সোহান-সৈকতের আগ্রাসী ব্যাটিংয়ে জয় পেল শেখ জামাল

ঢাকা প্রিমিয়ার টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট লিগে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব। ব্যাট হাতে সর্বোচ্চ ৪৪ রান করেন নুরুল হাসান।

জিয়ার অলরাউন্ড নৈপুণ্যে শেখ জামালের নাটকীয় জয়

টস জিতে রূপগঞ্জকে ব্যাটিং পাঠান শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের অধিনায়ক নুরুল হাসান হোসেন। ব্যাট করতে নেমে দারুণ কিছুর আশা দিলেও ২৮ রানে থামে পিনাকের ইনিংস। অবশ্য এদিন ব্যাট হাতে জ্বলে উঠেন সাব্বির রহমান। দীর্ঘদিন পর রানে ফিরেছেন এই ব্যাটসম্যান। তিনে ব্যাট করতে নেমে বেশ আগ্রাসী ভূমিকায় ব্যাটিং করতে দেখা যায় তাঁকে।

Also Read - সাকিবের নিষেধাজ্ঞা কমানোর জন্য মোহামেডানের আবেদন

সাব্বিরের ৩১ বলে ৪১ এবং নাঈম ইসলামের অপরাজিত ১৯ বলে ৩০ রানের সুবাধে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৩৭ রান সংগ্রহ করে রূপগঞ্জ। সাব্বির-নাঈম বাদেও আলামিন করেন ১৯ রান। শেখ জামালের হয়ে সর্বোচ্চ দুটি করে উইকেট লাভ করেন সালাহউদ্দিন শাকিল ও সৈকত আলী।

রূপগঞ্জের দেওয়া লক্ষ্যে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় শেখ জামাল। শহীদের বলে নাসির সাজঘরে ফিরলেও দলের হাল ধরেন সৈকত আলী ও ইমরুল কায়েস। একপাশ থেকে ইমরুল ধরে খেললেও অন্যপাশ থেকে দ্রুত গতিতে রান তোলেন সৈকত আলী। সৈকতের সঙ্গে ৫০ রানের জুটি গড়ার পর ১৬ বলে ১১ রান করে আউট হন ইমরুল কায়েস।

সৈকতের বিধ্বংসী ইনিংস থামে দলীয় ৬৬ রানে। ৩০ বলে ৪৩ রান করে হোসেন আলীর বলে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরেন তিনি। তবে তখন আবার দলের হাল ধরেন নুরুল হাসান ও ইলিয়াস সানি। দুই ব্যাটসম্যান যখন দলের জয়ের কাজটা সহজ করছিলেন তখনি সাভারে বৃষ্টির বাগড়া আসে।

পরবর্তীতে বৃষ্টি থামলে এই দুই ব্যাটসম্যান মিলে দলকে জয়ের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন। দলীয় ১২৭ রানে রান আউট হন ইলিয়াস সানী। তবে নুরুলের অপ্রতিরোধ্য ব্যাটিং দলকে জয়ের কাজটা সহজ করে দেয়।

তবে শেষদিকে আরও একবার বৃষ্টির বাগডায় ম্যাচ বন্ধ রাখতে হয়। শেখ জামালের যখন ১১ রান প্রয়োজন তখনই বেশ কিছুক্ষণ বন্ধ থাকে ম্যাচ। তবে শেষ পর্যন্ত বৃষ্টির আইনে সাত রানে জয় পায় শেখ জামাল। ৩০ বলে ৪৪ রান অপরাজিত থাকেন শেখ জামালের অধিনায়ক নুরুল হাসান।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

রূপগঞ্জ ১৩৭-৬ ( ওভার ২০)

সাব্বির ৪১, নাঈম ৩০*

শাকিল ২/২৩, সৈকত ২/২৪

শেখ জামাল ১২৭/৪ (ওভার ১৮)

সোহান ৪৪*, সৈকত ৪৩

হোসেন আলী ২/২৮, শহীদ ১/৩৮