শিরোপার দাবিদার কি কাগজে-কলমে শক্তিশালী রংপুর রাইডার্স?

ড্রাফটের আগেই রংপুর রাইডার্স দলে ভিড়িয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ইনফর্ম তারকাদের। দলটিতে এমন ক্রিকেটার আছেন যারা এক ওভারেই ম্যাচ ঘুরিয়ে দেওয়ার সামর্থ্য রাখেন এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটেও তা প্রমাণ করেছেন।

শিরোপার দাবিদার কি কাগজে-কলমে শক্তিশালী রংপুর রাইডার্স?

তাহসিনা জামান
ক্রীড়া প্রতিবেদক

প্রকাশিত হয়েছে -

আপডেট হয়েছে -

বিপিএলের সাত দলের মধ্যে ড্রাফটে খরচের দিক দিয়ে রংপুর রাইডার্সের অবস্থান ষষ্ঠ। তাই বলে ভাবার উপায় নেই যে তারা নড়বড়ে দল গড়েছে। বরং ড্রাফটের আগেই বিদেশি তারকাদের দলে ভিড়িয়েছে রংপুর। সোহান, মেহেদী, রাজা, নওয়াজদের নিয়ে গড়া দলটি এবার বিপিএলের অন্যতম তারকাবহুল ও ভারসাম্যপূর্ণ দল। ফলে শিরোপা দাবি করতেই পারে রাইডার্স।

সরাসরি চুক্তিতে দেশি ক্রিকেটার হিসেবে নুরুল হাসান সোহানকে দলে নিয়েছিল রংপুর রাইডার্স। বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে ড্রাফটের আগেই তারা দলে ভিড়িয়েছিল সিকান্দার রাজা, মোহাম্মদ নওয়াজ, হারিস রউফ, শোয়েব মালিক ও পাথুম নিসাঙ্কাকে।

এবার বিশ্বকাপে দুর্দান্ত খেলেছেন সিকান্দার রাজা। জিম্বাবুয়ের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে জায়গা করে নিয়েছেন আইসিসির বিশ্বকাপ সেরা একাদশে। মোহাম্মদ নওয়াজও সম্প্রতি ব্যাটে-বলে দুর্দান্ত পারফর্ম করেছেন। ব্যাট হাতে ইমপ্যাক্ট ক্রিকেটারের অন্যতম উদাহরণ এই বাঁহাতি অলরাউন্ডার। পাকিস্তান দলের অন্যতম সেরা পেসার হলেন হারিস রউফ। শোয়েব মালিককে নিয়ে তো নতুন করে কিছুই বলার নেই। দুই দশকের বেশি সময় ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছেন তিনি। যদিও বর্তমানে জাতীয় দলের বাইরে আছেন, তবে ফ্রাঞ্চ্যাইজি ক্রিকেটে তার চাহিদা একটুও কমেনি। শ্রীলঙ্কান ব্যাটার নিসাঙ্কাও আছেন ফর্মে।

দলটি ড্রাফট থেকে দেশি ক্রিকেটারদের মধ্য নিয়েছে শেখ মেহেদী হাসান, শামীম হোসেন পাটোয়ারি, নাঈম শেখ, হাসান মাহমুদ, রকিবুল হাসান, রিপন মন্ডল, পারভেজ হোসেন ইমন, রনি তালুকদার ও আলাউদ্দিন বাবুকে। যাদের দলে ভেড়াতে রংপুর খরচ করেছে ২ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্য আছেন জেফ্রি ভ্যান্ডারসে, আজমতউল্লাহ ওমরজাই ও অ্যারন জোন্স। ড্রাফট থেকে এই তিন ক্রিকেটারকে নিতে খরচ হয়েছে প্রায় ৬০ লাখ টাকা। সবমিলিয়ে ড্রাফটে রংপুরের খরচ  ৩ কোটি ১৫ লাখ টাকা।

স্কোয়াডে তাকালে দেখা যাচ্ছে এবার রংপুরের টপ অর্ডারে নেতৃত্ব দিবেন নাঈম, ইমন, নিসাঙ্কা, রনি ও অ্যারন জোন্স। মিডল অর্ডারে দেখা যাবে মালিক, রাজা, নওয়াজ, সোহান, শামীমদেরকে। শেখ মেহেদী হতে পারেন বাজির ঘোড়া। ওপেনিং থেকে শুরু থেকে লোয়ার অর্ডার যেকোনো পজিশনেই খেলতে পারেন তিনি। এছাড়া লোয়ার অর্ডারে মূল্যবান রান এনে দিতে পারেন রিপন মন্ডল, আজমতউল্লাহ, আলাউদ্দিন বাবুরা।

দলটির পেস বোলিং আক্রমণে পাকিস্তানি তারকা রউফের সাথে জুটি বাঁধবেন বাংলাদেশের হাসান মাহমুদ। এছাড়া আছেন উদীয়মান পেসার রিপন মন্ডল। মিডিয়াম ফাস্ট বোলিং করেন আলাউদ্দিন বাবুও ও আজমতউল্লাহ।

স্পিন আক্রমণে মোহাম্মদ নওয়াজের সাথে নেতৃত্ব দিবেন যুব বিশ্বকাপ জয়ী রাকিবুল হাসান। আরও আছেন শেখ মেহেদী, সিকান্দার রাজা। দলের প্রয়োজনে বোলিং করেন শামীম হোসেনও। দলে আছেন দুই জন লেগ স্পিনারও- শ্রীলঙ্কার জেফরি ভ্যান্ডারসে ও মার্কিন অলরাউন্ডার অ্যারন জোন্স। সবমিলিয়ে ভারসাম্যপূর্ণ দল গড়েছে রাইডাররা। এখন মাঠের লড়াইয়ে নিজেদের শক্তির প্রমাণ দেওয়ার পালা।

একনজরে রংপুরের স্কোয়াড- নুরুল হাসান সোহান, সিকান্দার রাজা, মোহাম্মদ নওয়াজ, হারিস রউফ, শোয়েব মালিক, পাথুম নিসাঙ্কা, শেখ মেহেদী হাসান, রিপন মন্ডল, হাসান মাহমুদ, নাঈম শেখ, রাকিবুল হাসান, শামীম হোসেন, জেফ্রি ভ্যান্ডারসে, আজমতউল্লাহ ওমরজাই, অ্যারন জোন্স, রনি তালুকদার, পারভেজ হোসেন ইমন ও আলাউদ্দিন বাবু।


সম্পর্কিত খবর