SCORE

সর্বশেষ

সৌম্য-সাব্বির-মোসাদ্দেকের জন্য সাকিবের পরামর্শ

চার জুলাই থেকে উইন্ডিজে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ আর স্বাগতিকদের মধ্যকার টেস্ট, ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি সিরিজ। টেস্ট সিরিজে নেই তিন তরুণ সৌম্য, সাব্বির ও মোসাদ্দেক। খারাপ সময় যাচ্ছে তিনজনেরই। তাদের জন্যই বার্তা দিলেন ‘বড় ভাই’ সাকিব আল হাসান।

'এ' দলের স্কোয়াডে তুষার-সৌম্য-সাব্বির

ক্যারিয়ারের শুরুটা ভালো হলেও আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে খুব ভালো ফর্মে নেই তিনজনের কেউই। ক্যারিয়ারে দারুণ শুরুর পর অনেক হারিয়ে যাওয়া দেখেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট। শঙ্কায় তাই বাংলাদেশ ক্রিকেটের সমর্থকরা। সাম্প্রতিক সময়ে সব জয়ের বড় অংশ জুড়েই ছিল সিনিয়র ক্রিকেটারদের ভূমিকা।

Also Read - 'এবারের চ্যালেঞ্জটা আগের তুলনায় সহজ'

ধীরে ধীরে দায়িত্বটা নিতে হবে তরুণদেরও। একসময় যে সাকিব, তামিম, মুশফিকের বদলে লাল সবুজের জার্সির প্রতিনিধিত্ব করতে হবে এই তরুণদের। অসাধারণ শুরু করলেও কম-বেশি রঙ হারিয়েছেন সাব্বির, সৌম্য, মোসাদ্দেকের  তিনজনই।

বাংলাদেশের হয়ে ভালো শুরুর পর নিজের পারফম্যান্স ধরে রাখার সবচেয়ে বড় উদাহরণ সম্ভবত সাকিব আল হাসান। সেই সাকিব আল হাসান আশাবাদী বাংলাদেশের এই তরুণদের নিয়ে। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বার্তা দিলেন তাদের, ‘খুব ভালো শুরুর পর সবাইকেই সংগ্রাম করতে হয়। এরপর সবাই উন্নতি করে আবার সংগ্রামও করে। একজন খেলোয়াড় ৫ বছর এসবের মধ্য দিয়ে গেলে সবকিছু তাঁর জন্য সহজ হয়ে যায়।’

টেস্ট দল যখন উইন্ডিজ সফরে তখন দেশের মাটিতে ‘এ’ দলের হয়ে চারদিনের ম্যাচ খেলছেন তারা। জায়গা হয় নি জাতীয় দলে। তবে ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছেন সাব্বির আর মোসাদ্দেক দুইজনই। শ্রীলঙ্কা ‘এ’ দলের বিপক্ষে প্রথম ম্যাচে সেঞ্চুরি পেয়েছেন দুইজনই। মোসাদ্দেকের ইনিংস ১৩৫ রানে থামলেও সাব্বির রহমান তুলে নিয়েছেন প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে নিজের প্রথম দেড়শ রানের ইনিংস। থেমেছেন ১৬৫ রানের ইনিংস খেলে।

নিজের স্বভাবের বাইরে গিয়ে খেলে প্রশংসা কুড়িয়েছেন নির্বাচকদের কাছ থেকেও। এখন এই ফর্ম কতদিন ধরে রাখতে পারেন সেটাই দেখার বিষয়। যত বেশিদিন ধরে রাখতে পারবেন ততই মঙ্গল বাংলাদেশের জন্য।

আরো পড়ুন: জিম্বাবুয়ের ক্রিকেট বাঁচাতে পদক্ষেপ নিচ্ছে আইসিসি

 

Related Articles

টাইগারদের জয়ে টুইটার প্রতিক্রিয়া

ঘরোয়া প্রথম শ্রেণিতে না খেলে নয় টেস্টে অংশগ্রহণ

রেকর্ড জুটিতে বাংলাদেশের দুইশো পার

তামিম-সাকিবের অর্ধশতকে লড়ছে বাংলাদেশ

‘থ্যাংক ইউ সিলেট!’