Scores

সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়া ম্যাচে জিতলো রংপুর

বিপিএলে দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড গড়ে চিটাগং ভাইকিংসকে ৭২ রানে হারিয়েছে রংপুর রাইডার্স। রংপুরের হয়ে সেঞ্চুরি হাঁকান রাইলি রুশো ও আলেক্স হেলস। চিটাগং ভাইকিংসের হয়ে ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ রান করেন ইয়াসির আলী।

ইতিহাসের পাতায় হেলস-রুশো

নিজেদের ঘরের মাঠেই প্রতিপক্ষ দল গড়ল দলীয় সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। শুধু দলীয় সর্বোচ্চর রানই করেনি রংপুর রাইডার্স আরও একাধিক রেকর্ড গড়ে রংপুর। টস হেরে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই ক্রিস গেইলকে হারায় রংপুর। গেইল বিদায় নেন মাত্র দুই রান করে। তারপরেই চট্টগ্রামে শুরু হয় হেলস ঝড়। রুশোকে একপ্রান্তে রেখে প্রথমদিকে একাই দলের রান তোলেন হেলস। তার ঝড়ের পরেই চট্টগ্রামে ঝড় তোলেন দারুণ ফর্মে থাকা রুশো।

দুইজনের ব্যাটিং তাণ্ডবে রানের বন্যা হয় চট্টগ্রামে। হেলস ও রুশোর ব্যাটিংয়ে দিশেহারা হয়ে যায় চিটাগং ভাইকিংসের বোলাররা। পাত্তাই পাচ্ছিল না স্বাগতিকরা। দুইজন মিলে গড়েন ১৭৪ রানের জুটি। বিপিএলের এবারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি আসে হেলসের ব্যাট থেকে। ৪৮ বলে ১০০ করেই রাজার বলে আউট হন হেলস। এবি ডি ভিলিয়ার্সকে একপাশে রেখে একাই রান তোলেন রুশো। ডি ভিলিয়ার্স বিদায় নেন মাত্র একরান করে। মোহাম্মদ মিঠুন সঙ্গে গড়েন ৩৩ রানের জুটি।

Also Read - “লেগ স্পিনার চেষ্টা করলে গেম চেঞ্জার হতে পারে”


শতক হাঁকানোর পর হেলসের উদযাপন।
শতক হাঁকানোর পর হেলসের উদযাপন।

শেষ পর্যন্ত রুশোর অপরাজিত ১০০ রানে ২৩৯ রান করে রংপুর। জবাবে ব্যাটিং করতে নেমে ভালো কিছুর আশা দিয়েছিলো মোহাম্মদ শাহজাদ। তবে সেটি থেমে যায় দলীয় ২৮ রানে। ডেলপোর্টের পরিবর্তে দলে আসা সিকান্দার রাজা আউট হন মাত্র ৩ রান করে। ইয়াসির আলীর সঙ্গে ভাইকিংস অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম কিছুটা প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করলেও জুটি বড় করতে পারেনি। শফিউলের এক ওভারেই তিনটি ছয় হাঁকান মুশফিক।

নাজমুল অপুর বলে এলবিডব্লিউর শিকার হন মুশফিক। তার বিদায়ে দলের পরাজয় অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে যায়। তবুও অন্যপাশ থেকে লড়াইয়ের আশা দেখাচ্ছিলেন ইয়াসির আলী। নজিবের বিদায়ের পর মোসাদ্দেকের সঙ্গে ৪১ রানের জুটি গড়েন ইয়াসির। মোসাদ্দেক আউট হন ১৪ রান করে। ৪৮ বলে ৭৮ রান করে মাশরাফির বলে আউট হন ইয়াসির। শেষ পর্যন্ত ৮ উইকেটে ১৫৭ রানে ইনিংস শেষ হয় চিটাগং ভাইকিংস।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

রংপুর রাইডার্স ২৩৯-৪ (ওভার ২০)

রুশো ১০০*, হেলস ১০০: রাহী ২-৩৫

চিটাগং ভাইকিংস ১৫৭-৮ (ওভার ২০)

ইয়াসির ৭৮, মুশফিক ২২: মাশরাফি ৩-৩৪

আরও পড়ুনঃ লেগ স্পিনার হতে পারে গেম চেঞ্জার!

Related Articles

রিয়াদ-সৌম্যদের নিয়ে দুশ্চিন্তা ডমিঙ্গোর

ফ্লাডলাইট না জ্বালিয়ে খেলা বন্ধ রাখায় অবাক ডমিঙ্গো

খেলতে যাওয়ায় মুমিনুলের ব্যাট পুড়িয়ে ফেলেন বাবা

সাদমানকে রেখে সাইফকে নেওয়ার কারণ জানালেন ডমিঙ্গো

‘৫২০’ রান করলেই সন্তুষ্ট ডমিঙ্গো