১৫ জানুয়ারির আগেই নিউজিল্যান্ড সফরের দল

0
2172

সদ্য সমাপ্ত উইন্ডিজ সিরিজ শেষে দীর্ঘদিন কোনো আন্তর্জাতিক ম্যাচ বা সিরিজ নেই বাংলাদেশের। ফেব্রুয়ারির দ্বিতীয় সপ্তাহে সফরকারী নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ খেলতে নামবে বাংলাদেশ। সেটিই জাতীয় দলের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের পরবর্তী মঞ্চ। তিন ম্যাচের ঐ ওয়ানডে সিরিজের পর রয়েছে তিন ম্যাচের একটি টেস্ট সিরিজও।

১৫ জানুয়ারির আগেই নিউজিল্যান্ড সফরের দল
নিউজিল্যান্ড সফরে উইন্ডিজ সিরিজের মত ‘হোম অ্যাডভান্টেজ’ পাবে না বাংলাদেশ দল। ফাইল ছবি

দেড় মাসেরও বেশি সময় বাকি থাকলেও ঐ সফরকে সামনে রেখে এখন থেকেই পরিকল্পনা করছে দেশের ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) ও টিম ম্যানেজমেন্টের কর্তাব্যক্তিরা। ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের সাথে নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন অনেকটাই মিলে যাওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই এই সফরকে বিশ্বকাপের জন্য প্রস্তুতির ভালো মঞ্চ হিসেবেও দেখা হচ্ছে।

এই সফরকে ‘গুরুত্বপূর্ণ’ আখ্যা দিয়ে রবিবার (২৩ ডিসেম্বর) সংবাদমাধ্যমের সাথে আলাপকালে বাংলাদেশ দলের প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু জানিয়েছেন, আগামী ১৫ জানুয়ারির মধ্যেই নিউজিল্যান্ড সফরের বাংলাদেশ দল ঘোষণা করা হবে। আর অনভ্যস্ত কন্ডিশনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে নেওয়া হবে কার্যকর পদক্ষেপ।

Advertisment

নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশের পূর্ব অভিজ্ঞতা খুব একটা সুখকর নয়। ২০১৬ সালে নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে একটি ম্যাচও জিততে পারেনি বাংলাদেশ। তিনটি ওয়ানডে, তিনটি টি-২০ ও দুটি টেস্ট ম্যাচের পৃথক তিনটি সিরিজের সবগুলো ম্যাচ হেরে তিনটি সিরিজেই হোয়াইটওয়াশ হওয়ার লজ্জায় পড়েছিল টাইগাররা। যদিও এই নিউজিল্যান্ডই বাংলাদেশ সফরে এলে একটি জয়ের জন্য রীতিমত হাঁপিয়ে ওঠে। তবে বর্তমানে দল ভালো ফর্মে থাকায় এবার ভালো করার প্রত্যাশা নান্নুর।

তিনি বলেন, আমরা এখন নিউজিল্যান্ড সফরের দিকে তাকিয়ে আছি। এই সফরটা খুবই গুরুত্বপূর্ণসেখানে আগের সফরে বাজে অভিজ্ঞতা হয়েছিল আমাদেরতবে আমি মনে করি, ক্রিকেটাররা এখন অনেক পরিণত।’

নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশন বাংলাদেশের জন্য অনেকটাই অচেনা থাকবে। বাংলাদেশ অভ্যস্ত স্পিনে, সেটি বল করা এবং বল মোকাবেলা করা দুই ক্ষেত্রেই। কিন্তু নিউজিল্যান্ডে উইকেট হবে পেস-বান্ধব। তবে এই কন্ডিশনেই খেলতে হবে বিশ্বকাপ। তাই খাপ খাইয়ে নেওয়ার ব্যাপারটি ঘুরে-ফিরে সামনে আসছেই। আর তাই কন্ডিশনের বিষয়টি রয়েছে বিশেষভাবে বিবেচনায়।

নান্নু বলেন-

‘নিউজিল্যান্ডের জন্য তো অবশ্যই আমাদের মাথায় আছে। আমরা টিম ম্যানেজমেন্টের সঙ্গে বসে আলাপ করব। আমাদের একটা পরিকল্পনা আছে- আমরা এটা নিয়ে বসব। যে কন্ডিশনে যেভাবে খেলতে সেভাবেই কিন্তু আগাতে হবে। আমাদের মাথায় পরিকল্পনা আছে সেটা নিয়ে কাজ করব। আগামী জানুয়ারির ১৫ তারিখের মধ্যেই আমরা দল ঘোষণা করব।’

দীর্ঘদিন পর বাংলাদেশ দল তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজের দেখা পাবে কিউইদের মাটিতে। নিউজিল্যান্ড সফরে তিন ম্যাচের ঐ টেস্ট সিরিজকে সামনে রেখে নান্নুর প্রত্যাশা সাম্প্রতিক সময়ে ভালো করা জিম্বাবুয়ে ও উইন্ডিজ সিরিজের অভিজ্ঞতা কাজে লাগানোর, অনেকদিন পর আমরা তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবোএটা আমাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জআশা করি, জিম্বাবুয়ে-উইন্ডিজ সিরিজের অভিজ্ঞতা নিউজিল্যান্ডে কাজে লাগাতে পারবো।’

এদিকে দুয়ারে কড়া নাড়ছে বিপিএল। বিপিএল খেলে খেলোয়াড়দের ভালো প্রস্তুতি হবে, কমে যাবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট না থাকার শূন্যতা। যদিও নিউজিল্যান্ড সফরে নেই টি-২০ সিরিজ। এই দুইয়ের মাঝে অবশ্য ‘মিশ্রণ’ না ঘটিয়ে আলাদাভাবে চিন্তা করছেন সাবেক অধিনায়ক নানু, বিপিএলের ফরম্যাটটা আলাদাআমরা নিউজিল্যান্ডের জন্য এই ফরম্যাটটা নিয়ে চিন্তা করব নাএটা আমাদের ঘরোয়া টুর্নামেন্টঅবশ্যই সব খেলাই গুরুত্বপূর্ণ, খেলোয়াড়দের জন্য প্রতিটা ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণ।’

তিনি আরও বলেন, বিপিএল, প্রিমিয়ার লিগ- সবগুলো ম্যাচই গুরুত্বপূর্ণপারফরম্যান্স অবশ্যই বিবেচনায় আসবেযেহেতু খুব ঠাসা সূচি যাচ্ছে খেলোয়াড়দের জন্য; ফিটনেস ধরে রাখা এছাড়া অনেককিছুর ব্যাপার আছেসবকিছুরই মূল্যায়ন করা হবে।’

আরও পড়ুন: বক্সিং ডে টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার নেতৃত্বে আর্চি শিলার!