SCORE

সর্বশেষ

কেমন ছিল সৌম্যর পরিকল্পনা?

নিদাহাস ট্রফির ফাইনাল ম্যাচে ভারতের কাছে শেষ বলে পরাজয়ের দুঃখ এখনও ভুলেনি বাংলাদেশ। আরও একটি ফাইনালে গিয়ে শেষ মুহূর্তে স্বপ্নভঙ্গ হওয়ার ক্ষত অনেকদিনই পোড়াবে বাংলাদেশকে।

অনুশীলনের সময় সৌম্য সরকার।

ঐ ম্যাচের শেষ ওভারে বোলিং করেছিলেন সৌম্য সরকার। ভালো পাঁচটি ডেলিভারির পর ওভারের শেষ বলে ছক্কা হজম করে পরাজয় মেনে নেওয়ার পাশাপাশি কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। তবে প্রথম পাঁচ ডেলিভারি (মাঝখানে একটি ওয়াইড বাদে) ছিল দুর্দান্তই। ঐ ম্যাচে কেমন ছিল সৌম্যর পরিকল্পনা?

Also Read - সৌম্যর আক্ষেপ, সৌম্যর আফসোস

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তর টিভির সাথে আলাপকালে সৌম্য বলেন, ‘মূল পরিকল্পনা ছিল ওয়াইড ইয়র্কার মারা। রান বাকি ছিল ৫। যদি ওয়াইড ইয়র্কার মারি তাহলে ৬ হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। হয়ত ৪ হবে… এই পরিকল্পনাই ছিল; তারপরও ড্র অন্তত হবে। সুপার ওভারে যাবে।’

সৌম্যকে বল করার পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়ে সাকিব যুগিয়েছিলেন পূর্ণ সমর্থন। সৌম্য বলেন, ‘সাকিব ভাই আমাকে বলছিল, তোর যেটা সামর্থ্য আছে তুই সেটাই করবি। টেনশন করবি না, মন খুলে বল কর। তুই পারবি। আমাকে তিনি অনেক বড় একটা সাপোর্ট দিয়েছেন এবং নিজের মধ্যে শক্তি বাড়িয়ে দিয়েছেন। বোলিং দেওয়ার পর সাকিব ভাইকে আমি জিজ্ঞেস করেছি- আপনার কোনো পরিকল্পনা আছে কি না। নরমাল, বি কুল, নিজের যতটুক এবিলিটি আছে ঐটা দিয়েই বল কর। তুই পারবি!’

ম্যাচের শেষদিকে এতো চাপ সইতে না পেরে সৌম্য অনেকটাই দুর্বল হয়ে পড়েছিলেন। এমনকি একটা সময় দাঁড়ানো বা হাঁটার শক্তিটাও পাচ্ছিলেন না তিনি। তার ভাষ্য, ‘ঐ সময় আমি যতই চেষ্টা করছিলাম আমি শক্ত থাকবো, স্ট্রং হয়ে দাঁড়াব, কিন্তু মনে হচ্ছিল পায়ে শক্তি নেই, শরীরে শক্তি নেই। মানে এরকম অবস্থা- আমি চাইলেও পারছি না দাঁড়াতে, সোজা হয়ে যাবো, স্ট্রং থাকার চেষ্টা করবো… কিন্তু হচ্ছিল না আরকি।’

আরও পড়ুনঃ বৃষ্টিতে পুড়ল স্কটল্যান্ডের কপাল, বিশ্বকাপে ওয়েস্ট ইন্ডিজ

Related Articles

রুবেল হোসেনের সমস্যা কোথায়?

নিদাহাস ট্রফি থেকে ৪৮২ শতাংশ লাভ!

অসুস্থ রুবেল, দোয়া চাইলেন সবার কাছে

যেখান থেকে শুরু ‘নাগিন ড্যান্স’ উদযাপনের

‘খারাপ করছি দেখেই বেশি চোখে পড়ছে’