Scores

হেরে ছিটকে গেল ঢাকা

dhaka-barisal
আজমল তানজীম সাকির

বিপিএলের এলিমেনেটর পর্বের ম্যাচে বরিশাল বুলসের কাছে  ১৮ রানে হেরে বিপিএল থেকে ছিটকে গেল ঢাকা ডায়নামাইটস। আর জয় পেয়ে কোয়ালিফায়ারে রংপুর রাইডার্সের মুখোমুখি হবে বরিশাল বুলস।

মিরপুরে টস জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয় ঢাকা ডায়নামাইটস। প্রথম ওভারেই সিদ্ধান্তটা সঠিক প্রমাণ করেন নাসির হোসেন। প্রথম ওভারে রনি তালুকদারকে ফেরান তিনি। তারপর ঝড় শুরু করেন ক্রিস গেইল ও সাব্বির রহমান। সাব্বির প্রথম দিকে রক্ষণাত্মক ভঙ্গিমায় খেলতে থাকলেও হঠাৎ মারকুটে ব্যাটিং করতে থাকেন সাব্বির। ক্রিস গেইল ও সাব্বির রহমান ৭০ রানের জুটি গড়ে তুলেন। তাদের জুটি ভাঙেন মুস্তাফিজুর রহমান। এ বাঁহাতি পেসারের অসাধারণ কাটারে বোল্ড হন ক্রিস গেইল। ৪ টি চার ও ২ টি ছক্কা হাঁকিয়ে ৩০ রান করেন গেইল।

Also Read - ১৩৫ রানে বরিশালকে আটকে দিল ঢাকা


৩ ছক্কা ও ৩ চারে দলীয় সর্বোচ্চ ৪১ রান করেন সাব্বির রহমান। নাবিল সামাদের বলে মোসাদ্দেককে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন তিনি। শেষদিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের ৩৭ রানের ইনিংসে ভর করে ১৩৫ রান করে বরিশাল বুলস।

১৩৬ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে শুরু থেকেই ধুঁকতে থাকে ঢাকা ডায়নামাইটস।  সবাইকে চমকে দিয়ে ওপেনিংয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়ে যায় ঢাকা। আর এ ম্যাচে তাদের বাজি ছিল আবুল হাসান ও ফরহাদ রেজা। একজোন ব্যাট করেন লেট মিডলে, আরেক জন লোয়ার অর্ডারে।

নতুন এ ওপেনিং জুটি বড়ও হয়নি তেমন। দলীয় ১৩ রানের মাথায় কুপারের স্লোয়ারে আউট হন আবুল হাসান রাজু।  নিজের দ্বিতীয় ওভারেই কুপার আউট করেন মোহাম্মদ হাফিজকে। ফরহাদ রেজা ক্রিজে থিতু হলেও ব্যার্থ হন স্কোর বড় করতে।  ২০ রান করে আল-আমিন হোসেনের বলে আউট হন তিনি। সাঙ্গাকারাও ফিরে যান আল-আমিন হোসেনের বলে। ব্যাটের কানায় স্পর্শ করা বল নিজেই ধরেন আল-আমিন।  ১৬ রান করে নাসির হোসেন বরিশালের আল-আমিনের তৃতীয় শিকারে পরিণত হলে চাপে পড়ে ঢাকা। টার্গেট ১৩৬ হলেও শেষ ৪ ওভারে ঢাকার প্রয়োজন ছিল ৫৪ রান।

জয়ের জন্য ডায়নামাইটসদের দরকার ছিল দানবীয় ব্যাটিং। আর হঠাৎ ঢাকার ত্রাতা ভূমিকায় অবতীর্ণ হন ওয়ালার। ২ ছক্কা ও ১ চার মেরে দলকে খেলায় ফেরান জিম্বাবুয়ের এ ব্যাটসম্যান। পরের ওভারে তাইজুলকে রিভার্স সুইপ খেলে সীমানার বাইরে আছড়ে ফেললে সৃষ্টি হয় উত্তেজনার। স্লগ ওভারে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের স্পিনারকে বোলিং দেয়ার বিষয়টাও উঠে আসে। তবে বাকি বলগুলো দারুণ ভাবে করে অধিনায়কের আস্থার প্রতিদান দেন তাইজুল। এমনকি শেষ বলে তাকে ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারি রোপের একটু সামনে ধরা পড়েন ওয়ালার। পরের বলে মোসাদ্দেককেও সাজঘরে ফেরান তাইজুল ইসলাম।

ওয়ালার আর মোসাদ্দেক আউট হলে খেলা অনেকটা ঢাকার হাত থেকে ফসকে যায়। লোয়ার অর্ডারে ইয়াসির শাহ কোনো রান না করেই ফিরে যান। অবশেষে ২০ ওভারে ৮ উইকেটের বিনিময়ে ১১৭ রান করেই সন্তুষ্ট থাকতে হয় ঢাকাকে।

সংক্ষিপ্ত স্কোরঃ

বরিশাল বুলস ১৩৫/৫ ( ২০ ওভার )
সাব্বির ৪১, রিয়াদ ৩৭
মুস্তাফিজুর ২১/২, নাসির ৯/১

ঢাকা ডায়নামাইটস ১১৭/৮ ( ২০ ওভার )
মোসাদ্দেক ২৬, ফরহাদ ২০
আল-আমিন ১৫/৩, কুপার ১৭/৩

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

ওবায়দুল কাদেরকে দেখতে হাসপাতালে মাশরাফি

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতলো ভারত

মেডিকেল রিপোর্টের উপরেই নির্ভর করছে সাকিবের এনওসি

শঙ্কা কাটিয়ে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে খেলছেন মুস্তাফিজ

দুদকের শুভেচ্ছাদূত হলেন সাকিব