সাকিবের সাথে তো আমার কোনো শত্রুতা নেই : মুনিরুজ্জামান

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে (ডিপিএল) পৃথক দুই ম্যাচে আম্পায়ারের ওপর সাকিব আল হাসান ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মেজাজ হারানোর ঘটনায় আম্পায়ারিং পেশাকে বিদায় জানাচ্ছেন মুনিরুজ্জামান। এ নিয়ে গণমাধ্যম ও ক্রিকেট পাড়ায় হইচই পড়ে গেলেও নিজের সিদ্ধান্ত পাল্টাচ্ছেন না তিনি।

সাকিব-রিয়াদের ঘটনায় আম্পায়ারিং ছেড়ে দিলেন মনিরুজ্জামান

Advertisment

সাকিব ও রিয়াদের সাম্প্রতিক ক্ষোভ প্রকাশের ঘটনা যে আম্পায়ারদের সাথে ঘটেছিল, তাদের কেউ নন মুনিরুজ্জামান। কিন্তু সাকিব ও রিয়াদের ঘটনা আম্পায়ারদের মধ্যে কতটা বিরূপ প্রভাব ফেলেছে, তা স্পষ্ট হয়ে উঠল মুনিরুজ্জামান আম্পায়ারিং ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর। এমন কিছু হবে জানলে হয়ত সাকিব আল হাসান আর মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাতেন না!

বিডিক্রিকটাইম এর সাথে আলাপকালে মুনিরুজ্জামান জানান, কেন এই কঠিন সিদ্ধান্ত, ‘এটা অপমানজনক। আমার সহকর্মীদের সাথে এমন হয়েছে মানে আমার সাথেও হয়েছে। যে ম্যাচে সাকিব লাথি মেরেছে, ঐ ম্যাচে কিন্তু তার হাতে একটা কাগজ দেওয়া হয়েছিল, যেটাকে ক্যাপ্টেনস রিপোর্ট বলা হয়। সেই রিপোর্টে সে কিন্তু আম্পায়ারদের নিয়ে ইতিবাচক সাড়া দিয়েছে, খারাপ কিছু লিখেনি।’

‘পুরো ক্রিকেটকে হয়ত একটা বার্তা দিতে চেয়েছে, এটা সাকিব বলতে পারবে, আমি বলতে পারব না। আমার গায়ে লেগেছে ব্যাপারটা আমার কমিউনিটির জন্য অপমানজনক বলে। আমি যে জায়গাকে ধারণ করি সেখানে আঘাত লেগেছে, আমার কষ্টের জায়গা এটাই।’

সাকিবের মত ক্রিকেটার, যিনি দেশকে এনে দিয়েছেন অনেক সাফল্য; তিনি যখন আম্পায়ারদের প্রতি শ্রদ্ধা হারান নিশ্চয়ই তা হাজার হাজার তরুণের কাছেও অনুকরণীয় হবে। মুনিরুজ্জামানের ভয় এই জায়গাতেই। সাকিবের পথ মাড়িয়ে রিয়াদও আম্পায়ারিং নিয়ে মাঠে বসে অসন্তোষ জানানোর পর ভবিষ্যতে দেশের তরুণরা আম্পায়ারদের প্রতি আস্থা হারাতে পারেন, এমন শঙ্কা তার।

মুনিরুজ্জামান বলেন, ‘সাকিব নিঃসন্দেহে আন্তর্জাতিক মানের একজন ক্রিকেটার। আমিও তাকে সম্মান করি। সে আমাদের জাতিকে বড় কিছু দিয়েছে। ব্যক্তিগতভাবে তো তার সাথে আমার কোনো শত্রুতা নেই। এটা সোজাসাপ্টা কথা। বরং আমি ওর প্রশংসা করি। ওর অ্যাকশন অনেক প্রভাব ফেলে। পুরো মিডিয়া ও ক্রিকেটে তার বিচরণ আছে।’

‘সাকিব একজন ন্যাশনাল হিরো, রিয়াদ একজন ন্যাশনাল হিরো, তারা যদি এরকম করতে থাকে; আর ওদের দেখাদেখি স্কুল ক্রিকেটের ছেলেরাও একই আচরণ করতে থাকে; আমার মনে হয় না এটা আগামীর ক্রিকেটকে ভালো কিছু দিবে। নতুন যে খেলোয়াড়রা তৈরি হচ্ছে তারা সাকিবকে অনেক ভালোবাসে, অনুসরণ করে। তাকে দেখে নতুনরা যদি এরকম ঘটনা ঘটাতে থাকে- এটা ভেবেই আমার সরে আসার সিদ্ধান্ত।’– নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থেকে এমনটিই বলেন মুনিরুজ্জামান।

দেখুন সাকিব-রিয়াদের ঘটনায় আম্পায়ারিং ছাড়া নিয়ে মুনিরুজ্জামানের সাক্ষাৎকার-

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।