শেষ দিনে জিম্বাবুয়ের প্রয়োজন ৩৩৭ রান, বাংলাদেশের ৭ উইকেট

0
592

দ্বিতীয় ইনিংসে সাদমান ইসলাম ও নাজমুল হোসেন শান্তর অপরাজিত শতকে জিম্বাবুয়েকে ৪৭৭ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। জবাবে জিম্বাবুয়ে ৩ উইকেটে ১৪০ রান সংগ্রহ করে শেষ করেছে চতুর্থ দিন।

Advertisment

৪৭৭ রানের লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে ১৫ রানে প্রথম উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে। মিল্টন শুম্বাকে শিকার করেন তাসকিন আহমেদ। তবে তাতে স্বস্তি পায়নি বাংলাদেশ। ব্রেন্ডন টেইলর নেমেই টি-টোয়েন্টি মেজাজে ব্যাটিং করতে শুরু করেন। অপরপ্রান্তে টি কাইটানো ধৈর্যের পরিচয় দিয়ে খেলতে থাকেন। ৮৩তম বলে প্রথম বাউন্ডারি হাঁকিয়ে ৬ রানে পা দেন তিনি।

টেইলর জিম্বাবুয়ের পক্ষে টেস্টে দ্রুততম অর্ধশতক হাঁকানোর রেকর্ডে ভাগ বসিয়েছেন। মাত্র ৩৩ বলে অর্ধশতক হাঁকান তিনি। মারমুখী ভঙ্গিতে খেলতে থাকা টেইলরকে সাজঘরে পাঠান মেহেদী হাসান মিরাজ। মিরাজকে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে টেইলর ফেরেন ৯২ রানে। খেলেন ৭৩টি বল। তার দুর্দান্ত ইনিংসটি সাজানো ছিল ১৬টি বাউন্ডারিতে। কাইটানোর সাথে ৯৫ রানের জুটি গড়েন তিনি।

১০২ বলে ৭ রান করে সাজঘরে ফেরেন কাইটানো। তাকে এলবিডব্লিউয়ের ফাঁদে ফেলেন সাকিব আল হাসান। নাইটওয়াচ ম্যান ডোনাল্ড তিরিপানোকে সাথে নিয়ে বাকি সময় নির্বিঘ্নেই কাটিয়ে দেন মেয়ার্স। দিন শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ১৪০ রান। মেয়ার্স ৩৩ বলে ১৮ রান ও তিরিপানো ১৩ বলে ৭ রানে ক্রিজে আছেন।

শেষ দিনে জয়ের জন্য বাংলাদেশের প্রয়োজন ৭টি উইকেট ও জিম্বাবুয়ের প্রয়োজন ৩৩৭ রান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর 

টস : বাংলাদেশ

বাংলাদেশ ৪৬৮/১০ (১ম ইনিংস- ১২৬ ওভার)
রিয়াদ ১৫০*, লিটন ৯৫, তাসকিন ৭৫, মুমিনুল ৭০, সাদমান ২৩, মুশফিক ১১, সাকিব ৩, শান্ত ২, সাইফ ০;
মুজারাবানি ৪/৯৪, তিরিপানো ২/৫৮।

জিম্বাবুয়ে ২৭৬/১০ (১ম ইনিংস ১১১.৫ ওভার)
কাইটানো ৮৭, টেইলর ৮১, শুম্বা ৪১, চাকাবভা ৩১*, মেয়ার্স ২৭;
মিরাজ ৫/৮২, সাকিব ৪/৮২।

বাংলাদেশ ২৮৪/১ (২য় ইনিংস ৬৭.৪ ওভার)
শান্ত ১১৭*, সাদমান ১১৫*, সাইফ ৪৩;
এনগারাভা ১/৩৬।

জিম্বাবুয়ে ১৪০/৩ (৪০ ওভার)
টেইলর ৯২, মেয়ার্স ১৮*, তিরিপানো ৭*, কাইটানো ৭;
সাকিব ১/২৩,  তাসকিন ১/৩৯, মিরাজ ১/৪৫।

জয়ের জন্য জিম্বাবুয়ের প্রয়োজন ৪৭৭ রান।