SCORE

সর্বশেষ

সহজ জয়ে ফাইনালের পথে ভারত

বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা দলকে ছয় উইকেটে হারিয়ে নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে একরকম পা দিয়ে রাখল ভারত।

ছবিঃ ক্রিকইনফো

 

টস জিতে ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা ব্যাট তুলে দেয় স্বাগতিকদের হাতে। ব্যাট হাতে ঝড়ো সূচনা করে লঙ্কানরা। ২.১ ওভারে ১ম উইকেটে বোর্ডে জমা হয় ২৫ রান। শারদাল ঠাকুর ও ওয়াশিঙ্গটন সুন্দর ফেরান পেরেরা ও গুনাথিলাকাকে। ৮ বলে এক ছয়ে ১৭ করেন গুনাথিলাকা। অন্যদিকে ৪ বলে ৩ রান করে সুন্দরের বলের সুন্দরভাবে বোল্ড হন পেরেরা।

Also Read - ডিপিএলে জয় পেয়েছে রূপগঞ্জ , খেলাঘর ও অগ্রণী ব্যাংক

পেরেরা ও গুনাথিলাকা গেলেও ঝড় থামে নি একপাশ আগলে রেখে ঝড় চালিয়েছেন কুশল মেন্ডিস। তৃতীয় উইকেটে থারাঙ্গা ও মেন্ডিস দুই জনে মিলে গড়েন ৬২ রানের চমৎকার জুটি। ডানা মেলতে সময় নেননি ছন্দে থাকা মেন্ডিস। তাকে স্ট্রাইক দিয়ে যাওয়ায় মনোযোগ ছিল থারাঙ্গার। চমৎকার পায়ের কাজ ও অসাধারণ শট বাছাই করে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান করে গেছেন এই ওপেনার।

৯৬ রানে উপুল থারাঙ্গা এর বিদায়ে ধ্বস নামে স্বাগতিকদের ব্যাটিংয়ে। ২৪ বলে ২২ রান করে শংকরের বলে আউট হন তিনি।

দিনেশ চান্দিমালের অনুপস্থিতিতে দলকে নেতৃত্ব দেওয়া থিসারা পেরেরার শুরুটা ছিল দারুণ। মুখোমুখি হওয়া প্রথম দুই বলে হাঁকান ছক্কা। এরপর যেতে পারেননি বেশি দূর। পেরেরা মাঠে নেমে ঝড়ের আভাস দিলেও সে ঝড় থামাতে বেশি সময় নেয় শারদাল ঠাকুর। চাহালের বলে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান দুই ছয়ে ছয় বলে ১৫ রান করা পেরেরা। থিসারার উইকেটে পাল্টে যায় ম্যাচের চিত্র। ১২ ওভারে ৪ উইকেটে ১১৩ রান করা স্বাগতিকরা শেষ ৭ ওভারে তুলে মাত্র ৩৯ রান।

সুন্দরের বলে দ্রুত জীবন মেন্ডিস আউট হলে চাপে পড়ে স্বাগতিকরা। এরপর চাহালের বলে একপ্রান্ত আগলে রাখা কুশল পেরেরা আউট হলে বড় রানের আশায় বাঁধ পড়ে সিংহদের।

এরপর শানাকা কিছুটা লড়াই করেন একাই। শেষ ওভারে শারদুল ঠাকুরের শিকার হওয়ার আগে এক চার আর সমান সংখ্যক ছয়ে ১৬ বলে ১৯ করেন তিনি। শেষ পর্যন্ত ১৯ ওভারে আট উইকেটে ১৫২ রান করতে সক্ষম হয় তারা। ২৭ রানে ৪ উইকেট নিয়ে ভারতের সেরা বোলার পেসার শার্দুল। ওয়াশিংটন সুন্দর ২ উইকেট নেন ২১ রানে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই হোঁচট খায় ভারত। দ্বিতীয় ওভারের শেষ বলে অধিনায়ক রোহিত শর্মা হাঁটেন প্যাভিলিয়নের দিকে। চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে বিদায় নেন আরেক ওপেনার শিখর ধাওয়ান। দুজনকেই ফেরান আকিলা ধনঞ্জয়া। রোহিত শর্মা ও ধাওয়ান করেন যথাক্রমে ৭ বলে ১১ ও দশ বলে আট।

সুরেশ রায়না শুরুর চাপটা দ্রুত সরিয়ে দিতে দিতে নিজেও ফিরেছেন ১৫ বলে ২৭ করে। চারে ব্যাট করতে নেমে বলের সাথে পাল্লা দিয়ে রান করেন রায়না। সপ্তম ওভারে আউট হন তিনি। এরপর কে এল রাহুল আউট হলেও দীনেশ কার্তিক আর মানিশ পান্ডে এর অনবদ্য ব্যাটিংয়ে আর কোনো শঙ্কায় পরে নি ভারত। ম্যাচ জিতে নয় বল আর ছয় উইকেট হাতে রেখে। এই জয় দিয়ে প্রথম ম্যাচের পর টানা দুই ম্যাচ জিতল তারা।

 

আরো পড়ুনঃ

দুই টেস্টে নিষিদ্ধ রাবাদা

Related Articles

রুবেল হোসেনের সমস্যা কোথায়?

নিদাহাস ট্রফি থেকে ৪৮২ শতাংশ লাভ!

অসুস্থ রুবেল, দোয়া চাইলেন সবার কাছে

যেখান থেকে শুরু ‘নাগিন ড্যান্স’ উদযাপনের

‘খারাপ করছি দেখেই বেশি চোখে পড়ছে’