Scores

২০১৯ সালটা আরো স্মরণীয় করে রাখতে চান রুমানা

বাংলাদেশ নারী ক্রিকেটের ইতিহাসে এখন সবথেকে বড় সাফল্যটা এসেছে ২০১৮ সালে এশিয়া কাপ জয়। সেটাও আবার ভারতের মতো শক্তিশালী দলকে ফাইনালে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল বাংলাদেশের মেয়েরা। আর সেই ফাইনালে ম্যাচসেরা হয়েছিলেন অলরাউন্ডার রুমানা আহমেদ। এশিয়া কাপে ৬ ম্যাচে ১০ উইকেট নেন তিনি।

রুমানা আহমেদ
রুমানা আহমেদ । ছবিঃ গেটি ইমেজেস

 

গত বছর ২৪ টি-টোয়েন্টি ম্যাচে রুমানার শিকার ৩০ উইকেট আর ব্যাট হাতে পেয়েছেন ২২৯ রান। ফলস্বরূপ আইসিসির বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা পেয়েছেন রুমানা। কারণ ২০১৮ সালে নারী টি-টোয়েন্টি উইকেটশিকারীর তালিকায় যে রুমানা ছিলেন দ্বিতীয় স্থানেই। বর্ষসেরা টি-টোয়েন্টি দলে জায়গা পাওয়াটা ক্যারিয়ারের অন্যতম সেরা প্রাপ্তি বলেছেন রুমানা আহমেদ। তাঁর বিশ্বাস এই অর্জন তাঁকে আরো সামনে এগিয়ে যেতে অনুপ্রেরণা দিবে।

ব্যক্তিগত পারফরম্যান্সে দারুণ একটা বছর কাটানো রুমানার লক্ষ্য ২০১৯ সালটা আরো ভালো করে কাটানোর। ব্যক্তি উদ্যোগে ফিটনেস ও স্কিল নিয়ে কাজ করছেন তিনি। রুমানার ভাষায়,”সব সময়ই চেষ্টা করি সফল হতে। দলকে সাফল্য এনে দিতে আমাকে ভালো খেলতেই হবে। ২০১৮ অনেক ভালো গেছে এ বছর আরো ভালো খেলার চেষ্টা করব। ফিটনেস ও স্কিল নিয়ে কাজ করছি। পেছনে যেটা গেছে, গেছে। এবার ২০১৯ সালটা আরো স্মরণীয় করে রাখতে চাই। র‍্যাঙ্কিংয়ে আরো ওপরে উঠতে চাই, এক-দুইয়ে চলে আসতে চাই। ভালো খেললে র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি এমনেই হবে। আর সেটা হলে ভবিষ্যতে এমন সুখবর আরো পাওয়া যাবে।”

Also Read - স্মিথের কারণে দৌড়াতে হচ্ছে তামিমকেও!

এশিয়া কাপ জয়ের পর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ নিয়েও সমর্থকদের প্রত্যাশা ছিলো রুমানাদের কাছে। কিন্তু সেই প্রত্যাশা তো পূরণ করতে পারেইনি বাংলাদেশ, বরং ভরাডুবি হয়েছে দলটির। ২০১৮ টা রুমানার ব্যক্তিগতভাবে অনেক সাফল্যে কাটলেও দল শুধু এশিয়া কাপ জয় ছাড়া আর বড় সাফল্য পায়নি। বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটে বেশকিছু সাফল্য আসলেও সীমাবদ্ধতা রয়েছে অনেক। রুমানাও অকপটেই বললেন সেটা, “হ্যা, অবশ্যই আমরা এগিয়েছি। অবু বলব কিছু জায়গায় এখনো আমরা অনেক পিছিয়ে। বিশ্বকাপের পর দেখেন বেশির ভাগ দলই ব্যস্ত খেলা নিয়ে। আমরাই শুধু বসে আছি। ভারতীয় খেলোয়াড়রা বিশ্বকাপ খেলে এসে ব্যস্ত ঘরোয়া ক্রিকেট নিয়ে। এরপর তারা (ভারত) নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে। সেখানে বাংলাদেশ পরের সিরিজ কার বিপক্ষে খেলবে, সেটি জানি না। জানি ঘরোয়া লিগ হবে। কিন্তু ঘরোয়া লিগ তো সব নয়। ভালো কিছু করতে হলে আমাদের বেশি বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে হবে।”

বিসিবি জানিয়েছে, বাংলাদেশ নারী ক্রিকেট দলের পরবর্তী খেলা আগামী মার্চ মাসে নেপালে অনুষ্ঠিত দক্ষিণ এশিয়ান গেমস।

Related Articles

‘ব্যাচেলর’ থেকে ‘বিবাহিত’ মুস্তাফিজ

বিশ্বকাপের আগে বাংলাদেশের চারটি নাকি পাঁচটি ম্যাচ?

মোশাররফ রুবেলকে দেখে এলেন মোস্তফা কামাল

শতকের হ্যাটট্রিকে ‘রেকর্ড’ বইয়ে বিজয়

‘অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন’ হতে চায় আবাহনী