সবার ওপরে তামিম

বিপিএলে নিয়মিতই রানের ফোয়ারা ছুটছে তামিমের ব্যাটে। অপরাজিত ৬২ ও অপরাজিত ৬৬ রানের পর কাল ৫৯ বলে ৭৪—ফিফটির হ্যাটট্রিক হয়ে গেছে ভাইকিংস অধিনায়কের! ১১ ম্যাচে ৪২৫ রান করে আছেন সবার ওপরে। এখন পর্যন্ত তাঁর নামের পাশে পাঁচটি ফিফটি, ছুঁয়েছেন বিপিএলে এক আসরে সবচেয়ে বেশি হাফ সেঞ্চুরির রেকর্ড।

গতকাল ক্রিস গেইলের খেলা দেখার জন্য গ্যালারি ছিল কানায় কানায় পূর্ণ। কিন্তু যারা গেইলের ছক্কা-বৃষ্টি দেখার জন্য মাঠে এসেছিলেন তাদের সে আশায় গুড়েবালি। ক্যারিবীয় ঝড় ছয় বল খেলে ১ রানের বেশি করতে পারেননি। তবে গেইল না পারলেও কাল ঠিকই ঝড় উঠেছিল তামিম ইকবালের ব্যাটে।

Advertisment

Tamim-Iqbal-1-600x382

ভাইকিংস দলপতি ৫৯ বলে খেলেন ৭৪ রানের অসাধারণ এক ইনিংস। টানা তৃতীয় হাফ সেঞ্চুরি তামিমের। চলতি আসরে সব মিলে চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি। সব মিলে ১১ ম্যাচে চলতি বিপিএলে তার ধারে কাছে কেউ নেই। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মুশফিকের রান ৩৪০।

তামিম ইকবাল অসাধারণ এই ইনিংসে তিনটি বিশাল ছক্কা ও ছয়টি বাউন্ডারি হাঁকিয়েছেন। ড্যাসিং ওপেনারের এই ইনিংসটি হতে পারে বিপিএলে সেরা। কেননা দলের বিপদের সময় একপ্রান্ত আগলে রেখে যেভাবে রানের গতি সচল রেখেছিলেন তা অবিশ্বাস্য। গেইল আউট হওয়ার পর দ্রুত আরও দুই উইকেট পড়ে যায় ভাইকিংসের।

রানের খাতা খোলার আগেই সাজঘরে ফেরেন এনামুল হক বিজয়। জহুরুল ইসলাম অমিও ৬ রান করে আউট হয়ে গেলে ৩৩ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে মহাবিপদে পড়ে চিটাগং। চতুর্থ উইকেটে মালিকের সঙ্গে ৮৬ রানের জুটি গড়েন তামিম। এই জুটিতে ভর করেই শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ১৩৪ রান করে চিটাগং।

আসলে এবারের বিপিএলটা দুর্দান্ত কাটছে দেশীয় ক্রিকেটারদের। সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ও সর্বোচ্চ উইকেট সংগ্রাহক তালিকা দুই জায়গাতেই স্থানীয় ক্রিকেটারদের দাপট। তারই প্রভাব পড়ছে রেকর্ড বোর্ডে।

 

মাকসুদুল হক , বিডিক্রিকটিম।