Scores

হাথুরুসিংহেকে ‘ক্রিকেট গিয়ার্স’ আনতে বলেছিলেন ইমরুল!

দেশের ক্রিকেট অঙ্গন গত কয়েকদিন ধরে সরগরম চন্ডিকা হাথুরুসিংহের পদত্যাগ নিয়ে। শ্রীলঙ্কান এই কোচ ২০১৯ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের প্রধান কোচের দায়িত্ব পালনের ব্যাপারে চুক্তিবদ্ধ হলেও যাত্রার মাঝপথেই শেষ করেছেন সব সম্পর্ক। এ নিয়ে সুযোগ পেলেও সংবাদমাধ্যমের কর্মীরা প্রশ্ন ছুঁড়ে দিচ্ছেন ক্রিকেটারদের প্রতি। যা থেকে বাদ গেলেন না বাংলাদেশ জাতীয় দল ও বিপিএলের দল কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের বাঁহাতি ব্যাটসম্যান ইমরুল কায়েসও।

হাথুরুসিংহেকে 'ক্রিকেট গিয়ার্স' আনতে বলেছিলেন ইমরুল!

মঙ্গলবার দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে ৩১ বলে ৪৫ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস খেলে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের জয়ের নায়ক বনে গিয়েছেন ইমরুল। হয়েছেন ম্যাচ সেরাও। ম্যাচ শেষে তাই সংবাদ সম্মেলনে দেখা গেলো তাকে। এ সময় ইমরুল জানান, হাথুরুসিংহে ফিরে আসুন- এটা তার চাওয়া মনেপ্রাণে!

Also Read - রংপুর শিবিরে যোগ দিলেন কুশল পেরেরা


তবে ঠিক কী কারণে এমন চাওয়া, সেটি জানালেন রসিক ইমরুল এভাবে- ‘ভাই আমি চাই তিনি ফিরে আসুন। কারণ দক্ষিণ আফ্রিকা সফর শেষে আমি তাকে একটি ক্রিকেট গিয়ার্স আনতে দিয়েছিলাম।

৩০ বছর বয়সী ক্রিকেটার আরও বলেন, বলা ছিল, তিনি এরপর যখন দেশে ফিরে আসবেন, তখন সেটা নিয়ে আসবেন। এখন তিনি আর না আসলে আমার সে প্রয়োজনীয় ক্রিকেট সামগ্রীটা আর পাবো না।’

হাথুরুসিংহে অবশ্য ২-১ দিনের মধ্যেই পা রাখবেন ঢাকায়। সেটি বিসিবির সাথে তার সম্পর্ক চুকিয়ে নিতেই। ইমরুলের ক্রিকেট গিয়ার্স তাই হাতে পাওয়ার সম্ভাবনা ক্ষীণই বলা চলে!

এদিকে অর্ধ-শতকের খুব কাছে গিয়েও উইকেট বিলিয়ে আসা ইমরুল জানিয়েছেন তার এমন শট খেলে আউট হওয়ার কারণ, আসলে আমি নিজের কথা ভাবিনি। সিঙ্গেলস নিয়ে পঞ্চাশ করতে পারতাম। তাতে রানের চাপ বেড়ে যেতে পারতো। সেটা হয়ত দলের জন্য ভালো হতো না।

ইমরুল জানান, যেহেতু হ্যামস্ট্রিং ইনজুরির জন্য আমি খোঁড়াচ্ছিলাম, কয়েকটি সিঙ্গেলসও মিস করেছি, তাই ভেবেছিলাম বিগ হিট নিয়ে সেই ঘাটতি কাটাতে।’

আরও পড়ুনঃ শীঘ্রই ঢাকা আসছেন হাথুরুসিংহে

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

অল্পের জন্য তিন অঙ্কের দেখা পেলেন না ইমরুল

ডাবল সেঞ্চুরি করেও নিশ্চিত নন কায়েস!

১০০ বলের ক্রিকেটের ড্রাফটে নাম লেখালেন আরও পাঁচ বাংলাদেশি

‘ওসব’ নিয়ে এখন আর চিন্তা করেন না ইমরুল!

টায়ার-১ এর প্রথম রাউন্ডে ব্যাট হাতে উজ্জ্বল ইমরুল-তাইবুর