Scores

২০১৯ সালে ম্যাচ সংখ্যা কমছে টাইগারদের!

২০১৮ সাল বাংলাদেশ দলের জন্য সাফল্যে ভরা একটি বছর ছিলো। এশিয়া কাপ ও নিদাহাস ট্রফির রানার্সআপ হওয়া ছাড়াও সাফল্যের ঝুলিতে ছিলো দেশে ও দেশের বাইরে উইন্ডিজের বিপক্ষে দ্বিপাক্ষিক সিরিজের সাফল্য।

বাংলাদেশ ওয়ানডে দল

তিন ফরম্যাট মিলে ২০১৮ সালে বাংলাদেশ দল ম্যাচ খেলে মোট ৪৪টি। যেখানে টেস্টের সংখ্যা ছিলো ৮টি, ওয়ানডে ২০টি ও টি টোয়েন্টি ১৬ টি। ২০১৯ সালে মোট ম্যাচের সংখ্যা কিছুটা কমছে এই বছরের তুলনায়।

বাংলাদেশ দল এই বছর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ২টি,  জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ২টি ও উইন্ডিজের বিপক্ষে ৪টিসহ মোট ৮টি টেস্ট খেলেছে। আগামী বছর এফটিপি অনুযায়ী নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩টি, আফগানিস্তানের বিপক্ষে ১টি ও ভারতের বিপক্ষে ২টি মোট ৬টি টেস্ট খেলার কথা টাইগারদের। যা এইবছর থেকে ২টি কম।

Also Read - টিম প্রিভিউ: রাজশাহী কিংস— স্থানীয়রাই এবার ভরসা


ওয়ানডে ফরম্যাটে খেলা প্রায় সমান। ২০১৮তে বছরের শুরুতে ত্রিদেশীয় সিরিজে ৫টি, এশিয়া কাপে ৬টি, জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে হোম সিরিজে ৩টি ও উইন্ডিজের বিপক্ষে হোমচ ও এওয়ে দুই সিরিজে মোট ৬টি ওয়ানডে খেলেছে বাংলাদেশ। যা মোট ওয়ানডের সংখ্যা দাঁড় করিয়েছে ২০টিতে। ২০১৯ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩টি, আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে ৪টি, বিশ্বকাপে ৯টি ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৩টি মোট ১৯টি ওয়ানডে খেলবে। আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজে ফাইনাল ও বিশ্বকাপে ফাইনাল খেললে আরো ৩টি ম্যাচ বাড়তে পারে। তাতে মোট ওয়ানডের সংখ্যা হতে পারে ১৯ – ২২ টি।

নতুন বছরে টি টোয়েন্টি ফরম্যাটে ম্যাচ সংখ্যা সবচেয়ে বেশি কমবে। ২০১৮তে নিদাহাস ট্রফি, আফগানিস্তান সিরিজ, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে হোম সিরিজ ও উইন্ডিজের বিপক্ষে হোম এওয়ে মিলে মোট ১৬ টি টোয়েন্টি খেলেছে বাংলাদেশ। ২০১৯ সালে অস্ট্রেলিয়া বিপক্ষে  ৩টি, ভারতের বিপক্ষে ৩টি ও আফগানিস্তানের বিপক্ষে ২টি মোট ৮টি টি টোয়েন্টি খেলবে বাংলাদেশ দল। যা গত বছরের তুলনায় অর্ধেক।

 

৩ ফরম্যাট মিলিয়ে আগামী বছর বাংলাদেশের ম্যাচ সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৩ থেকে ৩৬টি, যা ২০১৮ সালের ৪৪টি থেকে অনেকটা কম। তবে এই ব্যবধান কিছুটা কমতে পারে যদি পাকিস্তান বিশ্বকাপের পর কোন এক সময় বাংলাদেশে তাদের গত বছরের না খেলা সিরিজটি খেলতে আসে।

২০১৭ সালের জুকাইয়ে দুটি টেস্ট, তিনটি ওয়ানডে ও দুটি টি টোয়েন্টি খেলতে বাংলাদেশ আসার কথা ছিলো পাকিস্তান ক্রিকেট দলের। তবে হঠাৎ করেই সেই সফরটি বাতিল করে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।  পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ডের প্রধান এহসান মানি কিছুদিন আগেই ঢাকায় এসিসির মিটিংয়ে আশাবাদ ব্যক্ত করেন যে তারা বাংলাদেশকে তাদের পাওনা সিরিজ ২০১৯ এর যে কোনো সময় বুঝিয়ে দিতে চায়। শেষ পর্যন্ত তা হলে আগামী বছর ম্যাচ সংখ্যা বাড়লেও বাড়তে পারে।

এক নজরে দেখে নিন ২০১৯ সালে বাংলাদেশের যত খেলা

-লিখেছেন সাফায়েত ইসলাম

 

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

Related Articles

দ্বিতীয় ওয়ানডেতে রনি-সানজামুল-এবাদতদের বোলিং নৈপুণ্যে

‘অপরাজিতা’ অস্ট্রেলিয়ার বিশ্বরেকর্ড

শেষ ওভারে গিয়ে হেরে গেল বাংলাদেশ

জয়ের জন্য ওভারপ্রতি সাড়ে সাত রান প্রয়োজন কিউইদের

দুই সেট ব্যাটসম্যানকে সাজঘরে পাঠিয়ে ম্যাচে ফিরল বাংলাদেশ