‘হার না মানা মানসিকতা’ দিয়ে সুযোগ, এরপর ইতিহাস
Scores

‘হার না মানা মানসিকতা’ দিয়ে সুযোগ, এরপর ইতিহাস

২০০৮ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ওয়ানডে দিয়ে অভিষেক। সেই সুযোগটা করে দিয়েছিলেন তৎকালীন ভারত জাতীয় ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক দিলীপ বেঙ্গসরকার। এরপর আর পিছে ফিরে তাকাতে হয়নি দেশটির বর্তমান অধিনায়ক ও তারকা ক্রিকেটার বিরাট কোহলিকে। দীর্ঘ ১ যুগ পর বেঙ্গসরকার জানালেন, হার না মানা মানসিকতার জন্যই দলে সুযোগ পেয়েছিলেন কোহলি, বাকিটা তো ইতিহাস।

বয়সভিত্তিক দলে প্রতিভার স্বাক্ষর রেখে ভারতের ইমার্জিং দলে ডাক পান কোহলি। সেই দলের হয়ে অস্ট্রেলিয়া সফর করেন বর্তমানে বিশ্ব ক্রিকেটের এই নাম্বার ওয়ান ব্যাটসম্যান। সেখানে বিরাটের ব্যাটিং দেখে রীতিমত মুগ্ধ বনে যান বেঙ্গসরকার। দলের হয়ে ওপেন করতে নেমে অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে তাদের পেস অ্যাটাক সামলেছেন বিন্দুমাত্র চাপ না নিয়ে।

Also Read - মাশরাফির ফাউন্ডেশনে ১ লাখ টাকার ঔষধ


ওখানে দেখেই কোহলিকে ভালো লেগে যায় প্রধান নির্বাচকের। খুলে যায় জাতীয় দলের দরজা। নিজের ৬৪তম জন্মদিনে এক সাক্ষাৎকারে সেই স্মৃতি তুলে ধরে বেঙ্গসরকার বলেন, ‘বিরাটকে দেখার পর আমার বেশ ভালো লেগেছিল। মনে হয়েছিল, ওকে যদি একটু গাইড করা যায় তাহলেও অনেক দূর যাবে। বিরাটের যেটা আমার সব থেকে ভালো লাগতো সেটা হচ্ছে ওর হার না মানা মানসিকতা।’

‘অস্ট্রেলিয়ায় তখন ইমার্জিং ক্রিকেট চলছিল। প্রধান নির্বাচক হিসেবে গিয়েছিলাম। বিরাট যখন ওপেন করতে নামছিল, তখন ওর শারীরিক ভাষা দেখে আমার মনে হয় বিন্দুমাত্র চাপে নেই ছেলেটা। অন্য ছেলেদের থেকে একটু আলাদাই লেগেছিল। ব্যাটিংয়েও ছিল তুখোড়। এমন কিছু শট ওকে খেলতে দেখেছিলাম, যাতে আমার মন ভরে গিয়েছিল। বাকিটা তো ইতিহাস।’– সাথে আরও জানান তিনি।

কখনও কি ভেবেছিলেন কোহলি ভারতীয় দলের হয়ে দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে খেলবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে বেঙ্গসরকার জানান, ‘এমনটা দাবি করবো না। কেউ কি বলতে পারে যে একজন ক্রিকেটার এত বছর দেশকে সার্ভিস দেবে। বিরাটকে নিয়ে আমার সেরকম কোনও চিন্তাভাবনা ছিল না। তবে অসীম প্রতিভাধর ছিল ছেলেটা। আমি জানতাম, ও অনেক দূর যাবে।’

খেলোয়াড়ি জীবনের পাশাপাশি পেশাগত জীবনেও বেশ সফলই বলতে হবে বেঙ্গসরকারকে। জহুরির চোখ দিয়ে যেমন বিরাটের মত ক্রিকেটারকে সুযোগ করে দিয়েছেন, তেমনি ভারতের সফল অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে অধিনায়কত্বের আসনে বসিয়েছিলেন তিনিই।

বেঙ্গসরকার বলেন, ‘প্রতিভার অন্বেষণ করা আমার নেশা। অনেকেই এই কাজটা করে থাকেন। কিন্তু প্রতিভা খুঁজে বের করার পর তাকে ঠিক ভাবে পরিচালিত করাই হল আসল কাজ। দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমি বরাবর প্রতিভাকেই প্রাধান্য দিয়েছি। কখনও কোনও ভালো ক্রিকেটার চোখে পড়লে তাকে আমি সুযোগ দেয়ার চেষ্টা করতাম।’

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

মাদক কারবারে আটক লঙ্কান পেসার

বিসিসিআই-আইসিসি দ্বন্দ্ব, কড়া ভাষায় ই-মেইল চালাচালি

‘টয়লেট বিরতি’ নিষিদ্ধ করল আইসিসি

কোহলিকে উদ্ধারে বিশেষ দল পাঠানোর প্রস্তাব নাগপুর পুলিশের!

করোনা টেস্টে ‘পজিটিভ’ সাবেক পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান