Scores

সিলেটের ১ রানের আক্ষেপ

al-amin hossainআজমল তানজীম সাকির

প্রথম ম্যাচে এক বলে প্রয়োজন ছিল তিন রান। দৌড়েছিলেন মুশফিকুর রহিম ও অজন্তা মেন্ডিস। তবে পারেননি। আক্ষেপ ছিল এক রানের। দ্বিতীয় ম্যাচে লক্ষ্য ছিল আরও সহজ। তবে শেষ বলে প্রয়োজন ছিল চার রান। সীমানা ছাড়া না করতে পারলেও দৌড়ে তিন রান নিতে পারলে সমানে সমান। এবার দৌড়ালেন ফিডেল এডওয়ার্ডস ও শুভাশিষ রায়। এবারও আক্ষেপ রয়ে গেল। সেই এক রানের।

টানা দুই ম্যাচেই সিলেট সুপার স্টার্সকে হারতে হলো ১ রানে। প্রথম ম্যাচে ১৭৭ রানের টার্গেট সামনে থাকলেও দ্বিতীয় ম্যাচে মুশফিকদের লক্ষ্য ছিল ১০৯। টি-২০ ফরম্যাটের দৃষ্টিতে মোটেও কঠিন নয়।

Also Read - কুমিল্লাকে জেতালেন মাশরাফি


টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুর্দান্ত সূচনা উপহার দেন দুই ওপেনার শাহরিয়ার নাফীস ও রনি তালুকদার। তবে উদ্বোধনী জুটি ভাঙার পর দুমড়ে মুচড়ে যায় বরিশাল বুলস। নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকলে ১০৮ রানেই গুটিয়ে যায় বরিশাল। ডানহাতি ব্যাটসম্যান নাদিফ চৌধুরী দলীয় সর্বোচ্চ ২৪ রান করেন। তিনটি উইকেট পান নাজমুল।

১০৯ রানের সহজ লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা অতো ভাল হয়নি সিলেটের। দলীয় নয় রানের মাথায় বিদায় নেন ওপেনার মুমিনুল হক। তবে সিলেট সুপারস্টার্সের মেরুদণ্ড ভেঙে দেন আল-আমিন হোসেন। চতুর্থ ওভারে হ্যাট্রিক করেন এ ডানহাতি পেসার। বোপারাকে ফেরানোর পর তার দুর্দান্ত বোলিংয়ে বোল্ড হন নুরুল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। ক্রিজে থিতু হতে পারছিলেন না কেউ। ওয়াইজ শাহ, মিলন ও নাজমুল দুই অঙ্কের ঘরে পৌছালেও স্কোর বড় করতে পারেননি। বরিশালের কুপার ও সামি চেপে ধরেন সিলেটের ব্যাটসম্যানদের।  শেষ দিকে ফিডেল এডওয়ার্ডস দুই চার হাঁকিয়ে ১১ রান করলেও ১ রানে হারতে হয় সিলেটকে। পাঁচ উইকেট শিকার করে ম্যাচসেরা হন আল-আমিন হোসেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ বরিশাল বুলস ১০৮/১০ (১৯ ওভার ৩ বল)
নাদিফ ২৪, রনি ২০; নাজমুল ১৮/৩

সিলেট সুপারস্টার্স ১০৭/৯ (২০ ওভার)
নাজমুল ১৬, মিলন ১৫; আল-আমিন ৩৬/৫

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে মাশরাফি

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতলো ভারত

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

শঙ্কা কাটিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলছেন মুস্তাফিজ

দুদকের শুভেচ্ছাদূত হলেন সাকিব