Scores

শেষ ওভারে ১০ বল, ইনিংস ১০০ বলে!

ক্রিকেটে একটা সময় ওভারপ্রতি বল হতো আটটি করে। সেই সময় অতীত হয়েছে বহু আগে। প্রতি ওভারে ছয় বল করেই এখন হিসেব হয় ভদ্রলোকের খেলায়। তবে বিবর্তনের স্রোতে এসেছে নতুন ফরম্যাট। টি-টোয়েন্টির পর আবির্ভাব ঘটেছে টি-টেনেরও। অর্থাৎ, টি-টোয়েন্টিতে ১২০ বলের ইনিংস এবং টি-টেনে ৬০ বলে।

ওভারপ্রতি ১০ বল, ইনিংস ১০০ বলে!

তবে যদি বলা হয়, এক ইনিংসে মাঠে গড়াবে মোট ১০০টি বল? অবাক হবেন নিশ্চয়ই! ঠেকতে পারে অবিশ্বাস্যও! তবে সেই অবিশ্বাস্য বিষয়টিকেই এবার বাস্তব রূপ দিতে যাচ্ছে ইংল্যান্ড অ্যান্ড ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ড (ইসিবি)।

Also Read - ইয়াসিনের বোলিং ঘূর্ণিতে উড়ে গেলো পূর্বাঞ্চল


সম্প্রতি বিশ্বের অন্যতম প্রভাবশালী ক্রিকেট বোর্ড ইসিবি জানিয়েছে, আগামী বিশ্বকাপের পরের বছরই ১০০ বলের ইনিংসের নতুন ফরম্যাটের এক টুর্নামেন্টের প্রচলন ঘটাবে তারা, যে ম্যাচের প্রতি ইনিংসে প্রথম ১৫ ওভার হবে স্বাভাবিক নিয়মেই, অর্থাৎ প্রত্যেক ওভারে ৬ বল করে। তবে ১৫ ওভার তথা ৯০ বল সম্পন্ন হওয়ার পর শেষ ১০ বল হবে একটি ওভারে। অর্থাৎ, ১০ বলে এক ওভার!

২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য এই টুর্নামেন্ট মাঠে থাকবে পাঁচ সপ্তাহ ব্যাপী। সাউদাম্পটন, নটিংহ্যাম, বার্মিংহাম, লন্ডন, ম্যানচেস্টার, কার্ডিফ ও লিডস সহ মোট আটটি ভেন্যুতে আয়োজিত হবে এই বিচিত্র ক্রিকেট আসর।

টুর্নামেন্টের ব্যাপারে ইতোমধ্যে এমসিসি ও ইংল্যান্ডের ফার্স্ট ক্লাস কাউন্টি দলগুলোকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে ইসিবির পক্ষ থেকে, এমনটাই জানিয়েছেন ইসিবির প্রধান নির্বাহী টম হ্যারিসন। টুর্নামেন্ট প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘এই নতুন পরিকল্পনাটি তরুণদের ক্রিকেটের ব্যাপারে আরও উৎসাহিত করবে। ক্রিকেট আরও বেশি জনপ্রিয় হবে। তবে এই আসর পরিচালনা করাটা বেশ চ্যালেঞ্জিং। এটি মাঠে গড়াতে যা যা করা লাগে আমরা করবো। ক্রিকেট খেলাটাই আসলে নতুনত্বে ভরা। ভবিষ্যতে ক্রিকেটকে আমাদের বাঁচিয়ে রাখতে হবে। লাল এবং সাদা বলের ক্রিকেটে ১৮টি কাউন্টি দল আছে। এই ধরণের ক্রিকেটে সেই দলগুলোও সমর্থন পাবে, সেই সাথে লাভের অংশও।’

আরও পড়ুনঃ গেইলদের বিপক্ষে বোলিংয়ে সাকিবরা

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

মাসাকাদজার বিদায়ী ম্যাচে আফগানিস্তানকে হারাল জিম্বাবুয়ে

বাংলাদেশ সিরিজে ধোনিকে রাখার পক্ষে নন গাভাস্কার

এক বছরের জন্য নিষিদ্ধ হলেন ধনাঞ্জয়া

সবাইকে ছাপিয়ে ‘রাজত্ব’ দখলে নিলেন কোহলি

জয়ের ধারায় বাংলাদেশ, টুইটারে প্রশংসা ও স্বস্তি