Scores

সবসময় দলের স্বার্থে খেলি, নিজের জন্য না : মিঠুন

জাতীয় দলে কয়েকটি অর্ধশতক হাঁকালেও এখনো শতক কিংবা বড় ইনিংসের দেখা পাননি মোহাম্মদ মিঠুন। অনেক ইনিংসে ভালো শুরু করেও শেষটা রাঙাতে পারেননি। তিনি মনে করেননি, দলের স্বার্থ দেখে খেলতে যেয়েই তার অনেক ইনিংসের অপমৃত্যু ঘটেছে। তবুও তিনি সবসময়ই দলের স্বার্থে ব্যাটিং করার চেষ্টা করেন।

সবসময় দলের স্বার্থে খেলি, নিজের না : মিঠুন

রবিবার (২৮ জুন) বিডিক্রিকটাইমের বিশেষ আড্ডায় অতিথি হিসাবে এসেছিলেন মিঠুন। সেখানে তিনি ক্যারিয়ারের বিভিন্ন সম নিয়ে আলোচনা করেন। ২০১৯ সালের ওয়ানডে বিশ্বকাপ নিয়ে কথা বলতে যেয়ে তিনি বলেন দলের স্বার্থ দেখে খেলতে যেয়ে তিনি বড় ইনিংস খেলার সুযোগ হারান। তবে তাতে আক্ষেপ নেই এই ব্যাটসম্যানের।

Also Read - অতিরিক্ত আবেগ, অতিরিক্ত সমালোচনা ভালো নয় : মিঠুন


মিঠুন বলেন, ‘বিশ্বকাপের মতো জায়গায় আমার স্বপ্নটা আরও বড় ছিল। সবাই চায় বিশ্বকাপে ভালো করতে। বিশ্বকাপ নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা থাকে। আমারও তাই ছিল। আমি তিনটা ম্যাচ খেলার সুযোগ পেয়েছিলাম। তার মধ্যে দুইটা ম্যাচে আমি ভালো শুরু করেছিলাম। ইনিংসগুলো সম্পূর্ণ করতে পারলে হয়তো আমি বাদ পড়তাম না।’

তিনি জানান, ক্রিকেট ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই সবসময় দলের স্বার্থ চিন্তা করে ব্যাটিং করে আসছেন তিনি। এইজন্য তাকে অনেক মূল্যও দিতে হয়েছে। দলের প্রয়োজনেই শুরুতে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করতে যেয়ে আউট হয়েছেন তিনি। মিঠুন চাইলে থিতু হয়ে নিয়ে তারপর আক্রমণাত্মক খেলার চেষ্টা করতে পারতেন কিন্তু তাতে দলের ক্ষতি হয়ে যেত।

এই ডানহাতি ব্যাটসম্যানের ভাষায়, ‘আমি যে কখনো ভয় পেয়ে আউট হয়েছি এমন কিন্তু না। ছোটবেলা থেকেই আমি চেষ্টা করি দলের জন্য খেলার চেষ্টা করি। নিজের ইনিংস নিয়ে চিন্তা করি না। যদি দলের প্রয়োজনে প্রথম বল থেকেই আমাকে আক্রমণাত্মক খেলতে হয় তাহলে তাই করি। এইজন্য আমার ক্যারিয়ারে অনেক মূল্য দিতে হয়েছে। শুরুতে আক্রমণাত্মক খেলা বেশ কঠিন; থিতু হওয়ার পর কাজটা অন্যরকম। কারণ প্রথমে সফল হওয়ার থেকে ঝুঁকিটা বেশি থাকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি সবসময় চেষ্টা করি দলের স্বার্থে খেলার। আমি যে তিনটা ম্যাচে আউট হয়েছি, কখনো নিজের কথা চিন্তা করে ওই তিনটা ম্যাচে ব্যাটিং করিনি। আমি যেই শটটা খেলতে গিয়েছি, সেটা দলের। এই যে দলের প্রয়োজন এখন রানটা বাড়ানো। সেটাই চেষ্টা করেছি। যদি লক্ষ্য ৩৫০ থাকে, মিডল অর্ডারে ব্যাটিং করে আমার হাতে খুব একটা সময় থাকে না। এই জিনিসগুলোই সবসময় করি। কখনো সফল হই, কখনো হই না।’

উল্লেখ্য, জাতীয় দলে পক্ষে ২৭টি ওয়ানডে ম্যাচের ২৩ ইনিংসে ২৮.৭৫ গড়ে মিঠুনের সংগ্রহ ৫৭৫ রান। অর্ধশতক করেছেন ৫টি। ইনিংস সর্বোচ্চ রান ৬৩। ৯ টেস্টের ১৬ ইনিংসে করেছেন ১৯.০২৫ গড়ে ৩০৮ রান। এখানে অর্ধশতক ২টি; সর্বোচ্চ ইনিংস ৬৭ রান। ১৫ টি-টোয়েন্টির ১১ ইনিংসে করেছেন ১২২ রান।

বিশ্বকাপে দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউজিল্যান্ড ও ইংল্যান্ডের বিপক্ষে তিনটি ম্যাচ খেলার সুযোগ পান তিনি। তিন ম্যাচে যথাক্রমে ২১ বলে ২১ রান, ৩৩ বলে ২৬ রান ও ২ বলে ০ রানে আউট হন।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

‘ভারত নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য বিশ্ব ক্রিকেটের স্বার্থ ক্ষুণ্ণ করছে’

অস্ট্রেলিয়া সফর নিয়ে এ কেমন ‘চাওয়া’ গাঙ্গুলির!

ফাইনালে ‘অদ্ভুত’ নিয়মের হার এখনো পোড়ায় নিউজিল্যান্ডকে

ক্যারিয়ার বাঁচাতে আর দুই ম্যাচ সুযোগ পাবেন বাটলার!

‘ফ্যান সাবস্ক্রিপশন’ চালু করল বিডিক্রিকটাইম