'শিরোপার আক্ষেপ' ঘোচানোর মতো দল সিলেট স্ট্রাইকার্স

মুশফিক ও সিলেটের 'শিরোপার আক্ষেপ ঘোচানো'র মিশন এবার। সেই লক্ষ্যে ফ্র্যাঞ্চাইজিটি দল গড়েছে ভারসাম্যপূর্ণ।

'শিরোপার আক্ষেপ' ঘোচানোর মতো দল সিলেট স্ট্রাইকার্স

Siam Chowdhury
ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে -

আপডেট হয়েছে -

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের ৮টি আসর ইতোমধ্যে মাঠে গড়িয়েছে, শিরোপা জিতেছে চারটি অঞ্চল। যে অঞ্চলগুলো এখনও শিরোপা ছুঁতে পারেনি, সিলেট তারই একটি। তবে অন্যান্য শিরোপাহীন দলের চেয়ে সিলেটকে একটু আলাদা করে দেখা যেতেই পারে। কারণ প্রতিদ্বন্দ্বিতা গড়ার মতো দলই যে সিলেটের ফ্র্যাঞ্চাইজিরা খুব কম গড়েছে! সিলেটবাসীর আজন্ম সে আক্ষেপ ঘোচাতে এবার আটঘাট বেঁধে নেমেছে সিলেট স্ট্রাইকার্স। বিপিএলে দলটি কেমন স্কোয়াড নিয়ে মাঠে নামছে, তাদের শক্তিমত্তা কোন কোন জোনে, জেনে নেওয়া বিস্তারিত।
এবার সিলেটের সব পরিকল্পনা দেশসেরা অধিনায়ক মাশরাফিকে ঘিরে।
বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে সিলেট মানেই যেন আক্ষেপ আর হতাশা। বারবারই সিলেটের ফ্র্যাঞ্চাইজিরা মলিন পারফরম্যান্সে ব্যর্থ হয়েছে সিলেটিদের আশা পূরণে। তবে এবার সেই আক্ষেপ ঘুচতে পারে ফিউচার স্পোর্টসের হাত ধরে। মাশরাফি বিন মুর্তজার দিকনির্দেশনায় ফিউচার স্পোর্টস লিমিটেড কিনেছে সিলেট অঞ্চলের ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকানা।
এই ফ্র্যাঞ্চাইজির সাথে আবার যুক্ত জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। দল তাকে দিয়েছে আইকন ক্রিকেটার ও অধিনায়কের মর্যাদা। মাশরাফির মতো ‘বিগ ব্রেইন’ এর পরামর্শ নিয়ে শুরু থেকেই বেশ গোছানো পদচারণ সিলেট স্ট্রাইকার্সের। এক জার্সি উন্মোচনের প্রমো দিয়েই ফ্র্যাঞ্চাইজিটি ফেলে দিয়েছিল হইচই। ড্রাফটের আগেই মাশরাফির দলটি সরাসরি চুক্তিতে স্কোয়াডে ভেড়ায় রায়ান বার্ল, মোহাম্মদ আমির, মোহাম্মদ হারিস, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, থিসারা পেরেরা ও কলিন আকারম্যানকে। সেরা দল গঠনের জন্য চেষ্টার যে কমতি নেই, তা আরও স্পষ্ট হয় প্লেয়ার্স ড্রাফটে।
সেখানে প্রথমেই সিলেট বাগিয়ে নেয় জাতীয় দলের আরেক সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিমকে। মাশরাফি ও মুশফিকের মতো দুই কিংবদন্তি একই দলে খেলবেন- সিলেটবাসীর জন্য এমন অভিজ্ঞতা একেবারেই নতুন। তবে মুশফিককে দলে ভিড়িয়েই নির্ভার হয়ে বসে থাকেনি দলটি। একে একে দলে নেওয়া হয় নাজমুল হোসেন শান্ত, রেজাউর রহমান রাজা, রুবেল হোসেনের মতো জাতীয় দলের ক্রিকেটারকে।
বিপিএলে কখনো শিরোপা জেতা হয়নি সিলেটের।
২০২০ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ জিতেছিল বাংলাদেশের যে দলটা, সেই দলের ৩ ক্রিকেটার আছেন সিলেটের স্কোয়াডে। তারা হলেন- যুব বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক আকবর আলী, তৌহিদ হৃদয় ও সিলেটের লোকাল বয় তানজিম হাসান সাকিব। এছাড়া দলে নেওয়া হয়েছে আরেক সিলেটি ক্রিকেটার জাকির হাসানকে, যিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটার। নাজমুল ইসলাম অপু বিপিএলে বরাবরই দুর্দান্ত, তাকেও নেওয়া হয়েছে দলে। এছাড়া মোহাম্মদ শরিফুল্লাহ ছাড়াও বিদেশিদের মধ্যে নতুন করে দলে নেওয়া হয় ইংল্যান্ডের টম মুরস ও আফগানিস্তানের গুলবাদিন নাইবকে।
সিলেট স্ট্রাইকার্সে স্পেশালিষ্ট ব্যাটার আছেন মোট ৩ জন। তারা হলেন- পাকিস্তানের মোহাম্মদ হারিস, নাজমুল হোসেন শান্ত, তৌহিদ হৃদয়। বোলার হিসেবে মাশরাফি বিন মুর্তজার পাশাপাশি আছেন রেজাউর রহমান রাজা, নাবিল সামাদ, রুবেল হোসেন, নাজমুল ইসলাম অপু, তানজিম হাসান সাকিব, শ্রীলঙ্কার কামিন্দু মেন্ডিস ও পাকিস্তানের মোহাম্মদ আমির। মুশফিক ছাড়াও উইকেটরক্ষক ব্যাটারদের মধ্যে আছেন টম মুরস, জাকির হাসান ও আকবর আলী। তবে সবচেয়ে শক্তির জায়গা অলরাউন্ডাররা।
এই দলে অলরাউন্ডারই আছেন ৫ জন, তাদের প্রত্যেকেই আবার সেরা একাদশে সুযোগ পাওয়ার যোগ্য দাবীদার। যদিও ৫ জনই বিদেশি বলে একাদশ বাছাইয়ের ক্ষেত্রে বেশ দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়তে হতে পারে টিম ম্যানেজমেন্টকে। এই ৫ অলরাউন্ডার হলেন- শ্রীলঙ্কার থিসারা পেরেরা ও ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, নেদারল্যান্ডসের কলিন আকারম্যান, জিম্বাবুয়ের রায়ান বার্ল ও আফগানিস্তানের গুলবাদিন নাইব।
সিলেট স্ট্রাইকার্স এবার সিলেটের মানুষের আবেগ অনুভূতিকেও প্রাধান্য দিয়েছে। দলটির প্রধান কোচের দায়িত্ব পালন করবেন জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক ও সিলেটের ক্রিকেটের পথিকৃৎ রাজিন সালেহ। সাবেক পেসার সৈয়দ রাসেল থাকবেন সহকারী কোচের ভূমিকায়। এছাড়া দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের কিংবদন্তি সাবেক ব্যাটার তুষার ইমরান দলটির ব্যাটিং কোচের দায়িত্ব পালন করবেন।
সিলেটের ক্রিকেট তারকা রাজিন সালেহ কোচিং করাবেন দলকে।
মাশরাফি বিন মুর্তজা দলের আইকন ক্রিকেটার হয়েই ঘোষণা দিয়েছিলেন, এবার সিলেটের শিরোপার আক্ষেপ ঘোচাতে চান। তার সাথে সেই যাত্রায় শামিল হবেন মুশফিকুর রহিমও, যিনি এখন পর্যন্ত একবারও বিপিএলের কোনো শিরোপা জিততে পারেননি। আকবর আলী, রেজাউর রহমান রাজা, তৌহিদ হৃদয়দের নিয়ে সিলেট যেমনি ভরসা দেখিয়েছে তারুণ্যে, একইভাবে আবার থিসারা পেরেরা, নাজমুল ইসলাম অপু, নাবিল সামাদদের দলে ভিড়িয়ে অভিজ্ঞতাকেও সমান গুরুত্ব দিয়েছে। আবার ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিকানা পেয়েই সিলেট স্ট্রাইকার্স সিলেটের মানুষের সাথে যেভাবে সম্পৃক্ততা দেখিয়েছে, কনসার্ট আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে কিংবা জার্সির প্রমো নিয়ে দেখিয়েছে পেশাদারিত্ব, তাতে ফিউচার স্পোর্টস লিমিটেডের হাত ধরেই প্রথম বিপিএল শিরোপার স্বপ্ন দেখছে চায়ের রাজধানীখ্যাত অঞ্চলটি।
একনজরে সিলেট স্ট্রাইকার্স স্কোয়াড
দেশি খেলোয়াড় : মাশরাফি বিন মুর্তজা, মুশফিকুর রহিম, নাজমুল হোসেন শান্ত, রেজাউর রহমান রাজা, নাবিল সামাদ, তৌহিদ হৃদয়, রুবেল হোসেন, জাকির হাসান, নাজমুল ইসলাম অপু, আকবর আলী, মোহাম্মদ শরীফউল্লাহ ও তানজিম হাসান সাকিব।
বিদেশি খেলোয়াড় : মোহাম্মদ আমির, মোহাম্মদ হারিস, থিসারা পেরেরা, কামিন্দু মেন্ডিস, ধনঞ্জয়া ডি সিলভা, কলিন আকারম্যান, রায়ান বার্ল, টম মুরস ও গুলবাদিন নাইব।
বাংলাদেশের ক্রিকেটসহ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সব ধরনের খবর সবার আগে পেতে এখানে ক্লিক করে সাবস্ক্রাইব করুন BDCricTime Videos চ্যানেলটি।
বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।
সম্পর্কিত খবর