সৌম্য, সাদমানের পর ফিরলেন তুষারও

0
1429

সফরকারী শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের বিপক্ষে প্রথম চারদিনের ম্যাচের প্রথম ইনিংসে সুবিধা করতে পারেননি দীর্ঘ অপেক্ষার পর বাংলাদেশের জার্সিতে খেলার সুযোগ পাওয়া তুষার ইমরান। সৌম্য সরকার (১৭), সাদমান ইসলামের (১) দ্রুত বিদায়ের পর প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের ইনিংসের লাগাম ধরে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করলেও তৃতীয় দিনের শুরুতেই সাজঘরে ফিরে গেছেন তিনি।

সাব্বির-মোসাদ্দেকে-লড়ছে-বাংলাদেশ-এ-দল

Advertisment

আগের দিনের ১২ রান নিয়ে নতুন দিনের গোড়াপত্তন করে ব্যক্তিগত সংগ্রহে আরও ১৩ রান যোগ করে লাকসান সান্দাকানের ঘূর্ণি জাদুতে লেগ-বিফোরের ফাঁদে পড়ে সাজঘরের পথ ধরেন তিনি। তার বিদায়ের ফলে দলীয় ৭৪ রানে তৃতীয় উইকেটের পতন ঘটেছে স্বাগতিক বাংলাদেশের।

এ মুহূর্তে অধিনায়ক মোসাদ্দেক হোসেনের সাথে ক্রিজে আছেন জাতীয় দলের আরেক ক্রিকেটার সাব্বির রহমান। শেষ খবর পাওয়া, প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৩ উইকেটে ৮১ রান। মোসাদ্দেক ২৮ ও সাব্বির ১ রান নিয়ে ক্রিজে আছেন। প্রথম ইনিংসে লঙ্কানদের চেয়ে এখনো ৩৬৮ রানে পিছিয়ে আছে টাইগাররা।

এর আগে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে টস জিতে আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় সফরকারীরা। ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় স্কোরবোর্ডে ৮ উইকেটে ৪৪৯ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে সফরকারীরা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১৬৮ রান এসেছে লাহিরু থিরিমান্নের ব্যাট থেকে। তাছাড়া আসালঙ্কা ৯০ ও আসহান খেলেন ৭০ রানের ইনিংস।

প্রথম দিনের ৪ উইকেটে করা ১৭১ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলার গোড়াপত্তন করেন থিরিমান্নে ও আসালঙ্কা। স্বাগতিক বোলারদের উপর দিনের শুরু থেকে চড়াও হয়ে ব্যাট করতে থাকেন এ দুজন। দাপুটে ব্যাট চালিয়ে দিনের প্রথম সেশনে কোনো উইকেট না হারিয়ে স্কোরবোর্ডে আরও ১১৭ রান যোগ করে মধ্যাহ্ন ভোজনের বিরতিতে যায় লঙ্কানরা।

দারুণ ছন্দে ব্যাট করে শতক তুলে নেন থিরিমান্নে। তাকে যোগ্য সঙ্গ দিয়ে শতকের পথে আসালঙ্কা হাঁটতে থাকলেও তার পথে বাধা হন সৌম্য সরকার। দুর্দান্ত এক থ্রুতে ব্যক্তিগত ৯০ রানের সময় রান-আউটের ফাঁদে ফেললে ১০ রানের আক্ষেপ নিয়ে দলীয় ৩০২ রানের সময় মাঠ ছাড়েন তিনি। আর এতে বিচ্ছিন্ন হয় দু’জনার মধ্যকার ১৫৬ রানের পঞ্চম উইকেটের জুটির।

বাংলাদেশ-এ-দলের-বিপক্ষে-শ্রীলঙ্কার-ব্যাটিংয়ের-মুহূর্ত
বাংলাদেশ ‘এ’দলের বিপক্ষে শ্রীলঙ্কার ব্যাটিংয়ের মুহূর্ত।

আসালঙ্কাকে হারালেও থমকে যাননি থিরিমান্নে। শাম্মু আসহানকে সাথে নিয়ে দলকে রানের এভারেস্টে চড়ানোর পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে থাকেন তিনি। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে দুজনে মিলে গড়েন ১১৯ রানের জুটি। যার মধ্যে ৭০ রান আসে আসহানের ব্যাট থেকে। ক্রিজে থিতু হয়ে অর্ধশতক পেরিয়ে শতকের পথে হাঁটার পথে আবু হায়দারের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে মাঠ ছাড়েন তিনি। আর এতে ৪২১ রানে ষষ্ঠ উইকেটের পতন ঘটে সফরকারীদের।

এরপর থিরিমান্নের ব্যাটে লড়ে শ্রীলঙ্কা। ২০ রানের দ্রুতগতির ইনিংস খেলে নিসালা পেসার খালেদের চতুর্থ শিকারে পরিণত হলেও থিরিমান্নের ব্যাটের দিকে তাকিয়ে ইনিংস ঘোষণা থেকে বিরত থাকে লঙ্কান অধিনায়ক। তবে ১৬৮ রানের ইনিংস খেলে নাজমুল হোসেন অপুর বলে বদলি ফিল্ডার আফিফের তালুবন্দী হলে ৪৪৯ রানেই ইনিংস ঘোষণার সিদ্ধান্ত জানান লঙ্কান কাপ্তান।

বাংলাদেশের বোলারদের মধ্যে ২৭ ওভার বল করে ৯২ রান খরচায় খালেদ সর্বোচ্চ ৪টি ও ১৯ ওভার বল করে আবু হায়দার ৬৯ রানের বিনিময়ে ২টি উইকেট লাভ করেন। তাছাড়া ১৯.১ ওভার বল করে ৭৩ রান খরচায় থিরিমান্নের উইকেটটি নেন অপু।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ড-
শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলঃ ৪৪৯/৮ ডিক্লেয়ার
থিরিমান্নে ১৬৮, আসালঙ্কা ৯০; খালেদ ৯২/৪, হায়দার ৬৯/২

 


আরও পড়ুনঃ রোহিত-ধাওয়ানের ব্যাটিংয়ে আয়ারল্যান্ডের পরাজয়