Scores

শ্রীনিবাসের কাছে বেঁচে থাকাটা অলৌকিক!

ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালের আল নূর মসজিদের পথে যখন মুসলিম ক্রিকেটাররা, তখন তাদের সঙ্গী ছিলেন সৌম্য সরকার, ট্রেনার মারিও ভিল্লাভারায়ন ও কম্পিউটার ডাটা অ্যানালিস্ট শ্রীনিবাস চন্দ্রশেখরন। সৌম্য, মারিও কিংবা শ্রীনিবাসের মসজিদে কোনো কাজ নেই। তবুও হয়ত যাচ্ছিলেন তামিম-মুমিনুলদের এগিয়ে দেবেন বলে, ফেরার পথে সঙ্গ দেবেন বলে।

শ্রীনিবাসের কাছে বেঁচে থাকাটা অলৌকিক!

তবে সেই ‘সঙ্গী হওয়া’টাই যে আরেকটু হলে জীবন কেড়ে নিতে পারত, তা কি ভেবেছিলেন তারা! শ্রীনিবাস অন্তত ভুলেও ভাবেননি। ঘটনার পর অনেক ঘণ্টা কেটে গেলেও তিনি যেন রয়ে গেছেন ট্রমার মধ্যেই। আর তা ঘোর কাটছে না, যেন বিশ্বাস হচ্ছে না। ঘুরপাক খাচ্ছে একটি প্রশ্ন- কেন এই নৃশংসতা!

Also Read - বাস পেছাতে বললেও খেলোয়াড়দের কথা রাখেননি ড্রাইভার


কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার শ্রীনিবাস বড় বড় পদে চাকরি করার লোভনীয় প্রস্তাব ফেলে এসেছেন ক্রিকেটে, ভালোবাসার টানে। অল্পের জন্য সেই ক্রিকেটই তার মৃত্যুর কারণ হয়নি। মৃত্যুর এত কাছ থেকে ফিরে আসার পর কিংবা চোখের সামনে এতগুলো মৃত্যু দেখার পর এখন শ্রীনিবাসের মনে হচ্ছে, তিনি যে বেঁচে আছেন এই ব্যাপারটিই অলৌকিক!

ভারতের একটি সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ভারতীয় এই কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ার বলেন, ‘আমার বেঁচে থাকাই তো অলৌকিক ব্যাপার। কী ঘটতে পারত, তা ভাবতেই ভয় লাগছে।’

‘আমরা অল্পের জন্য নির্বিচারে হত্যার শিকার হওয়া থেকে বেঁচে গেছি। আমি কিংবা দলের যে কেউ এর শিকার হতে পারতাম।’– বলেন তিনি।

বেঁচে ফেরায় নিজেদেরকে ভাগ্যবান বলেও মনে করছেন এই কম্পিউটার অ্যানালিস্ট, ‘জানি না কে বাঁচিয়েছে। এটা অলৌকিক ব্যাপার। নিজেদের ভাগ্যবান মনে হচ্ছে।’

বিশ্বের অন্যতম শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে পরিচিত নিউজিল্যান্ড। সেখানে ক্রাইমের পরিমাণ এতই কম যে বাংলাদেশ দলের সাথে নিরাপত্তা দল রাখার প্রয়োজনীয়তাও বোধ হয়নি। অথচ সেখানেই এমন একটি ঘটনা যেন ভাবতে পারছেন না শ্রীনিবাস।

‘বর্বরোচিত ঘটনা। জীবনে কখনও এমন কিছু দেখিনি। চাই না কারও সঙ্গে ঘটুক। অবাক লাগছে এটা ঘটেছে নিউজিল্যান্ডে! অনেক জায়গার চেয়ে যেখানটা আমরা নিরাপদ বলে মনে করি।’– বলেন তিনি।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

“যখন স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টা করছি, তখনই অগ্নিকান্ড”

নিউজিল্যান্ডকে নিরাপদ ভাববে বাংলাদেশ, বিশ্বাস দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রীর

“দল কিসের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন”

সফরের আগে নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণে পর্যবেক্ষক দল?

“স্বপ্নে দেখেছি, বাইকে করে ওরা গুলি করছে’