SCORE

সর্বশেষ

থিতু হওয়াতেই মনোযোগ ছিল গেইলের

একপ্রান্তে ম্যাককালাম যখন মারমুখী, ক্রিস গেইল তখন স্বভাববিরুদ্ধ চুপচাপ। কিছুটা দৃষ্টিকটু মনে হলেও সোমবার দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে রংপুরের ইনিংস বড় হওয়ার সাথে সাথে বোঝা গেছে এর কারণ। উইকেট সম্পর্কে বুঝে গিয়ে গেইল যে একসময় হয়ে উঠেছিলেন দানব!

থিতু হওয়াতেই মনোযোগ ছিল গেইলের
ম্যাচ সেরার পুরষ্কার হাতে ক্রিস গেইল। ছবিঃ বিডিক্রিকটাইম

তার সেই দানবীয় বেটিংয়ে হেরে গেছে সিলেট। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে ক্রিস গেইল জানান তার ধীর শুরুর কারণ।

গেইল বলেন, ‘এই ধরনের উইকেটে দ্রুত থিতু হওয়া খুব জরুরি। উইকেটের গতিটা একবার ধরতে পারলে শট ভালো খেলা যায়। উইকেটে সময় কাটাতে চেয়েছি, কারণ জানি সেটা আবার পুষিয়ে দিতে পারব। শুরুটা মন্থর হলেও তাই অস্থির হইনি, স্নায়ুকে শান্ত রেখেছি। চেষ্টা করেছি পরিকল্পনা ঠিকঠাক মত বাস্তবায়ন করতে।’

Also Read - উচ্ছ্বসিত গেইল, আশা ছাড়ছেন না ফ্লেচার

গেইল জানান, প্রথম ম্যাচে রানের ফোয়ারা ছোটাতে না পারলেও দ্বিতীয় ম্যাচে রান পাওয়ায় খুশি তিনি, ‘রান পেয়ে আমি খুশি। প্রথম ম্যাচে রান পাইনি। আজকেও শুরুটা মন্থর ছিল, ছন্দ পেতে একটু সময় লেগেছে। ম্যাককালাম সেই সময়টায় দারুণ ব্যাট করেছে। ৮.৪ ওভারে ৮০ রানের জুটি, এই ধরনের উইকেটে দুর্দান্ত। থিতু হওয়ার পর চেষ্টা করেছি রান করতে।’

সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে টি-২০ ক্রিকেটের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান মাশরাফির ম্যাচ জেতানো ওভারটির প্রশংসা করে বলেন, ‘ওই ওভারই ছিল গুরুত্বপূর্ণ। বলতেই হবে, নাসির ও সাব্বির দারুণ ব্যাট করেছে। দলকে জয়ের অবস্থায় নিয়ে গিয়েছিল। ওদেরকে কৃতিত্ব দিতেই হবে। দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর পর ওরা ভালোভাবে দলকে টেনেছে।’

গেইল আরও বলেন, ‘তবে আমাদের বোলাররা শেষ দিকে দারুণভাবে ম্যাচে ফিরেছে। অধিনায়কের এক ওভারে মাত্র ২ রান দেওয়া ছিল ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। এরপর রুবেল ও থিসারা দারুণভাবে শেষ করেছে।’

উল্লেখ্য, গেইলের ঝড়ো অর্ধ-শতকে সোমবার সিলেট সিক্সার্সকে ৭ রানে হারিয়েছে মাশরাফি-গেইলের রংপুর রাইডার্স।

আরও পড়ুনঃ অ্যান্ডি ফ্লাওয়ারের দিকে চোখ বিসিবির

1 of 1

Related Articles

যে একাদশে বাংলাদেশি কেউ নেই, আছেন রশিদ

আফ্রিদি-গেইলের সাথে খেলবেন স্মিথ

জানুয়ারিতে হতে পারে পরবর্তি বিপিএল!

সামর্থ্য বিচারে রংপুরকে ইঙ্গিত গেইলের

এবার ইডেনও দেখল গেইল-ঝড়