Scores

সংখ্যায়-সংখ্যায় টাইগারদের এবারের বিশ্বকাপ

এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলার পর আত্মবিশ্বাসে ভরপুর বাংলাদেশ দল দাপটের সাথে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শুরু করলেও শেষ পর্যন্ত সুপার টেন পর্বে এসেই থমকে যায় এবারের বিশ্বকাপ যাত্রা। বিশ্বকাপ থেকে বিদায় নিলেও এবারের আসর থেকে ব্যক্তিগত অর্জন আর দলীয় অভিজ্ঞতা লাভের কোন কমতি ছিল না। যেহেতু সখ্যার সাথে ক্রিকেট একনিষ্ঠভাবে জড়িত, তাই সংখ্যার সাহায্য নিয়ে ক্রিকেটারদের উল্লেখযোগ্য কিছু অবদান আজ প্রকাশ করা হলো সংখ্যায়-সংখ্যায়ঃ-

১ –  এবারের আসরে টাইগার শিবিরে সবচেয়ে ধারাবাহিক নাম তামিম ইকবাল। বিশ্বকাপে ওমানের বিপক্ষে ১টি শতক হাঁকানোর পাশাপাশি নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে পেয়েছেন অর্ধশতকের দেখা। দলের হয়ে নিয়েছেন পুরোও টুর্নামেন্টে সবচেয়ে বেশি ১ রান। তামিম ইকবাল ছাড়াও এবারের বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে সাকিব আল হাসানও ১টি অর্ধশতক হাঁকান।

২ –
দুই জয়ের পাশাপাশি এবারের আসরে অর্ধশতকের দেখা পেয়েছে ২জন টাইগার ক্রিকেটার।

৩ – মাত্র ৩ ম্যাচে অংশ নিয়েই মুস্তাফিজুর রহমান বল হাতে ম্যাচ প্রতি ৩ উইকেট করে নেওয়ার পাশাপাশি আসরে শিকার করেছেন মোট ৯ উইকেট। এছাড়া নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ৩.৫০ হারে রান দিয়ে এক ম্যাচে সবচেয়ে ইকোনোমিক্যাল বোলার দলপতি মাশরাফি।

Also Read - কোহলির ব্যাটে স্বপ্ন ভাঙল অস্ট্রেলিয়ার


৪ – আসরে বাংলাদেশ দলের মধ্যে সবচেয়ে বেশী ক্যাচ (মোট ৪টি) নিয়েছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। এছাড়া ২ টি ক্যাচের সাথে ২টি স্ট্যাম্পিং মিলিয়ে মোট ৪টি ডিসমিসাল নিজের ঝুঁলিতে নিয়েছেন বাংলাদেশ দলের উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিম।

৫ – কমাত্র বাংলাদেশী বোলার হিসেবে বিশ্বকাপের মত আসরের এক ইনিংসে ৫ উইকেট নেওয়ার রেকর্ড গড়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। এছাড়া ৫.৩৩ ইকোনমি রেটে রান দিয়ে  সবচেয়ে মৃতব্যয়ী বোলারের পরিচয় দিয়েছেন সাব্বির রহমান। অপরদিকে ওমানের বিপক্ষে এক ইনিংসে মোট ৫টি ছয় হাঁকানোর স্বাদ পেয়েছেন তামিম ইকবাল। উল্লেখ্য, সেঞ্চুরির পথে এই ছয়গুলো হাঁকান ড্যাশিং এই ওপেনার।

১০- ৭ ম্যাচে অংশ নিয়ে সাকিব আল হাসানের উইকেট শিকারের সংখ্যা ১০। ১০ উইকেট নিয়ে এখনো পর্যন্ত সর্বাধিক উইকেট শিকারী বোলারদের মধ্যে  দ্বিতীয়স্থানে তার অবস্থান।

১২ওভার প্রতি ১২  রান দিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে নাসির হোসেন সবচেয়ে খরচে বোলার! নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ২ ওভার বল করে ১উইকেট পেলেও ২৪ রান খরচ করেন এই বোলার।

১৪ – টুর্নামেন্ট জুড়ে বাংলাদেশের হয়ে ১৪ টি ছয় হাঁকান তামিম ইকবাল। যা এখনো পর্যন্ত এবারের আসরে নির্দিষ্ট একজন ব্যাটসম্যানের পক্ষে মারা সবচেয়ে বেশি ছয়ের মার।

২৪ – ছয়ের পর এবারের আসরে সবচেয়ে বেশি চার মারার রেকর্ডটাও নিজের দখলে রেখেছেন তামিম ইকবাল খান। আসরে ২৪ টি চার নিয়ে এই তালিকায়ও ধরে রেখেছেন শীর্ষস্থান।

৯৬ – এবারের আসরে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে যৌথভাবে সবচেয়ে বড় ছয় এসেছে মাশরাফি ও সাব্বিরের ব্যাট থেকে যা লম্বায় ছিল দীর্ঘ ৯৬ মিটার!

৯৭ – ওমানের বিপক্ষে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তামিম ইকবাল সাব্বির রহমান গড়ে ছিলেন ৯৭ রানের জুটি। যা এবারের আসরে যেকোন উইকেটে বাংলাদেশের জন্য সবচেয়ে বড় রানের জুটি। এখনো পর্যন্ত দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে করা এই জুটির অবস্থানও এবারের আসরে দ্বিতীয়।

১৪২.৫১ – এবারের আসরে বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানদের মধ্যে তামিম ইকবালের সবচেয়ে বেশী  স্ট্রাইকরেট ১৪২.৫১।

২৯৫-  টুর্নামেন্টজুড়ে সবচেয়ে বেশি সফল যিনি। ব্যাট হাতে এবারের আসরে ২৯৫ রান করে সর্বাধিক রান সংগ্রাহকের তালিকার শীর্ষে অবস্থান সেই তামিম ইকবালেরই!

-ইমরান হাসান, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন


Related Articles

‘মাশরাফি একজন ফাইটার’

ধারাবাহিকতাই মূল মন্ত্র ওয়ালশের কাছে

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতলো ভারত

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

শঙ্কা কাটিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলছেন মুস্তাফিজ