Scores

সেদিন স্নায়ুচাপ সামলাতে ‘সিগারেট বিরতি’ নেন স্টোকস

দীর্ঘ অপেক্ষার পরে বিশ্বকাপে চুম্বন করার সুযোগ পায় ইংল্যান্ড। এগারোটি বিশ্বকাপ অপেক্ষার পর বারোতম আসরে স্বাদ পাওয়ার পথে জয়ের নায়ক ছিলেন বেন স্টোকস। টুর্নামেন্ট জুড়েই দারুণ খেলা এই অলরাউন্ডার ফাইনালের চাপের মুখে ধূমপান করে স্নায়ুচাপ সামলেছিলেন বলে জানা গিয়েছে নতুন প্রকাশিত একটি বই থেকে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের উপর বেজায় চটেছেন স্টোকস

১৪ জুলাই, ২০১৯। ক্রিকেট বিশ্বকাপ ইতিহাসের সবচেয়ে রোমাঞ্চকর ঘটনাটা ঘটেছে। ফাইনালের মতো মহাগুরুত্বপূর্ণ ম্যাচটি হয়েছিল টাই। ফলে শিরোপা নির্ধারণের জন্য যাওয়া হলো সুপার ওভারে। কিন্তু সেখানেও সমাধান মিললো না। সুপার ওভারেও টাই করে বসলো দুই দল- ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড।

Also Read - আকমলকে অপেক্ষায় রাখল পিসিবি


দুই দলের ৫০ ওভার করে খেলা শেষে যখন ম্যাচ সুপার ওভারে গড়ালো তখন দুই দলের হাতে সময় ছিল খুবই কম। কয়েক মিনিট পরেই নামতে হবে ছয় বলের লড়াইয়ে, সেটাও আবার বিশ্বকাপ জয়ের জন্য। দুই দলের খেলোয়াড়দের স্নায়ুচাপ তো বৃদ্ধি পাওয়াটা স্বাভাবিক। তাছাড়া সেই সুপার ব্যাটিং করতে নামবেন স্টোকস; তাই তার ওপর চাপটা একটু বেশিই ছিল।

আজ ২০২০ সালের ১৪ জুলাই। অর্থাৎ ইংল্যান্ডের বিশ্বকাপ জয়ের এক বছর পূর্ণ হলো। দেশটির ক্রিকেট ইতিহাসের এই বিশেষ একটি বই প্রকাশ করা হয়েছে। যার নাম, ‘মরগানস ম্যান : দ্য ইনসাইড স্টোরি অব ইংল্যান্ডস রাইজ ফ্রম ক্রিকেট ওয়ার্ল্ড কাপ হিউমিলিয়েশন টু গ্লোরি’। এই বইয়ে প্রকাশ করা হয়েছে সেই স্নায়ুচাপের মুহূর্তে স্টোকস কী করেছিলেন।

বইটিতে এই সম্পর্কে লেখা হয়েছে, ‘২৭ হাজার দর্শক ও টেলিভিশনে লাখো দর্শকের সামনে ম্যাচটা সুপার ওভারে গড়ালো। সবাই খেলোয়াড়দের অনুসরণ করছিল। মাঠ থেকে শুরু করে ড্রেসিংরুমে যেতে যতটুকু দেখা যায় ক্যামেরাগুলো ছিল খেলোয়াড়দের ওপরে।’

‘স্টোকস লর্ডসে অনেক ম্যাচ খেলেছেন। লর্ডসের আনাচে কানাচে সব চেনা তার। সেই গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে অধিনায়ক মরগান যখন দলকে শান্ত করার চেষ্টা করছিলেন, তখন স্টোকস তার নিজের শান্তির পথ খুঁজে নেন। তার সারা শরীরে ঘাম ও ধুলোবালি ভরা ছিল। কারণ একটু আগেই তিনি ২ ঘণ্টা ২৭ মিনিট ব্যাটিং করে এসেছেন। এই মূহূর্তে স্টোকস কী করেছিলেন?’

‘স্টোকস ড্রেসিংরুমে ফিরেই গোসলের কক্ষে চলে যান। সেখানে তিনি সিগারেটে আগুন ধরান এবং একাকী কিছুক্ষণ কাটিয়ে আসেন। তারপর আবার মাঠে নামেন।’

প্রসঙ্গত, ফাইনালের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছিলেন স্টোকস। তার ব্যাট থেকে এসেছিল অপরাজিত ৮৪ রান। সুপার ওভারে আট রান করেছিলেন তিনি।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

বিশ্বকাপ ও মুস্তাফিজুর রহমান

বিশ্বকাপ সেরার পুরস্কার আশা করেছিলেন সাকিবও!

বিশ্বকাপের শেষ ম্যাচেই অবসর নিতে চেয়েছিলেন মাশরাফি

স্টোকসের দৃষ্টিতে কোহলির অভিযোগটা ছিল ‘উদ্ভট’

বিশ্বকাপ ব্যর্থতার দায় নিজেদের কাঁধেই নিচ্ছেন মাশরাফি-তামিম