Scores

সৌম্যর প্রশংসায় সাকিব

আগের ম্যাচেও অলিখিত সেমিফাইনালে উদানাকে ছয় মেরে পুরো প্রেমাদাসা স্টেডিয়াম স্তব্দ করে দিয়েছিলেন বাংলাদেশের মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। ফাইনালেও ঘটেছে একই ঘটনা। তবে এবার রেজাল্ট অন্য দলের পক্ষে। ২০তম ওভারের শেষ বলে সৌম্যকে ছক্কা হাঁকিয়ে পুরো প্রেমাদাসা সহ ভারতীয় দলের ডাগ-আউট, ড্রেসিং রুমে প্রাণ ফিরিয়ে এনেছিলেন দীনেশ কার্তিক।

ছবিঃ এএফপি

টস হেরে ব্যাটিং করতে নামা বাংলাদেশের শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি। লিটন, তামিম, মুশফিকের বিদায়ে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। তবে এইদিনে ভারতের একেক ফিল্ডার যেন রূপ নিয়েছিলেন জন্টি রোডসে। চাহালকে ‘ডাউন দ্য উইকেটে’ মারতে আসা তামিমের শটটি ভেবেই নিয়েছিল ছক্কা কিন্তু বাউন্ডারি লাইনে অসাধারণ এক ক্যাচ ধরে বসেন শারদুল ঠাকুর।

এছাড়াও পুরো ইনিংস জুড়েই ভারতীয় ফিল্ডাররা দেখিয়েছেন কীভাবে ফিল্ডিং করতে হয়। মাহমুদউল্লাহর রান আউট, সাকিবের রান আউট যেন সেটিরই বহিঃপ্রকাশ। তার উল্টোটা করে দেখিয়েছে বাংলাদেশের ফিল্ডাররা। একাধিক ফিল্ডিং, রান আউট মিসে যখন দিশেহারা তখন আশার আলো দেখিয়েছেন মুস্তাফিজ।

Also Read - বাংলাদেশের লড়াকু পারফরম্যান্সে প্রশংসার জোয়ার


ফাইনালে একাধিক ফিল্ডিং মিসের পরেও অধিনায়ক সাকিবের কণ্ঠে ফিল্ডারদের নিয়ে গর্বের সুর। তবে সেই সুযোগগুলো কাজে লাগাতে পারলে হয়ত ম্যাচে অনেক আগেই ফিরতে পারত বাংলাদেশ। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে ফিল্ডারদের নিয়ে কথা বলেন বাংলাদেশ অধিনায়ক সাকিব আল হাসান।

‘এটা হতেই পারে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে। আমি শুধু বলতে পারি, আমি পুরো দলের বোলিং ও ফিল্ডিং নিয়ে গর্বিত।’

ভারতের যখন ৩ ওভারে ৩৫ রান প্রয়োজন ছিল তখন অনেকে ভেবেই নিয়েছিল হাত থেকে ফসকে গিয়েছে ম্যাচটি। তবে সবাইকে অবাক করে ১৮তম ওভারে মাত্র ১ রান দেন মুস্তাফিজ সাথে তুলে নেন ক্রিজে সেট হওয়া মানিশ পান্ডেকে। তবে পরের ওভারেই যেন স্বপ্নভঙ্গ করে দেয় বাংলাদেশের ট্রফি জয়ের।

আগের তিন ওভারে ১৩ রান দিয়ে দুই উইকেট রুবেল যে ফিনিশিংটা এভাবে করবে কল্পনা করেনি কেউই। প্রথম তিন বলে কার্তিক তুলে নেয় ১৬ রান। ওভারের শেষ বলে চার মেরে ৬ বলে ২২ রান তুলে ম্যাচে ফেরায় ভারতকে। অবশ্য সাকিব বলছেন পুরো ম্যাচ জুড়েই ভালো বোলিং করেছে বাংলাদেশ ব্যতিক্রম শুধু রুবেল ও মিরাজের ওভারটি।

সৌম্য এবং মুস্তাফিজের শেষ সময়ের স্পেলই আমাদের ম্যাচে ফিরিয়েছে। রুবেল প্রথম ৩ ওভারে খুব ভালো বল করেছে। সবাই ভালো করেছে। কাউকে দোষ আমি দিতে পারবো না। হয়ত দুটি ওভার খারাপ হয়েছে পুরো ম্যাচে, মিরাজের একটি, আর রুবেলের ওই ওভার।

রুবেলের করা বাজে ওভারের পর সৌম্য যেভাবে প্রথম পাঁচটি বল করেছিল সেটিতে মন জয় করেছে অনেকেরই। বাদ যাননি অধিনায়ক সাকিবও। ‘ও (সৌম্য) পুরো ম্যাচেই ভালো বল করেছে। সেই সময় আমার দিক থেকে কোন নির্দেশনা ছিল না। শুধু বলেছিলাম একটু সময় নিতে কারণ তাড়াহুড়া করলে লক্ষ্য ঠিক রাখা যায় না। আজকের দিনে ওর যে ৩ ওভার, অনেক দিনে অনেকের চার ওভারের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল।’

আরও পড়ুনঃ রুবেলে আস্থা রাখছেন সাকিব

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ক্রিকেটারদের মাঠে ফেরাতে মাশরাফিকে দায়িত্ব দিলেন প্রধানমন্ত্রী

একটি নয়, চারটি নতুন টুর্নামেন্ট করতেও রাজি বিসিবি!

“খেলা পারে না, বাজে খেলে— এদের টাকা দিব না”

বাংলাদেশের টেস্ট স্ট্যাটাস রক্ষা করেছেন পাপন!

কোয়াবের সদস্যপদ নিয়েও প্রশ্ন তুলেছে ফিকা