Scores

“৪০% জরিমানা খেয়েছি, আর খাবার ইচ্ছে নেই”

সংযুক্ত আরব আমিরাতে ১৪তম এশিয়া কাপের সূচি নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছিল। এর বাইরে আম্পায়ারদের অনেক সিদ্ধান্ত নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। দেশে ফিরে এইসব বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা।

এশিয়া কাপের ফাইনালে লিটন কুমার দাসের আউটের সিদ্ধান্ত নিয়ে অনেক প্রশ্ন উঠে। ভারতের বিপক্ষে সেই ম্যাচে লিটন ছাড়া আর কোনও বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান নিজের নামের প্রতি তেমন সুবিচার করতে পারেননি। লিটনকে কেন্দ্র করেই বড় টার্গেটের স্বপ্ন দেখছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ৪১তম ওভারে কুলদ্বীপ যাদবের শেষ বলে ১২১ রান করা লিটনকে স্ট্যাম্পিং করেন ধোনি।এরপর তৃতীয় আম্পায়ার রড টাকার অনেক সময় নিয়ে দেখে আউটের সিদ্ধান্ত দেন।যা নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে সমালোচনার ঝড় উঠে। ক্রিকেট বিশ্বের অনেক রথী-মহারথীরা আউটের সিদ্ধান্তে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। তবে আছে উল্টো চিত্রও। অনেকেই দাবী করেছেন, আউট ছিলেন লিটন।

 

Also Read - এশিয়া কাপে মাশরাফির নজর কাড়লেন যারা


“আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত লিটনের পক্ষে যাওয়া উচিত ছিল”

এই সিদ্ধান্তে বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফির কি ভাষ্য? গতকাল রাতে দেশে ফিরে এয়ারপোর্টে সংবাদ সম্মেলনে মাশরাফি যেন বিষয়টি এড়িয়ে যেতে চাইলেন,“দেখেন, এমনিতেই ওভাররেটে ৪০% জরিমানা খেয়েছি। আর খাবার ইচ্ছে নেই।”

এদিকে এশিয়ার কাপের সূচি নিয়েও অনেক সমালোচনা হয়। সুপার ফোর থেকে ফাইনাল পর্যন্ত সব ম্যাচ একই ভেন্যুতে  খেলেছিল ভারত। অন্যদিকে বাংলাদেশ ও অন্যান্য দলগুলোকে ছুটে বেড়াতে হয়েছে। পাশাপাশি সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রচন্ড গরম তো ছিলই। এই বিষয়ে হতাশা মাশরাফির কন্ঠে, “শেষ ৮ দিনে ৫টি ম্যাচ খেলেছি। এরপর দুই ঘন্টা করে যাতায়াত ছিল। স্বাভাবিকভাবেই শরীরের উপর অনেক চাপ গেছে।”

এর বাইরে শিরোপা জয়ের কাছে গিয়ে আবারও ব্যর্থতায় হতাশ বাংলাদেশ অধিনায়ক,  “অন্যদিকে আমরা অবশ্যই হতাশ।এটা বলার সুযোগ নেই, আমরা হেরে খুশি কিংবা ভালো খেলে খুশি, এমনটা নয়।  আমরা অবশ্যই জিততে চেয়েছিলাম। যদিও অনেক কিছু আমাদের পক্ষে ছিল না। এরপরেও জিততে অবশ্যই চেয়েছিলাম কিন্তু ক্লান্তি শরীরে ছিল। আর কিছু না।”

{আরও পড়ুনঃ শিষ্যদের নিয়ে গর্বিত রোডস]

নিউজটি বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন
Tweet 20
fb-share-icon20

Related Articles

ফাইনালের দুই হার বাদে টাইগারদের সেরা বছর!

এনসিএলের প্রথম রাউন্ডে নেই এশিয়া কাপের বড় অংশ