কোহলিকে দলে চাওয়ায় বহিষ্কার!

বর্তমান বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান কে? এই প্রশ্ন করলে বেশিরভাগ ক্রিকেট সমর্থকেরই উত্তর হবে- বিরাট কোহলি। ভারতীয় অধিনায়ক ইতোমধ্যে ছাড়িয়ে গেছেন সমসাময়িক বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের। ক্যারিয়ারের যে সময় পড়ে আছে, তাতে নিজেকে কোথায় নিয়ে যান সেটি কল্পনা করাও দুঃসাধ্য।

কোহলিকে দলে চাওয়ায় বহিষ্কার!

অথচ এই কোহলিকে দলে নিতে চেয়েছিলেন বলে কী করুণ কাহিনী ঘটেছিল, তা জানা আছে খুব কম মানুষেরই! জেনে নেওয়া যাক বিস্তারিত।

Also Read - যা শুনে ডি ককের দিকে তেড়ে গিয়েছিলেন ওয়ার্নার

২০০৮ সালে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজের জন্য ভারত দল ঘোষণার আলাপ চলছে। তখন বিসিসিআইয়ের প্রধান নির্বাচক ছিলেন দিলীপ ভেংসরকার। জাতীয় দলের জন্য তিনিই প্রথম প্রস্তাব করেছিলেন কোহলির নাম।

ভেংসরকারের প্রস্তাবে টিম ম্যানেজমেন্টের কেউই সম্মত হননি। এমনকি তার প্রস্তাব নিয়ে রীতিমতো ছেলেখেলা করা হয়েছিল সেবার। তবে নিজের জায়গায় শক্ত ছিলেন ভেংসরকার। তিনি জোর দাবি জানিয়ে শেষমেশ কোহলিকে দলভুক্ত করেন।

অবশ্য কোহলি দলে আসার পরই দেখা দেয় তার দুর্গতি। তৎকালীন প্রধান নির্বাচকের উপর চটে বসেন তখনকার বোর্ড কোষাধ্যক্ষ এন শ্রীনিবাসন। সুব্রমানিয়াম বদ্রিনাথকে কেন দলে নেওয়া হল না, এমনটা জানতে চেয়ে শ্রীনিবাসন তিরস্কার করেন ভেংসরকারকে। ঐ সিরিজের পরই প্রধান নির্বাচকের চাকরি হারাতে হয় তাকে।

সম্প্রতি বিষয়টি খোলাসা করে এ প্রসঙ্গে ভেংসরকার বলেন, ‘শ্রীকান্ত থেকে শরদ পাওয়ার (তখনকার বিসিসিআই সভাপতি) পর্যন্ত গিয়েছিলেন শ্রীনি এবং আমাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেন। নির্বাচক হিসেবে আমার ক্যারিয়ারের সেখানেই সমাপ্তি।’

ভেংসরকার আরও বলেন, ‘শ্রীনিবাসন ভীষণ চটেছিলেন, কারণ তার খেলোয়াড়কে বাইরে রাখা হয়েছিল আর তাই আমার কাছে জানতে চেয়েছিলেন, বদ্রিকে কেন নেওয়া হয়নি? আমি জবাব দিয়েছিলাম, অস্ট্রেলিয়ায় ইমার্জিং ট্যুরে গিয়ে এই ছেলেটাকে (কোহলি) আমার আলাদা বলে মনে হয়েছে।

নিজের নির্বাচকের ক্যারিয়ারকে হুমকির মুখে ফেলেও কোহলিকে সেদিন দলভুক্ত করতে সক্ষম হয়েছিলেন দিলীপ ভেংসরকার। তা না হলে হয়ত আধুনিক ক্রিকেট তার অন্যতম সেরা শিষ্যকে পেতই না!

আরও পড়ুনঃ ক্রিকেট ছেড়ে দেওয়া উচিত!

1 of 1