SCORE

সর্বশেষ

‘র‍্যাঙ্কিং নয়, সিরিজ জয় নিয়েই ভাবনা’

ওয়ানডে সংস্করণের মতো টি-টোয়েন্টিতে তেমন উন্নতিটা করতে পারেনি বাংলাদেশ। র‍্যাঙ্কিংয়ের ১০ নম্বরে টাইগাররা। অন্যদিকে আফগানিস্তান ৮ নম্বরে। তাদের বিপক্ষে জুনে দেরাদুনে মুখোমুখি হবে টাইগাররা। তাই আফগানদের হারিয়ে র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি করার দিকে চোখ বাংলাদেশের। কিন্তু দলের ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ সুজন বলেন ভিন্ন কথা। অবশ্য র‍্যাঙ্কিং নিয়ে ভাবছেন না তিনি। তার মূল লক্ষ্য আফগানদের বিপক্ষে সিরিজ জয়। আর তা করতে পারলে এমনিতেই র‍্যাঙ্কিংয়ে উন্নতি হবে বলে জানান সাবেক এ অধিনায়ক।

খালেদ মাহমুদ সুজন

কোর্টনি ওয়ালশের অনুপস্থিতিতে সোমবার মিরপুরে টাইগারদের স্কিল অনুশীলনে নেতৃত্ব দেন সুজন। এরপর আফগান সিরিজে নিজেদের লক্ষ্য নিয়ে জানালেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে র‍্যাঙ্কিং নিয়ে ভাবছি না। আমাদের জন্য সিরিজ জেতাটা খুব জরুরি। সিরিজ জিতলেই র‍্যাঙ্কিংয়ে এগুবো। এখন এসব মাথায় নিয়ে লাভ নেই। আফগানিস্তানকে হারানোর সামর্থ্য আমরা রাখি। যেকোন কন্ডিশনে আমরা ভালো দল। আমরা স্কিলফুল দল। আমাদের ব্যাটিং, বোলিং সব ওদের থেকে ভালো। হ্যাঁ, ওদের বিশ্বসেরা স্পিনার আছে। কিন্তু ওদের পুরো দল ভারসাম্যপূর্ণ নয়। আমরা যদি আমদের শৃঙ্খলা ঠিক রাখি, ভালো ক্রিকেট খেলি তাহলে আমার মনে হয় যে কোন সময় আফগানিস্তানকে হারাতে পারি।’

Also Read - নিজে হারলেও মুম্বাইয়ের পরাজয়ে প্রীত প্রীতি!

ক্রিকেট বিশ্বে আফগানদের পথ চলা নতুন হলেও টি-টোয়েন্টি সংস্করণে দারুণ ক্রিকেট খেলছে তারা। বিশেষ করে দলের দুই স্পিনার অধিনায়ক রশিদ খান ও মুজিব জাদরান সাম্প্রতিক সময়ে এ সংস্করণের অন্যতম সেরা বোলার। তাই তাদের নিয়ে ভাবতেই হচ্ছে টাইগারদের। তবে শুধু এ দুজনের উপরই নয়, টাইগারদের নজর আফগানিস্তানের সব বোলারের উপরই। কারণ, এর আগে বাংলাদেশ দলের বিপক্ষে বেশির ভাগ সাফল্যই পেয়েছেন তাদের পেসাররা।

তাই আলাদা করে এক দুজনকে নিয়ে নয় সকল আফগান বোলারকে নিয়ে সুজনের ভাবনা, ‘আমরা ওইভাবে নিচ্ছি না। রশিদ, মুজিব ছাড়াও আমাদের ১২টা ওভার খেলতে হবে। ওই ১২ ওভার খুব গুরুত্বপূর্ণ। টি-টোয়েন্টিতে ১২০টা বল খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা ১২০টা বল ভালো খেলছি। আমি মনে করি স্কিলের দিক থেকে বাংলাদেশ ভালো দল আফগানদের হারানোর জন্য আসলে।’

এদিকে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান সিরিজ দিয়েই আন্তর্জাতিক ভেন্যু হিসেবে অভিষেক হবে দেরাদুনের। নতুন এ ভেন্যু সম্পর্কে তেমন ধারণা না থাকলেও উইকেটে বাউন্স থাকবে বলেই আশা করছেন সুজন, ‘আমার মনে হয় না খুব একটা স্পিনবান্ধব উইকেট হবে। আমার মনে হয় উইকেটে বাউন্স থাকতে পারে। আমাদের এখান থেকে যে দেখতে গিয়েছিল তার কাছে শুনলাম ঘাস আছে অনেক। আমাদের সিরিজ শুরুর আগে ৭টার মতো ম্যাচ হবে ওই গ্রাউন্ডে। তখন হয়ত ঘাস কমে যাবে। বাউন্স থাকতে পারে। আর স্পিন ফ্রেন্ডলি হলে আমাদের জন্যও ভালো। ওরাও স্পিনে এত ভাল তা না। যে রকমই উইকেট হোক না আমরা প্রস্তুত।’

এদিকে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকায় পা রাখবেন টাইগারদের অন্তর্বর্তীকালীন কোচ কোর্টনি ওয়ালশ। বুধবার থেকে টাইগারদের ক্যাম্পে যোগ দেবেন এ ক্যারিবিয়ান। তবে তাকে ছাড়াই এদিন থেকে শুরু হয়ে গেলো টাইগারদের স্কিল অনুশীলন। প্রথম দিনের অনুশীলনে সন্তুষ্ট সুজন, ‘স্কিল শুরু হল আজকে। টি-টোয়েন্টি মাথায় রেখেই বোলিং-ফিল্ডিং হচ্ছে। বোলাররা নতুন বলে কি ফিল্ডিং নিয়ে বল করবে, পুরান বলে কি করবে ইত্যাদি। বৈচিত্র্যগুলো কি হচ্ছে। ব্যাটসম্যানরাও একই, আক্রমণাত্মক খেলার অনুশীলন করছে। আপাতত সব ঠিক ঠাক।’

 

আরো পড়ুনঃ সিনিয়র ক্রিকেটারদের সাথে কারস্টেনের বৈঠক

1 of 1

Related Articles

ওয়ানডে র‍্যাঙ্কিংয়ে যোগ হলো চার দেশ

টেস্টে শীর্ষস্থান ধরে রেখেছেন স্মিথ

কোহলির নতুন কীর্তি

সাকিবকে ‘রানঅ্যাওয়ে লিডার’ উল্লেখ করলো আইসিসি