সাকিবে খুশি কোচ হাথুরুসিংহে

0
12051

এইতো কয়েকদিন আগের গল টেস্টের পরেই সাকিবের বোলিং নিয়ে বলেছিলেন ‘সাকিবের বোলিংয়ে আগের সেই ধার নেই’। ঠিক পরের টেস্টে এসেই সাকিব নিজের জাতকে চেনালেন এবং কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহকে বাধ্য করলেন তার প্রশংসা করতে। কলম্বোর পি সারা ওভাল স্টেডিয়ামে বাংলাদেশের শততম জয়ে ব্যাট এবং বল হাতে অসাধারণ পারফরম্যান্স করে দলকে অবিস্মরণীয় এক জয় এনে দেন সাকিব। যদিও ম্যাচ সেরার পুরস্কার তামিম পান কিন্তু সেই তামিমের চোখেই ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় ছিলেন সাকিব। সিরিজ সেরার পুরস্কারটাও জুটেছে তার কপালে।  এমন সম্যে শিষ্যদের প্রশংসা না করে কি বসে থাকতে পারেন কোচ!

Advertisment

শততম টেস্ট জয়ের কোচকে ঘিরে ধরে সংবাদমাধ্যম কর্মীরা। যদিও সংবাদ সম্মেলনে তিনি আসেননি। তবুও সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তাদের কিছু কিছু প্রশ্নের উত্তর দেন হাতুরু। সাকিবের প্রসঙ্গ আসতেই কোচ বলেন, ‘ ২০১০ বা ২০১১ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওর বোলিংয়ের ভিডিও দেখছিলাম আমি। সে তখন ভিন্ন এক বোলার ছিল, সে আমাকে দেখিয়েছে তা। ভিডিও দেখার পর আমরা আলোচনা করেছি। খুব ভালোভাবে কথা বলেছি যে কোন দিকগুলো সে ঠিক করছে না। এই ম্যাচে সে দারুণ বোলিং করেছে। বিশেষে করে ফিজ (মুস্তাফিজ) যখন একদিক থেকে ভালো বোলিং করছিল, সাকিব তখন রান আটকে রেখেছে।’

সাকিবের সঙ্গে তার দীর্ঘসময় ধরে নানা বিষয় নিয়ে খুঁটিনাটি আলোচনাও হয়েছে বলে জানান হাতুরুসিংহে। ‘আমি সাকিবের সাথে বসে কথা বলেছি। ওই সময় তার বোলিং নিয়ে কথাও বলেছি। কিছু টেকনিক্যাল কথাবার্তাও হয়েছে আমার ও সাকিবের মধ্যে। আমার মনে হয় তারই রেশ ধরে সাকিবের ভাল বল করেছে হয়তো।’


আরো পড়ুনঃ ব্যাটে-বলে শীর্ষে লঙ্কানরাই


তামিমের ব্যাটিংয়ে খুশি হলেও আউট হবার আগে, সে সিঙ্গেলস নেয়নি। সেটা ঠিক নজরে পড়েছে কোচের। পরে দেখা গেছে, তামিমের আউট হওয়ার সময় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন তিনি। খেলা শেষে তামিমের ব্যাটিং নিয়ে কথা বলতে গিয়ে কোচ বলেন, ‘আমি তার আউটের ধরন দেখে হতাশ বা ক্ষুব্ধ নই। তবে আউট হবার আগের বলে সে যে সিঙ্গেলস নেয়নি, তাতে ক্ষুব্ধ। ওই সিঙ্গেলস হলে হয়ত তামিম আউট হতো না।’

রুশাদ রাসেল, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম.কম