সাকিবের ব্যাটিংয়ের ব্যাখ্যা নেই ব্যাটিং কোচের কাছে

0
7626

পরপর দুই বলে আউট ইমরুল কায়েস এবং তাইজুল ইসলাম। ক্রিজে হ্যাট্ট্রিক বল মোকাবেলা করতে আসলেন সাকিব। কিন্তু ঠেকানো তো দূরের কথা সেই বলেই চার মেরে সান্দাকানের হ্যাটট্রিকের আশা ধুলোয় মিশিয়ে দিলেন সাকিব! শুধু কি এটুকুই? মাত্র ৮ বল খেলে ক্রিজে ১৮ রানে অপরাজিত রয়েছেন সাকিব কিন্তু প্রত্যেকটি বলেই তিনি ছিলেন মারমুখী। দুইবার শ্রীলঙ্কান ফিল্ডারদের ব্যর্থতায় জীবনও পান। হঠাৎ কি এমন হলো যে টেস্টের মত ফরম্যাটে সাকিবের টি-টোয়েন্টি খেলা? এটার উত্তর জানেন না স্বয়ং ব্যাটিং কোচ সামারাবিরাও।

Advertisment

“সত্যি বলতে কী, আমি কোনো শব্দ খুঁজে পাচ্ছি না। (এই ব্যাটিং সম্পর্কে) আমার কোনো ধারণাই নেই।” সামারাবিরার এমন কথাতেই বোঝা যাচ্ছে কতটা ক্ষুব্ধ তিনি সাকিবের উপর। নিজে সবসময় ধৈর্য সহকারে ব্যাটিং করে এসেছেন। সেঞ্চুরিও রয়েছে অনেকগুলো। কিন্তু তার শিষ্যদের এমন আত্মহুতি বেশ লেগেছে তার মনে। দিনের খেলা যখন মাত্র ৪ ওভার বাকি তখনই দেখা গেল বাংলাদেশের  ব্যাটিং ধস।

“এই মুহূর্তে আমার কোনো ধারণাই নেই। একটি বাজে শট আমাদের সমস্যায় ফেলেছে। ইমরুল কায়েসের আউটটা। আমি স্কিল শিখাতে পারি কিন্তু আপনি যখন টেস্ট খেলবেন তখন প্রতিপক্ষ কি করছে সে ব্যাপারে তো আপানার সতর্কতার দরকার হবে। আমি মনে করি, মাঠে আপনাকে চতুর হতে হবে। আমাদের ভাগ্য ভালো আমরা পাঁচ উইকেটে শেষ করতে পেরেছিল। আমি ভেবেছিলাম আমরা ছয় উইকেটে শেষ করবো।”

সৌম্য সরকার করেছেন হাফসেঞ্চুরি। অন্যদিকে চল্লিশের ঘরে গিয়েই আউট হয়েছেন তামিম এবং সাব্বির। বড় ইনিংস না করতে পারার ব্যর্থতা কাটিয়ে উঠতে ক্রিকেটারদের তাগিদও দিয়েছেন সামারাবিরা।


[দেখুনঃ মাত্র ৮ বলে সাকিবের প্রশ্নবিদ্ধ ১৮ রানের ইনিংস]


“প্রথম পাঁচে ব্যাটিং করলে আপনাকে শতক করতে হবে। আপনি যদি পঞ্চাশেই খুশি থাকেন তা যথেষ্ট নয়। গলে দেখুন কি হয়েছে। ‘নো’ বলের কল্যাণে প্রথম বলে বেঁচে যাওয়া কুসল মেন্ডিস বড় শতক করেছে, ১৯৪ পর্যন্ত গেছে। ভালো পিচে টেস্ট ক্রিকেটে রান করতেই হবে।”

ক্রিকেটারদের টেস্টের মত মানসিকতা গড়ে তোলাটা অনেক বেশি প্রয়োজন বলে মনে করেন সামারাবিরা। শ্রীলঙ্কার দীনেশ চান্দিমাল অসাধারণ এক সেঞ্চুরি করে দলকে ভালো অবস্থানে নিয়ে গেছেন। তাছাড়া লোয়ার অর্ডারের ব্যাটসম্যানরাও অনেক সাহায্য করেছে তাকে। সামারাবিরা বলেন, “আপনি সহজাত ক্রিকেট খেলতে পারেন কিন্তু প্রতিপক্ষ কি করছে সে ব্যাপারেও আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে। এটাই ক্রিকেট। প্রতিপক্ষ কি করছে, কোথায় ফিল্ডার রেখেছে, কি আসছে- এগুলো সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। আপনি প্রতিটি বলে সহজাত ক্রিকেট খেলতে পারবেন না। এটা ওয়ানডে ক্রিকেট নয়। পাঁচ দিনের ক্রিকেটে আপনাকে মানসিকভাবে আরও দৃঢ় হতে হবে।”

 

রুশাদ রাসেল, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম.কম