স্যামুয়েলস-শেহজাদের ব্যাটিং ছিলো 'টেস্টের মতো'

গত আসরের চ্যাম্পিয়ন দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স এ আসরে একদম বিবর্ণ। টানা পাঁচ ম্যাচে পরাজয়ের হতাশা নিয়ে মাঠ ছেড়েছে মাশরাফির দল। পঞ্চম ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের পরাজয়ের কারণ হিসেবে মাশরাফি দেখছেন ব্যাটিংকে। বিশেষ করে মারলন স্যামুয়েলস ও  আহমেদ শেহজাদের ব্যাটিং টেস্টের মতো ছিলো বলে মনে করেন তিনি।

mashrafe-press conference

সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি বিন মুর্তাজা বলেন, “লো স্কোরিং ম্যাচ তো আমরা বানিয়ে ফেলেছি। আমরা টেস্ট ম্যাচের মতো ব্যাটিং করেছি। লো স্কোরিং হবেই। দিনের বেলায় দেখে মনে হচ্ছিলো যে রাতের বেলায় দুইশ’ হবে। এরপরও ডিফেন্ড করা কঠিন। আমি বলতে পারিনা যে আমাদের বোলিং ভালো হয়েছে বলে খেলা ১৭-১৮ ওভার পর্যন্ত গিয়েছে। আসলে এটা না। ওদের তো কোনো চাপ ছিলো না যে শটস খেলতে। ওরা আরামসে ম্যাচটা বের করে নিয়ে গিয়েছে।”

Also Read - বিপিএলের বিরল এক রেকর্ড গড়লেন শেহজাদ


টস জিতলে বোলিং করতেন বলে জানিয়েছেন তিনি। তবে তারপরেও ১৬০ রান তাড়া করতে হতো বলে মনে করেন তিনি।

ব্যাটিংয়ের ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে বলেন, “টেস্ট ব্যাটিং বলছি এই কারণে যে যখন আমাদের আট উইকেট হাতে তখন আরেকটু অ্যাফোর্ট দেওয়া উচিত ছিলো। ১০ ওভারে আমাদের রান ৪৫-৪৬। তখন আমাদের অলআউট খেলা উচিত ছিলো। আমাদের যদি মাথায় থাকে রাতে  বল ধরা কঠিন। ১৫০ রান না হলে সুযোগ একেবারেই নেই। শেষ দশ ওভারে ১০০ রানের টার্গেট করতাম, তাহলে ১৫০ রানের একটা সুযোগ ছিলো। যেহেতু প্রথমে হয়নি তাই মিডলে আরেকটু অ্যাফোর্ট দেওয়া উচিত ছিলো।”

স্যামুয়েলসের ক্যাচ ফসকানো আর ফিল্ডিং নিয়ে বলেন, “স্বাভাবিক আপনি যদি ১২০-১২২ করেন,তখন ফিল্ডার হিসেবে খুব কঠিন। বোলার হিসেবেও খুব কঠিন। ক্যাচ ড্রপ আসলে, ওই সময় ক্যাচ ধরলেও যে আমরা ম্যাচে ফিরতে পারতাম সেটাও বলা কঠিন। ব্যাটিংয়ের পরেই ছেড়ে দিয়েছি তা বলবো না। আমাদের আর্লি কয়েকটা উইকেট দরকার ছিলো। ”

স্যামুয়েলস ও শেহজাদের ব্যাটিং নিয়ে মাশরাফি বলেন, “কথাতো আমাদের বলতেই হবে। প্রথমে আমরা বলিনি। বোলিংয়ের সময় দেখার বিষয় ছিলো আসলে কি ছিল উইকেটে। জিজ্ঞাসা করার অবশ্যই ব্যাপার আছে। টিম মিটিং হবে। যেটা আমি আগেও বললাম, ১০ ওভারে যখন ৪৫ রানে দুই উইকেট। হাতে আট উইকেট। তখন তো শটস খেলার জন্য অ্যাফোর্ট দিতেই হবে।”

ব্যাটিং করার সময় দলে আত্মবিশ্বাসের অভাব লক্ষ্য করেছেন অধিনায়ক। এটি সরাতে হবে বলে মনে করেন তিনি।

প্রথম ছয় ওভার শেষে কুমিল্লার রান ছিলো ২১ রানে ২ উইকেট। তারপর শেহজাদ ও স্যামুয়েলস ৬২ বলে ৬৪ রানের জুটি গড়েন। বেশ রক্ষণাত্মক ভঙ্গীতে খেলেন স্যামুয়েলস। প্রথম ৩৪ বলে ২৭ রান করেছিলেন তিনি। শেহজাদ ৪৫ বলে ৫২ ও স্যামুয়েলস ৪৬ বলে ৫২ রান করে আউট হন। কুমিল্লার ছুঁড়ে দেওয়া ১২৩ রানের লক্ষ্য রংপুর রাইডার্স টপকে যায় তিন ওভার হাতে রেখেই। শনিবার রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে মাঠে নামবে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স।

-আজমল তানজীম সাকির, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটিম ডট কম 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন