণ্ডের জন্য আমাকে বাকি জীবন আফসোস করতে হবে।’ বল টেম্পারিং দায় স্বীকার করে নেওয়ার পর ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া হতে এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পেয়েছেন স্মিথ, ওয়ার্নার। তাদের ক্রিকেটে ফিরবেন ২০১৯ ওয়ানডে বিশ্বকাপের আগেই। সবাই নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে ক্রিকেটে ফেরার কথা ভাবলেও সেটি উড়িয়ে দিলেন ওয়ার্নার। বিবিসির প্রতিবেদন অনুযায়ী ক্রিকেট এবং সতীর্থদের প্রতি পূর্ণ সম্মান রেখেই ক্রিকেটে না ফেরার কথা জানিয়েছেন ওয়ার্নার।

গুঞ্জন উঠেছিলো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার এই শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল করবেন এই ক্রিকেটার। তবে অধিনায়ক হিসেবে সব দায় নিজের কাঁধে নিয়ে আপিল না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন স্মিথ। এইদিকে ভাবা হচ্ছিলো আপিল করবেন ওয়ার্নার। তবে স্মিথের মতো একই পথে হাটলেন এই অজি ওপেনারও।

Also Read - নাসুম-সানির বোলিং ঘূর্ণিতে জয় প্রাইম দোলেশ্বরের


ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ) এর দেওয়া শাস্তি মেনে নিয়েছেন তিনি। ক্রিকেট বোর্ডের দেওয়া শাস্তির বিরুদ্ধে আপিল না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ওয়ার্নার। আজ নিজের সত্যায়িত টুইটারে বিষয়টি নিশ্চিত করেন এই অস্ট্রেলিয়ান সাবেক অধিনায়ক। শাস্তি মেনে নিয়ে ভবিষ্যতে নিজের সতীর্থ, রোল মডেল এবং ভালো মানুষ হতে সব ধরণের চেষ্টা করবেন তিনি।

‘আমি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে জানিয়েছি, তাদের শাস্তি আমি মাথা পেতে নিয়েছি। আমি আবারো দুঃখ প্রকাশ করছি ওই ঘটনার জন্য। এখন থেকে একজন ভালো মানুষ, সতীর্থ ও রোল মডেল হতে সব ধরণের কাজ করে যাব।’

উল্লেখ্য, দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে কেপটাউনে তৃতীয় টেস্টের তৃতীয় দিনে স্যান্ডপেপার দিয়ে বল বিকৃতি করার দৃশ্য ফুটে উঠে টিভি স্ক্রিনে। তৃতীয় দিন শেষে বল বিকৃতির দায় স্বীকার করে নিয়েছিলেন ব্যানক্রফট ও স্মিথ। তারপরেই সমলোচনার ঝড় উঠে। অস্ট্রেলিয়ার মতো বড় দলের এমন কাণ্ডে হতাশ হয়েছেন দেশটির সাবেক ক্রিকেটাররা।

বল টেম্পারিং কাণ্ডে হস্তক্ষেপ করেছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রীও। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে স্মিথ-ওয়ার্নারদের বিপক্ষে শাস্তির ব্যবস্থা নিতে বলেন তিনি। পরবর্তীতে তৃতীয় টেস্টের বাকি সময়টুকুর জন্য অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়ান স্মিথ ও ওয়ার্নার। ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার প্রধান নির্বাহী সাদারল্যান্ড জানান তদন্ত করার পরেই শাস্তির আওতায় আনা হবে এই ক্রিকেটারকে।

তদন্তের পর বল বিকৃতির মূল হোতা হিসেবে উঠে আসে ওয়ার্নারের নামই। পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলনে নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে দলে ফেরার প্রসঙ্গে জিজ্ঞাসা করা হলে, জাতীয় দলে না ফেরার কথা জানান তিনি। এইদিকে এই তিন ক্রিকেটারেরে শাস্তি কমাতে মঙ্গলবার ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছে আপিল করেছে অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেটার্স অ্যাসোসিয়েশন।

আরও পড়ুনঃ আপিল করবেন না স্মিথ, ব্যানক্রফট

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

পাপনের পদত্যাগ চাইলেন শোয়েব আখতার

অনলাইন সার্চে সবচেয়ে বিপদজনক ‘ধোনি ভাইরাস’

টেস্ট র‍্যাঙ্কিংয়ে সেরা দশে রোহিত

‘ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশকে হালকা করে দেখার উপায় নেই’

বাংলাদেশে আসছেন ভেট্টোরি