Scores

স্বাগতিকদের বিপক্ষে লড়াইয়ের অপেক্ষায় বাংলাদেশ

ইংল্যান্ডে চলছে ক্রিকেট বিশ্বকাপের ১২তম আসর। এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের ট্রফিটা অধরা প্রথম বিশ্বকাপের আয়োজক ইংল্যান্ডের। এবারের বিশ্বকাপে শিরোপার দাবিদারদের মধ্যে অন্যতম ইংলিশরা। সেই মিশনের তৃতীয় ম্যাচে কার্ডিফে রোববার মরগান-রুটের ইংল্যান্ড মুখোমুখি হবে এশিয়ার পরাশক্তি বাংলাদেশের। দুই দলেরই এটি তৃতীয় ম্যাচ।

বাংলাদেশ-নিউজিল্যান্ড রোমাঞ্চকর ম্যাচে টুইটার প্রতিক্রিয়া

বাংলাদেশের প্রত্যাশার পারদ এ বিশ্বকাপে সবচেয়ে উঁচুতে। এ বিশ্বকাপেই বাংলাদেশের দল সবচেয়ে অভিজ্ঞ। পাশাপাশি সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সটাও আশা জাগানিয়া। এ বিশ্বকাপের শুরুটাও বাংলাদেশ করেছে দুর্দান্ত। প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়েছে ২১ রানে। দ্বিতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে ২ উইকেটে পরাজিত হলেও ২৪৪ রানের স্বল্প পুঁজি নিয়ে বাংলাদেশ লড়ে গিয়েছে দারুণভাবে।

Also Read - ধোনিকে তলব করায় টুইটারে ভারতীয়দের নিন্দার ঝড়


ইংল্যান্ডেরও একই অবস্থা। বাংলাদেশের মতো এটিও তাদের তৃতীয় ম্যাচ। প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়েছিল তারা। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষে ১৪ রানে হেরে যায় ইংল্যান্ড।

দ্বিতীয় ম্যাচে ভাগ্যটা যেন সহায় ছিল না বাংলাদেশের। এছাড়া উইকেটরক্ষক মুশফিকুর রহিমের কিপিংয়ে ভুল আর ব্যাটিংয়ে রান আউটের শিকার হওয়া যেন বদলে দিয়েছিল ম্যাচের মোড়। তবে অভিজ্ঞ এ ক্রিকেটারের সামর্থ্য সবারই জানা। বাংলাদেশ ভুগেছে গতির ঝড় তুলতে পারা এমন একজন পেসারের অভাবেও। রুবেল হোসেনের বলের গতি অন্যদের চাইতে বেশি হলেও প্রথম দুই ম্যাচে একাদশে ছিলেন না তিনি। কার্ডিফে গত দুই ম্যাচে পেসাররা ভালো করায় এ ম্যাচে ফেরার সম্ভাবনা রয়েছে তার। কার্ডিফের গত দুই ম্যাচে পেসাররা ভালো করায়  লোয়ার অর্ডারে ব্যাট হাতে অবদান রাখার পাশাপাশি বল হাতে জোড়া উইকেট শিকার করেছেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। তিনি দলে থাকলে কমতে পারে একজন ব্যাটসম্যান।
অন্যদিকে ইংল্যান্ডের লেগ স্পিনার আদিল রশিদ ছন্দে নেই। গত ম্যাচে দিয়েছিলেন ৫ ওভারে ৪৩ রান। নিতে পারেননি কোনো উইকেট। এছাড়া কাঁধের চোটও রয়েছে। তার বদলে একাদশে ঢুকতে পারেন লিয়াম প্লাঙ্কেট।

কার্ডিফের সোফিয়া গার্ডেনে বাংলাদেশের রয়েছে কিছু সুখস্মৃতি।  এ মাঠে ২০০৫ সালে অস্ট্রেলিয়াকে হারানোর পর ২০১৭ সালের আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে নিউজিল্যান্ডকে হারায় বাংলাদেশ। তবে স্বাগতিক দল ইংল্যান্ডকে হারানোটা কঠিনই হবে। ব্যাটিংয়ে জেসন  রয়, জো রুট আর ইয়ন মরগানদের মোকাবেলা করবে বাংলাদেশের বোলাররা।  বেশ লম্বা ব্যাটিং অর্ডার তাদের। তামিম ইকবালদের মুখোমুখি হতে হবে জোফরা আর্চরের গতি আর সুইংয়ের। অলরাউন্ডার বেন স্টোকস একাই পারেন ম্যাচের রং বদলে দিতে। তবে ২০১১ ও ২০১৫ বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও রয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে। তাই কার্ডিফে দেখা যাবে এক আত্মবিশ্বাসী বাংলাদেশকে।

সম্ভাব্য একাদশ

বাংলাদেশ : তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত, মোহাম্মদ মিঠুন/রুবেল হোসেন, মেহেদি হাসান মিরাজ,  মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মাশরাফি বিন মুর্তাজা (অধিনায়ক) এবং মুস্তাফিজুর রহমান।

ইংল্যান্ড : জেসন রয়, জনি বেয়ারস্টো, জো রুট, জস বাটলার, ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), বেন স্টোকস, মঈন আলি, ক্রিস ওকস , মার্ক উড, জোফরা আর্চার এবং লিয়াম প্লাঙ্কেট।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

অনিশ্চয়তায় রিয়াদের বাকি বিশ্বকাপ

মঙ্গলবার জানা যাবে রিয়াদের চোটের সর্বশেষ

ভারতের বিপক্ষে সেরাটা ঢেলে দেওয়ার অপেক্ষায় বাংলাদেশ

এভাবেও ফেরা যায়!

উইকেট শিকারীদের প্রথম পাঁচে সাইফউদ্দিন