SCORE

সর্বশেষ

মাশরাফি-নাসিরদের তিনে তিন

চলমান ডিপিএলের প্রথম তিন রাউন্ডে টানা তিন দাপুটে জয় তুলে নিয়ে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষস্থান নিজেদের দখলে নিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার নেতৃত্বাধীন আবাহনী লিমিটেড। তৃতীয় রাউন্ডের ম্যাচে ব্রাদার্স ইউনিয়নকে আজ মাশরাফিরা হারিয়েছে ১৩৬ রানের বিশাল ব্যবধানে।

ফাইল ফটো

টস হেরে আগে ব্যাট করে উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সাইফ হাসানের শতকে (১০৮) চড়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ২৬৭ রানের লক্ষ্যমাত্রা ব্রাদার্স ইউনিয়নকে ছুড়ে দেয় আবাহনী লিমিটেড। জবাবে ব্যাট করতে নেমে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ৩৫.৪ ওভারে ব্রাদার্সের ইনিংস থামে ১৩০ রানে।

রান তাড়া করতে নেমে উদ্বোধনী জুটিতে জুনায়েদ সিদ্দিক ও মিজানুর রহমান ৫০ রানের জুটি গড়ে ইতিবাচক কিছুর ইঙ্গিত দিলেও তা ভেস্তে যায় এ জুটি বিচ্ছিন্ন হওয়ার সাথেই। ২৪ রান করে সানজামুল ইসলামের প্রথম শিকারে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফিরেন জুনায়েদ সিদ্দিক। বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানকে দিয়ে নিজের খাতা খোলার পর আরেক উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান মিজানকেও ২৪ রানে ফিরিয়ে দিয়ে ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করার পথে হাঁটেন এ স্পিনার।

Also Read - লিটনের দূর্দান্ত শতকে দোলেশ্বরের দাপুটে জয়

এরপর সানজামুলের সাথে উইকেট উৎসবে যোগ দেন আরও দুই স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ ও সাকলাইন সজীব। তাদের ঘূর্ণি জাদুতে একের পর উইকেট হারাতে থাকে ব্রাদার্স ইউনিয়ন। এক পর্যায়ে ৮৪ রানের মধ্যে ৮ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে ছিটকে যায় দলটি। ১০০ রানের নিচে অল-আউট হওয়ার শঙ্কা জাগলেও ইয়াসির আলীর প্রচেষ্টা ও ওয়াহিদুল আলমের শেষ দিকের ১৫ রানের ইনিংসের কল্যাণে এ লজ্জার হাত থেকে রেহাই পায় দলটি।

ইয়াসির আলি ৩৫ রানে অপরাজিত থাকলেও যোগ্য সঙ্গের অভাবে দলের হার এড়াতে ব্যর্থ হন তিনি। আর ৩৫.৪ ওভারে ১৩০ রানে থামে ব্রাদার্সের ইনিংস। আবাহনীর বোলারদের মধ্যে ২৪ রানে মিরাজ তিনটি, ২৮ রান খরচায় সানজামুল তিনটি, ৮ রান দিয়ে সাকলাইন দুটি ও ২১ রানে নাসির নেন একটি উইকেট।

এর আগে ব্যাট করে এনামুল হক ও সাইফ হাসানের ৮৪ রানের জুটিতে উড়ন্ত সূচনা পেলেও ম্যাচ বাড়ার সাথে সাথে মিডল-অর্ডার ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় ২৬৬ রানে থামে আবাহনীর ইনিংস। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০৮ রানের ইনিংস আসে সাইফ হাসানের ব্যাট থেকে। ১৩২ বল মোকাবেলায় ৬ চার ও ৫ ছয়ে এ রান করেন সাইফ। তাছাড়া এনামুল হক বিজয় ৪১, নাজমুল হোসেন শান্ত ৩৮, নাসির হোসেন ৩১ রান করেন।

প্রতিপক্ষ শিবিরের বোলারের মধ্যে খালেদ আহমেদ ও রনি হোসেন দুটি করে উইকেট লাভ করেন। তাছাড়া অলক কাপালি ও সোহরাওয়ার্দী শুভ নেন একটি করে উইকেট।

স্কোরকার্ড-

আরও পড়ুনঃ ডিপিএলে ফিরেই লিটনের দূর্দান্ত শতক

Related Articles

ঘরোয়া ক্রিকেটে সুযোগ চান লেগ স্পিনাররা

ছুটি কমেছে টাইগারদের

পারিশ্রমিক না পেয়ে বিসিবির শরণাপন্ন কলাবাগানের ক্রিকেটাররা

হাসপাতালে নাসির, লিগামেন্ট ছিঁড়ে যাওয়ার শঙ্কা

নাসির, শান্ত তাণ্ডবের পর মাশরাফি ঝড়