Scores

শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে ৫ রানে জয়ী সিলেট সিক্সার্স

বিপিএল টি-টোয়েন্টির ষষ্ঠ আসরের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে চিটাগং ভাইকিংসকে ৫ রানে হারিয়েছে সিলেট সিক্সার্স। সিলেটের হয়ে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৫৯ রান করেন সিক্সার্স অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নার ও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অপরাজিত ৫২ করেন নিকোলাস পুরান এবং বল হাতে চার উইকেট পেয়েছেন তাসকিন।

সিলেট সিক্সার্স

সিক্সার্সের দেওয়া ১৬৯ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় চিটাগং ভাইকিংস। দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে দলের হাল ধরেন ক্যামরন ডেলপোর্ট ও মোহাম্মদ আশরাফুল। বিপিএলে নিজের প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে রান না পেলেও এই ম্যাচে আশা দেখাচ্ছিলেন বড় ইনিংসের। সেই সঙ্গে ডেলপোর্টও দলের রান সচল রাখছিলেন।

দুইজন মিলে ৫৭ রানের জুটি গড়লে আশরাফুলের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে ব্যক্তিগত ২২ বলে ৩৮ রান করা ডেলপোর্ট রান আউটের শিকার হন। তার বিদায়ের একটু পরেই সাজঘরের পথ ধরেন আশরাফুল। ব্যক্তিগত ২২ রান করে তাসকিনের বলে আউট হন তিনি। ভাইকিংস অধিনায়ক মুশফিকও এদিন ক্রিজে টিকতে পারলেন না। দলীয় ৭৪ রানে কাপালির বলে পুরানের হাতে ক্যাচ তুলে আউট হন মুশফিক।

Also Read - প্রথম দুই ম্যাচেই নজর কেড়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার


তার বিদায়ে এই ম্যাচ জয়ের আশা অনেকটাই ডুবে যায় ভাইকিংসের। সিকান্দার রাজার সঙ্গে ২০ রানের জুটি গড়লে কাপালির বলে বোল্ড হন মোসাদ্দেক। ফ্রাইলিঙ্ক ও রাজা চেষ্টা চালালেও সেটা প্রতিহত করেন সিক্সার্স বোলাররা। দুইজন মিলে গড়েন ৩৭ রানের জুটি। তবে ব্যক্তিগত ৩৭ রানে রাজা হন তাসকিনের বলে। শেষদিকে ভাইকিংসকে জয়ের স্বপ্ন দেখান ফ্রাইলিঙ্ক। শেষ ওভারের শেষ বলে ৭ রান প্রয়োজন হলে মাত্র একরান নিতে সক্ষম হয় ফ্রাইলিঙ্ক। ফলে পাঁচ রানের জয় সিলেট। এই জয়ের মাধ্যমে টুর্নামেন্টে প্রথম জয়ের দেখা পায় সিলেট।

এর আগে টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন সিলেট সিক্সার্স অধিনায়ক ওয়ার্নার। শুরুটা ভালো হয়নি সিক্সার্সের। ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই ফ্রাইলিঙ্কের বলে আউট হন লিটন দাস (০)। তৌহিদের পরিবর্তে একাদশে সুযোগ পাওয়া নাসির হোসেনও প্রথম ম্যাচে জ্বলে উঠতে ব্যর্থ হন। ৩ রান করেই নাইম হাসানের বলে ক্যাচ আউট হন তিনি। কোন রান না করেই সাজঘরে ফিরেন সাব্বির রহমান।

দলীয় ৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর দলের হাল ধরেন ওয়ার্নার ও আফিফ হোসেন। দুইজনেই বেশ দায়িত্বশীল ব্যাটিং করেন। মিরপুরের স্লো উইকেটে দুইজন মিলে গড়েন ৭১ রানের জুটি। ওয়ার্নার অতটা আক্রমণাত্মক না খেললেও শুরু থেকেই বেশ আক্রমণাত্মক ছিলেন আফিফ। ২৮ বলে ৪৮ রান করে খালেদ আহমেদের বলে আউট হন তিনি। আফিফ ফিফটি করতে না পারলেও অর্ধশতক তুলে নেন সিক্সার্স অধিনায়ক ওয়ার্নার। বিপিএলে নিজের দ্বিতীয় ম্যাচেই প্রথম ফিফটি পান তিনি।

আফিফের বিদায়ের পর পুরানের সঙ্গে জুটি বেঁধে দলীয় সংগ্রহ বড় করতে থাকেন ওয়ার্নার। শুরু থেকেই বেশ আক্রমণাত্মক ছিলেন পুরান। ৫৯ করে ওয়ার্নার আউট হলে শেষদিকে পুরানের অপরাজিত ৫২ রানে ১৬৮ সংগ্রহ করে সিলেট সিক্সার্স। ভাইকিংসের হয়ে বল হাতে ৩টি উইকেট পান রবি ফ্রাইলিঙ্ক।

ম্যাচ জয়ের পর টিম হোটেলে সিলেট সিক্সার্স ক্রিকেটারদের উদযাপ্নের মুহূর্ত-

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

সিলেট সিক্সার্স ১৬৮-৫ (ওভার ২০)

ওয়ার্নার ৫৯, পুরান ৫২*: ফ্রাইলিঙ্ক ৩-২৬

চিটাগং ভাইকিংস ১৬৩-৭ (ওভার ২০)

ফাইলিঙ্ক ৪৪*, ডেলপোর্ট ৩৮ঃ তাসকিন ৪-২৮

ফলাফলঃ ৫ রানে জয়ী সিলেট সিক্সার্স।

আরও পড়ুনঃ আরও একটি টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট চান নাফীস

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

নিজেকে প্রমাণের কিছু নেই: আফিফ

শ্রীলঙ্কায় যাচ্ছেন পাঁচ ক্রিকেটার

বিয়ে নিয়ে গুজবে বিরক্ত আফিফ

‘পাইপ লাইনে আরও কয়েকটা ছেলে আছে এমন’

আমার মত করে খেলতেই স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি: আফিফ