২৭৪ রানে থামলেন লিটন

0
1299

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগে ত্রিপল সেঞ্চুরির কাছে গিয়েও পারলেন না লিটন কুমার দাস। সেন্ট্রাল জোনের বিপক্ষে ২৯৩  বলে ২৭৪ রান করে আউট হয়েছেন ইস্ট জোনের এই ক্রিকেটার। দ্বিতীয় বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে ত্রিপল সেঞ্চুরির সুযোগ ছিল লিটনের সামনে। তবে ২৬ রান দূরে থাকতেই স্পিনার ইলিয়াস সানির বলে লেগ বিফোর উইকেটের ফাঁদে পড়েন লিটন।

Advertisment

রাজশাহী বিভাগীয় স্টেডিয়ামে দ্বিতীয় দিন শেষে ২৩টি চার এবং ১টি ছক্কার মারে ১৩৯ রানে অপরাজিত ছিলেন লিটন কুমার দাস। তৃতীয় দিনে লাঞ্চের আগেই তুলে নেন ডাবল সেঞ্চুরি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে এটি ছিল লিটনের দ্বিতীয় দ্বিশতক। এর পূর্বে ২১৯ রানের ইনিংস খেলেছিলেন এই ডানহাতি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। তবে আজ ছাড়িয়ে গেছেন নিজেকেও।

চতুর্থ উইকেটে আফিফ হাসান ধ্রুবকে সাথে নিয়ে গড়েন তোলেন ২৯৮ রানের জুটি। তরুণ আফিফ ২২৭ বলে ১৫ চার আর ৫ ছক্কায় ১৪২ রান করে আউট হলেও লিটন ছিল ছন্দে। তবে শেষ পর্যন্ত বহুকাঙ্খিত ত্রিপল সেঞ্চুরির মাইলফলক স্পর্শ করা হয় নি। ৯৪ স্ট্রাইকরেটে খেলা এই ইনিংসে লিটন হাঁকিয়েছেন ৩৫টি চার আর ২টি ছক্কা।

এর পূর্বে বাংলাদেশের হয়ে একমাত্র ট্রিপল সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন রকিবুল হাসান। বরিশালের হয়ে সিলেটের বিপক্ষে ২০০৬-০৭ মৌসুমে ফতুল্লায় ৩১৩ রান করেন এই ডানহাতি ব্যাটসম্যান। গত বছরে রকিবুলের নামের পাশে দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে নাম লিখানোর অনেক কাছাকাছি গিয়েও পারেন নি নাসির হোসেন। ২৯৫ রানে আউট হয়েছিলেন তিনি।

এক নজরে প্রথম শ্রেণিতে বাংলাদেশের সেরা ৫ ইনিংসঃ  

১। রকিবুল হাসান ৩১৩, বরিশাল বিভাগ বনাম সিলেট বিভাগ, ফতুল্লা, ২০০৭।
২। নাসির হোসেন ২৯৫, রংপুর বিভাগ বনাম বরিশাল বিভাগ, চট্টগ্রাম ২০১৭
৩। মার্শাল আইয়ুব ২৮৯, সেন্ট্রাল জোন বনাম ইস্ট জোন, বগুড়া, ২০১৩
৪। মোসাদ্দেক হোসেন ২৮২, বরিশাল বিভাগ বনাম চট্টগ্রাম জোন, বিকেএসপি, ২০১৫
৫। লিটন কুমার দাস ২৭৪, ইস্ট জোন বনাম সেন্ট্রাল জোন, রাজশাহী, ২০১৮

[আরও পড়ুনঃ ‘দেশের হয়ে যে কোনো ভালো পারফরম্যান্সই সবকিছুর আগে’]