SCORE

সর্বশেষ

কিছুটা চাপে ছিল বাংলাদেশঃ লিটন

দেরাদুনে বাংলাদেশ দল তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটা হেরেছে বাজেভাবে। ১৬৮ রানের লক্ষ্য নিয়ে খেলতে নেমে মাত্র ১২২ রানে গুটিয়ে ৪৫ রানের ব্যবধানে হারে টাইগাররা।

যে কারণে ওপেনিংয়ে লিটন

ওপেনিং খেলতে নেমে বেশ সাবলীল ছিলেন তরুণ ওপেনার লিটন দাস। লঙ্কানদের সাথে নিদাহাস ট্রফিতেও খেলেছিলেন ভালো ইনিংস। গতকাল আউট হয়েছেন আম্পায়ারের ভুল সিদ্ধান্তে। আর শেষ পর্যন্ত পরাজিত দলের খাতাতেই নাম লিটন দাসের। কিন্তু কেন? সেটা জানাতেই সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখি হন তিনি।

Also Read - মানসিকভাবে পিছিয়ে বাংলাদেশ!

ঝুঁকি নিতে গিয়েই সফল হতে পারে নি বাংলাদেশ এমনটাই জানান ডানহাতি এ ওপেনার। তিনি বলেন, ‘আসলে ওরা খুব ভালো বল করেছে, ওরা খুব ভালো বোলার। পরিকল্পনা ছিল ওদের দেখে খেলা, উইকেট না দেওয়া। যেকোনো মুহূর্তেই ওদের উইকেট না দিয়ে খেলার পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু রানও তো করতে হবে। তাই ঝুঁকি নিতেই হতো। কিন্তু ওখানেই ভুল হয়ে গেছে। আমরা সফল হতে পারিনি।’

নিজেদের ভুলগুলো নিয়েও কথা বলেন লিটন দাস। বোলিং এর কোন কোন জায়গায় সমস্যা ছিল সেটাও জানান এই ওপেনার। তাঁর মতে,‘আমরা হয়তো পাওয়ার প্লে’তে একটু বেশি রান দিয়ে ফেলেছি। মাঝখানে আবার খুব ভালো বল করেছি। শেষের দিকে ২০ থেকে ২৫ রান বেশি দিয়ে দিয়েছি। এই উইকেটটা এতটাও সহজ না যে চাইলেই মারা যায়। শেষের দিকে আমাদের বোলাররা পরিকল্পনা অনুযায়ী বল করতে পারেনি। আমরা জানতাম, এই উইকেটে চাইলেই মারা যাবে না, তাই ১৭০-এর কাছাকাছি রান আমাদের জন্য বাড়তি চাপ ছিল। ঝুঁকি নিতে গিয়ে অনেকে সফল হয়, অনেকে সফল হয় না।’

এক ওভারে দুই উইকেট নেয়ার পরেও রিয়াদকে আর আনা হয়নি আক্রমণে। এটা নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। এ নিয়ে পুরোটাই অধিনায়কের সিদ্ধান্ত বলে জানান লিটন। তিনি বলেন, ‘এটা পুরোপুরিই অধিনায়কের সিদ্ধান্ত। হয়তো অধিনায়ক মনে করেছিলেন সে সময় স্পিনারদের চেয়ে পেসার ভালো করবে। আসলে এই ব্যাপারে বলাটা কঠিন। মাহমুদউল্লাহ ভাইয়ের পর অন্য কেউ এসে যদি একটা কি দুইটা উইকেট নিয়ে নিত, হয়তো পুরো খেলার দৃশ্যই পরিবর্তন হয়ে যেত। অন্য কেউ সফল হয়নি তাই এখন এ রকম প্রশ্ন উঠছে।’

মুস্তাফিজকে মিস করছে বাংলাদেশ দল এমনটাও জানালেন তিনি। ডেথ ওভারে বাংলাদেশ দলের অন্যতম ভরসা মুস্তাফিজ দলের সাথে নেই ইঞ্জুরির কারণে। লিটন জানান। ‘আপনারা জানেন টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে মুস্তাফিজ বাংলাদেশের অন্যতম সেরা খেলোয়াড়। স্বাভাবিক ব্যাপার, একজন ভালো খেলোয়াড় না খেললে দলের ওপর একটু প্রভাব তো পড়েই। হ্যাঁ, কিছুটা চাপ ছিল। তবে এমন না যে মুস্তাফিজ না থাকলে আমরা ম্যাচ জিততে পারব না। কিছু ভুলের জন্য আমরা শেষের দিকে ভালো বল করতে পারিনি।’

চাপ নিয়েও কথা বলেন লিটন দাস। বাংলাদেশ দল বেশি চাপের কারণেই নিজেদের সাধারণ খেলাটা খেলতে পারেন নি বলে মত অনেকের। লিটন দাস জানালেন প্রতিপক্ষ দলে রশিদ খান ও মুজিব জাদরান এর মত বোলার থাকায় কিছুটা চাপে ছিল টাইগাররা, ‘আসলে আপনারাও জানেন আমরাও জানি ওরা খুব ভালো বোলার। আইপিএলেও খেলেছে, ভালো বোলিং ও করছে। ওই দুজনের (মুজিব ও রশিদ) চারটা ওভার কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ। যখন আপনি জানেন আপনি চাইলেও এই ওভারগুলোয় বেশি কিছু করতে পারবেন না, তখন চাপ তো কিছুটা থাকেই।’

বাংলাদেশ দলের পরবর্তী ম্যাচ ৫ই জুন একই ভেন্যুতে। বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে আটটায় শুরু হবে ম্যাচ। আগামীকাল ম্যাচ জিতে সিরিজ নিজেদের করে নিতে চাইবে আফগানিস্তান। অন্যদিকে এই ম্যাচে জয় দিয়েই জয়ের ধারায় ফিরে সিরিজে টিকে থাকতে চাইবে ডু অর ডাই ম্যাচ খেলতে নামা বাংলাদেশ। এ ম্যাচেও যে বাংলাদেশ দলের ওপর চাপ থাকবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু সেই চাপকে জয় করাই হবে আসল কাজ।

 

আরো পড়ুনঃভারতকেও ভাবাচ্ছেন রশিদ খান

1 of 1

Related Articles

ছুটি কমেছে টাইগারদের

শৃঙ্খলার জন্য বাদ পড়েছিলেন সাব্বির!

শীর্ষে রশিদ, উন্নতি রিয়াদ-মুশফিকের

বাংলাদেশ আফগানিস্তান সিরিজের সেরা তিন

ফিল্ডিংয়ে বাংলাদেশ, একাদশে তিন পরিবর্তন