Score

সাকিবের অনেক চাওয়া-পাওয়ার সিরিজ

চলতি বছর উইন্ডিজ সফরে গিয়ে টেস্ট সিরিজে কোনো লড়াই করতে পারেনি বাংলাদেশ। এক ইনিংসে ৪৩ রানে অলআউট হতে হয়েছে। দুই ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয় বাংলাদেশ। এবার সেটিই যেন ফিরিয়ে দিল টাইগাররা। বাংলাদেশের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের কাছে জবাব দেওয়ার সিরিজ না হলেও, এটি ছিল দেশের মাটিতে নিজেদের সামর্থ্য প্রমাণের সিরিজ।

সাকিবের অনেক চাওয়া-পাওয়ার সিরিজ ২

উইন্ডিজ সফরে টেস্টে ভরাডুবির পর মিটিং করেছিল ক্রিকেটাররা। এরপর ওয়ানডে ও টি-২০ সিরিজ বাংলাদেশ জিতে নিলেও অপেক্ষায় ছিল টেস্টে নিজেদের প্রমাণ করার। সেই দুঃস্মৃতি ভুলিয়ে দেওয়ার মত পারফরম্যান্স চেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। মাঠে হয়েছেও তাই। বাংলাদেশের মাটিতে পাত্তাই পায়নি ক্যারিবিয়ানরা।

Also Read - ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দশ উইকেটকে এগিয়ে রাখছেন মিরাজ

সাকিব আল হাসান বলেন, “আমি মনে করি আমরা যারা ছিলাম উইন্ডিজ সিরিজে, আমরা কেউ এমন পারফরম্যান্স আশা করিনি যেটা ওখানে  করেছিলাম। আমরা ওটা হারার পর মিটিং করি এবং শক্তভাবে ঘুরে দাঁড়াই ওয়ানডে এবং টি-২০ তে। যেহেতু আমরা টেস্ট ফরম্যাটে ওভাবে ভালো করিনি তাই দেশের মাটিতে আমাদের সুযোগ ছিল প্রমাণ করার। মানুষ অন্তত ভুলতে পারে কিংবা বুঝতে পারে তাদের হোমে তারা এডভান্টেজ নিয়েছে আর আমাদের হোমে আমাদের যতটুকু সম্ভব ততটুকু করতে পেরেছি।”

অনেক কিছু প্রমাণ করার ছিল বলে মনে করেন সাকিব। মনে বিশ্বাস ছিল সতীর্থদেরও। সব মিলিয়ে যেন বের হয়ে আসল মাঠে আগুন হয়ে। সেই আগুনে পুড়লো উইন্ডিজরা। দুই টেস্টেই খেলা শেষ তৃতীয় দিনেই।

অন্তত নিজেদের মাটিতে যে সুবিধা বাংলাদেশ নিতে পারে তার জানান দিতে চেয়েছিলেন সাকিব। তিনি বলেন, “জবাব দেওয়া না কিন্তু এখন যেটা হয় হোম এন্ড অ্যাওয়ে এডভান্টেজ থাকে। ওরা ওদের দেশের মাটিতে সুবিধাটা নিয়েছে, আমরা আমাদেরটা নিয়েছি। ওভাবে হারার পর অবশ্যই আমাদের অনেক প্রমাণ করার ছিল, অন্তত দেশের মাটিতে এবং আমরা করতে পেরেছি। সেটার জন্য কোচিংস্টাফ থেকে শুরু করে প্রতিটা টিমমেটকে ধন্যবাদ জানাই।” 

সিরিজটাতে সবার কাছ থেকেই সাকিব চেয়েছেন অনেক বেশি করে। অধিনায়কের  সেই চাওয়া পূরণ করেছে সবাই। প্রত্যেকে মাঠে উজাড় করে দিয়েছে নিজেকে। সবার মধ্যে আলাদা তাড়না দেখেছেন সাকিব। সংবাদ সম্মেলনে সাকিব বলেন, “সত্যি কথা বলতে আমি অনেক ডিমান্ডিং ছিলাম সিরিজটাতে। সবার কাছ থেকে অনেক বেশি করে চাচ্ছিলাম। আলহামদুলিল্লাহ সবাই সবার সাধ্যমত চেষ্টা করেছে। কেউ হয়তো সফল হবে, কেউ হয়তো হবে না। কিন্তু সবার মনের ভেতর ঐ বিশ্বাসটা ছিল এবং ঐ জিনিসটা ছিল যে সবাই দলের জয়ের জন্য অবদান রাখতে চায়। কিন্তু আলাদা রকম একটা আগ্রহ ছিল, সেটা বোঝা যাচ্ছিল।”

অনেক কিছু যেমন চাওয়া ছিল সাকিবের ঠিক তেমনি অনেক কিছু পাওয়া হয়েছে বলে মনে করেন তিনি। সবাইকে জানাতে পেরেছেন টাইগারদের সামর্থ্যের।  প্রথমবারের মতো প্রতিপক্ষকে টেস্টে ফলো-অন করিয়েছে বাংলাদেশ। পেয়েছে প্রথম ইনিংস ব্যবধানের জয়। এটি এখন টেস্টে বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় জয়। প্রথমবারের মতো ঘরের মাঠে র‍্যাঙ্কিংয়ের উপরে থাকা কোনো দলকে টেস্টে হোয়াইওয়াশ করার স্বাদ পেয়েছে বাংলাদেশ। এত ‘প্রথম’ এ টেস্টকে বিশেষ করেছে সাকিবের কাছে।

মাঠেও বাংলাদেশ দাপট ছিল চোখে পড়ার মত। ব্যাটিংয়ে ৫০৮ রানের বিশাল সংগ্রহ দাঁড় করানোর পর উইন্ডিজকে ১০৮ রানে গুটিয়ে দেয় টাইগাররা। দ্বিতীয় ইনিংসেও বোলিংয়ে এসে বাজিমাত। কোনো ইনিংসেই দাঁড়াতে পারেনি উইন্ডিজ টপ অর্ডার।

সাকিব বলেন, “দেখুন আমরা একশ’র উপরে টেস্ট খেলেছি। প্রথমবার এরকম কিছু করলাম। অবশ্যই স্পেশাল কিছু। আমরা আঠারো বছর টেস্ট খেলেছি। একশ’র উপরে টেস্ট খেলেছি। এই প্রথমবার এমন কিছু হলো। এর ভেতরে আমরা ছোট টিমের সাথেও খেলেছি। আমরা আমাদের ওপরের র‍্যাঙ্কিংয়ের কোনো দলকেও ঘরের মাঠে এভাবে হোয়াইটওয়াশ করিনি। তাই সব কিছু মিলিয়ে এটা আমাদের জন্য অনেক কিছু পাওয়ার একটা সিরিজ ছিল।” 


আরো পড়ুনঃ এমনটাই চেয়েছিলেন সাকিব


 

Related Articles

সিরিজ জিতে নিল নিউজিল্যান্ড

পুজারার শতকে মুখ বাঁচাল ভারত

মিরাজের প্রশংসায় সাকিব

ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দশ উইকেটকে এগিয়ে রাখছেন মিরাজ

নিজের রেকর্ড ভাঙলেন মিরাজ