SCORE

সর্বশেষ

দিনের শুরুতেই লঙ্কান শিবিরে মুস্তাফিজের হানা

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে তৃতীয় ও শেষ চারদিনের ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের শুরুতেই মুস্তাফিজুর রহমানে বিপাকে পড়েছে সফরকারী শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দল।
এ-দলের-তৃতীয়-চারদিনের-ম্যাচের-দলে-মুস্তাফিজ

আগের দিনের ৩ উইকেটে করা ৭৮ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিনের খেলা শুরু করে স্কোরবোর্ডে কোনো রান যোগ করার আগেই কাটার-মাস্টারের ভেল্কিতে আসালঙ্কার গুরুত্বপূর্ণ উইকেট হারিয়ে বসেছে সফরকারীরা। ব্যক্তিগত ৭ রানে সৌম্য সরকারের হাতে তালুবন্দী হয়ে সাজঘরে ফেরার মধ্য দিয়ে প্রথম ইনিংসে চতুর্থ উইকেটের পতন ঘটলো সফরকারীদের।

ইনিংসে মুস্তাফিজের দ্বিতীয় শিকারের পর শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৮৫ রান। ৮ চার ও ১ ছয়ে ৫৪ রান নিয়ে এ মুহূর্তে ব্যাট করছেন জয়াসুরিয়া। ৪ রান নিয়ে তার সাথে ক্রিজে আরেক অপরাজিত ব্যাটসম্যান আশান শাম্মু।

Also Read - সেমিফাইনালে সালমাদের প্রতিপক্ষ স্কটল্যান্ড

এর আগে টস জিতে অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুনের আগে ব্যাট করার সিদ্ধান্তের পর প্রথম ইনিংসে ১৬৭ রানে অলআউট হয় স্বাগতিক বাংলাদেশ ‘এ’ দল। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৪২ রান এসেছে জাকির হাসানের ব্যাট থেকে। তাছাড়া সানজামুল ইসলাম করেছেন ৪১ রান।

ইনিংসের শুরু থেকেই ছন্দ হারানো বাংলাদেশ প্রথম উইকেট হারায় দলীয় ১৪ রানের সময়। ব্যক্তিগত ৯ রানে আউট হন ওপেনার সাদমান ইসলাম। এরপর দলীয় ৩৭ রানে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে ২ চারে মাত্র ১৪ রান করে সাজঘরে ফিরেন সৌম্য সরকারও।

বাঁহাতি এ ব্যাটসম্যানকে সরাসরি বোল্ড আউট করে স্বাগতিকদের প্রথম ইনিংসে চাপে ফেলেছেন লঙ্কান বোলার পুষ্পাকুমারা। চাপ থেকে বের হওয়ার আগে মাত্র ৫ বলের ব্যবধানে ১৪ রান করা মিজানুর রহমান জয়াসুরিয়ার ফাঁদে পড়লে ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ।

৩৭ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশকে এরপর লড়াইয়ের স্বপ্ন দেখান সাইফ-জাকির জুটি। দলীয় স্কোরবোর্ডে আরও ১১ রান যোগ করে লাঞ্চ বিরতিতে যান তারা। বিরতি থেকে ফিরে প্রতিরোধ গড়ার সম্ভাবনা জাগালেও আবারও বাংলাদেশের ইনিংসে ছন্দপতন ঘটান জয়াসুরিয়া। তার বলে দলীয় ৭২ রানে থিরিমান্নের হাতে সাইফ তালুবন্দী হলে বিচ্ছিন্ন হয় দু’জনের মধ্যকার ৪৫ রানের চতুর্থ উইকেট জুটি।

এরপর ক্রিজে জাকিরের সাথে যোগ দেন অধিনায়ক মিঠুন। তবে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনিও। ষষ্ঠ উইকেট জুটিতে জাকিরের সাথে আফিফ ২০ রান যোগ করে প্রতিরোধ গড়ার ইঙ্গিত দিলেও তা আর হয়ে ওঠেনি। পুষ্পকুমারার বলে বোল্ড হয়ে ১২ রান করা আফিফ সাজঘরে ফিরলে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। এই চাপ সামাল দিতে ব্যর্থ হন এখন পর্যন্ত টাইগারদের হয়ে সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলা জাকির হাসান। ব্যক্তিগত ৪২ রানে তিনি ফাঁদে পা দেন জয়াসুরিয়ার।

এর ফলে ১০৭ রানে ৭ উইকেট হারিয়ে স্বল্প রানে অল-আউট হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা জাগে টাইগারদের। এরপর শেষ দিকে সানজামুল ও নাঈমের মধ্যকার ইনিংসের সর্বোচ্চ ৫৪ রানের জুটিতে চড়ে ১৬৭ রান স্কোরবোর্ডে যোগ করতে সক্ষম হয় স্বাগতিক বাংলাদেশ ‘এ’ দল।

প্রতিপক্ষ শিবিরের বোলারদের মধ্যে ৩টি করে উইকেট লাভ করেন পুষ্পাকুমারা, জয়াসুরিয়া ও প্রতাপ।

সংক্ষিপ্ত স্কোরকার্ড-
বাংলাদেশ: ১৬৭/১০ (প্রথম ইনিংস)
(সাদমান ৯, সৌম্য ১৪, মিজানুর ১৪, সাইফ ৭, জাকির ৪২, মিঠুন ৩, আফিফ ১২, সানজামুল ৪১*, নাঈম ২২, মুস্তাফিজ ০, খালেদ ১)

আরও পড়ুনঃ উইন্ডিজ সফরে যাবেন না মাশরাফি?

 

Related Articles

এ’দলের অধিনায়কের দায়িত্বে মুমিনুল, সৌম্য

‘থ্যাংক ইউ সিলেট!’

সিরিজ নির্ধারণী ম্যাচে বৃষ্টির জয়

রান তাড়ায় সাবধানী শুরু সাইফ-জাকিরের

সিরিজ জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৪০ রান