Scores

“স্বপ্নে দেখেছি, বাইকে করে ওরা গুলি করছে’

ক্রাইস্টচার্চের জঙ্গি হামলায় বাংলাদেশ ক্রিকেট দল কতটা ভেঙে পড়েছে সেটি স্পষ্ট ক্রিকেটারদের অভিব্যক্তিতে। সিরিজের শেষ টেস্ট বাতিল হওয়ায় দ্রুত দেশে ফিরলেও এখনও যেন সেই দুঃস্মৃতি ভুলতে পারছেন না ক্রিকেটাররা। এমনকি স্বপনেও এখনও সেই হামলাই চোখে ভাসছে ক্রিকেটারদের।

“স্বপ্নে দেখেছি, বাইকে করে ওরা গুলি করছে’

এমনটিই জানিয়েছেন জাতীয় দলের বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল। জনপ্রিয় ক্রিকেট বিষয়ক সংবাদমাধ্যম ইএসপিএনক্রিকইনফোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তামিম ইকবাল তুলে ধরেছেন সেই ভয়াবহ মুহূর্তের কথা।

Also Read - বাতিল হওয়া টেস্ট ভবিষ্যতে আয়োজনের পরিকল্পনা


তামিম জানান, ঐ হামলার পর হোটেলে ফিরেও ভীতসন্ত্রস্ত ছিলেন ক্রিকেটাররা। ভয়ে তারা কাঁদতে শুরু করেন। তামিম বলেন, আমরা হোটেলে ফিরে সোজা রিয়াদ ভাইয়ের কামরায় চলে যাই। বন্দুকধারীর ভিডিও দেখি। খেলোয়াড়েরা কাঁদতে শুরু করে। ড্রেসিংরুমে আমরা সবাই কেঁদেছি। একটা কথা নিশ্চিত করে বলতে পারি, এই ঘটনা ভুলতে অনেক সময় লাগবে। পরিবারের সাহায্য লাগবে।’

মানসিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে তো সময় লাগবেই। ক্রিকেটারদের এখনই তাড়া করে বেড়াচ্ছে সেই দুঃস্মৃতি। তামিম বলেন, চোখ বুজলেই দৃশ্যগুলো ভেসে ওঠে। হামলার দিন রাতে বেশির ভাগ ক্রিকেটার একসঙ্গে ঘুমিয়েছে। আমি ঘুমিয়েছি মিরাজ ও সোহেল ভাইয়ের সঙ্গে। স্বপ্নে দেখেছি, বাইকে করে ওরা গুলি করছে।’

বিমানবন্দরে আসার পথে আমরা একে অপরকে বলছিলাম, একটু এদিক-সেদিক হলেই আমরা নয়, লাশগুলো ঘরে ফিরত। মাত্র ত্রিশ সেকেন্ডের ব্যাপার।’– বলেন তিনি।

হ্যাগলি ওভালের আল নূর মসজিদের দিকেই জুমার নামাজ আদায় করতে যাচ্ছিলেন ক্রিকেটাররা, যেখানে ঠিক ঐ মুহূর্তেই ব্রেন্টন ট্যারেন্ট নামের এক জঙ্গি সশস্ত্র হামলা চালায়। কাকতালীয়ভাবে দেরি করে মসজিদের পথে রওয়ানা হওয়ায় সেদিন প্রাণে বেঁচে যান টাইগাররা।

তামিম বলেন, মুশফিক ও রিয়াদ ভাই সাধারণত খুতবায় উপস্থিত থাকতে চান। এ কারণে আমরা একটু আগেভাগে জুমার নামাজে যেতে চেয়েছি। বাস ছাড়ার কথা ছিল বেলা দেড়টায়। কিন্তু রিয়াদ ভাই সংবাদ সম্মেলনে যান, সেখানে একটু দেরি হয়। সংবাদ সম্মেলন থেকে তিনি ড্রেসিংরুমে ফিরে আসেন।’

ড্রেসিংরুমে ফিরলেও দেরি করেই মসজিদে যান তারা। কারণ ব্যাখ্যায় তামিম বলেন, ড্রেসিংরুমে আমরা ফুটবল খেলেছি। তাইজুল হারতে চায় না। কিন্তু সবাই ওকে হারাতে চাচ্ছিল। তাইজুল আর মুশফিক খেলছিল, এতে কয়েক মিনিট দেরি হয়। এই ছোটখাটো বিষয়গুলোই শেষ পর্যন্ত আমাদের বাঁচিয়ে দিয়েছে।’

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ক্রাইস্টচার্চের সেই মসজিদেই বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের নামাজ আদায়

“যখন স্বাভাবিক জীবনে ফেরার চেষ্টা করছি, তখনই অগ্নিকান্ড”

নিউজিল্যান্ডকে নিরাপদ ভাববে বাংলাদেশ, বিশ্বাস দেশটির ক্রীড়ামন্ত্রীর

“দল কিসের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, ভাষায় প্রকাশ করা কঠিন”

সফরের আগে নিরাপত্তা পর্যবেক্ষণে পর্যবেক্ষক দল?