শেষ হলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বোলার হান্ট কর্মসূচি

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) প্রথমবার খেলতে এসেই চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। আগামী ৪ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে বিপিএলের চতুর্থ আসর। আর এই আসরকে কেন্দ্র ৯ সেপ্টেম্বর বোলার হান্টের নতুন কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছিলেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের মালিক নাফিসা কামাল। এদিকে আজ (সোমবার) শেষ হয়েছে এই ‘নেট বোলার হান্ট’ কর্মসূচি।

Advertisment

‘কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের জার্সি গায়ে এবার হবে তোমার স্বপ্ন পূরণ’ এই টাইটেলে কুমিল্লার তিনটি ভেন্যুতে ২০, ২৫ আর ২৮ সেপ্টেম্বর হয় এই বোলার হান্টের প্রাথমিক বাছাই। প্রায় ১৫০০ জন প্রতিযোগী এই কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন। প্রত্যেক ভেন্যু থেকে ২০ জন করে মোট ৬০ জন ক্রিকেটার বাছাই করা হয়। এরপর ৩ রা অক্টোবর ৬০ জন থেকে ১০ জনকে চূড়ান্তভাবে বাছাই করা হয়। যারা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স দলের সাথে নেটে বোলিং করার সুযোগ পাবেন। এই প্রসঙ্গে নাফিসা কামাল কর্মসূচি শুরুর আগে বলেছিলেন, “এই ভাগ্যবান ১০ জন বিজয়ী পুরো বিপিএল জুড়েই ও এর আগে ক্যাম্পের প্রস্তুতিতে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স দলের সাথে পুরোপুরি যুক্ত থাকতে পারবে। তারা দেশী ও বিদেশী ক্রিকেটারদের নেটে বোলিং করতে পারবে। পাশাপাশি ক্রিকেটারদের সাথে ক্রিকেটীয় জ্ঞান, অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করতে পারবে। এছাড়া কোচদের সান্নিধ্যে আসতে পারবে।”

বোলার হান্টের কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন আতিকুর রহমান, ফয়সাল হোসেন ডিকেন্স, হাবিব মোবাল্লেক জেনস এবং আলামিন ভূঁইয়া। অন্যদিকে চূড়ান্ত দশজন খেলোয়াড় বাছাই কার্যক্রমে পরিচালনা করেছেন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স টিমের ম্যানেজার খালেদ মাসুদ পাইলট ও লজিস্টিকস ম্যানেজার আহসানউল্লাহ হাসান। এদিকে লালমাই ট্যালেন্টহ্যান্ট একাডেমির মাঠে অনুষ্ঠিত বাছাই পর্বের ফাইনাল রাউন্ডের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দলটির চেয়ারপার্সন নাফিসা কামাল। কর্মসূচির শেষে তিনি বলেন, “আপনারা বলেন আমি কুমিল্লার গর্ব কিন্তু আমি বলি কুমিল্লা আমার গর্ব। যে দশজন ইয়েস কার্ড পেলেন তাদের পেয়ে আমরা আনন্দিত। সেই সাথে কৃতজ্ঞ তাদের কাছে যারা আমাদের এই প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে এটি সফল করলেন। ” বিপিএল শুরুর পর দলের দেশী-বিদেশী সকল ক্রিকেটার নিয়ে কুমিল্লায় একবার আসার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন নাফিসা কামাল।

নির্বাচিত দশ বোলারঃ মো. সোহেল রানা, শুভ্র জোঁতি কুন্ড, মো. শাহ্ আলম, মো. মাহমুদুল হাসান রোচি, মো. কামরুল ইসলাম রাজু, জাহিদুল ইসলাম রাজু, মো. মেহেদি হাসান, মাহফুজুর রহমান, সাজিদ হাসান এবং এম এ আরিফুর ইসলাম।