আবারও প্রশ্নবিদ্ধ বোলার হাফিজ!

0
2082

ক্রিকেট-বিশ্বে তিনি পরিচিত অলরাউন্ডার হিসেবে। তবে চাইলে মোহাম্মদ হাফিজের নামের সামনে থেকে অলরাউন্ডার সত্ত্বা বাদ দেওয়াই যায়। পাকিস্তানের ক্রিকেটার যে আবারও প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছেন তার সন্দেহজনক বোলিং অ্যাকশনের জন্য! এই নিয়ে তিনবার ত্রুটিযুক্ত বোলিং অ্যাকশনের জন্য প্রশ্নবিদ্ধ হলেন তিনি। তাও তিনবারই অবৈধ অ্যাকশনের দাবি উঠেছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে! [আরো পড়ুনঃ নেতৃত্ব উপভোগ করছেন শান্ত]

আবারও প্রশ্নবিদ্ধ বোলার হাফিজ

Advertisment

গত বুধবার আবুধাবিতে শ্রীলঙ্কা ও পাকিস্তানের মধ্যকার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের তৃতীয় ওয়ানডেতে হাফিজের বোলিং অ্যাকশন দেখে সন্দেহ হয় আম্পায়ারদের। ম্যাচে ৮ ওভার বল করে একটি উইকেট শিকার করেন তিনি, বিনিময়ে দিয়েছেন ৩৯ রান। অবশ্য আম্পায়াররা বোলিং অ্যাকশন নিয়ে আপত্তি জানালেও চলতি সিরিজে বোলিং করে যেতে আপত্তি নেই। এই সিরিজের বাকি দুই ম্যাচেও তাই বল হাতে দেখা যাবে হাফিজকে।

তবে আগামী ১৪ দিনের মধ্যে আইসিসির পরীক্ষাগারে অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হবে মোহাম্মদ হাফিজকে। সেখানে বোলিং ত্রুটিযুক্ত প্রমাণিত হলে বোলিং থেকে নিষিদ্ধ হবেন এই ক্রিকেটার। ব্রিসবেনের ন্যাশনাল ক্রিকেট সেন্টারে হবে হাফিজের বোলিং অ্যাকশন পরীক্ষা। এর আগ পর্যন্ত বোলিং করে যেতে কার্যত কোনো বাধা নেই।

এর আগে ২০১৪ সালে প্রথমবারের মতো প্রশ্নবিদ্ধ হয় হাফিজের বোলিং অ্যাকশন। অবশ্য সেটি দেশটির ঘরোয়া আসর পাকিস্তান সুপার লিগ- পিএসএলে। ঐ বছরেরই নভেম্বর প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রশ্নবিদ্ধ হয় তাঁর বোলিং অ্যাকশন। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে তাঁর অবৈধ বোলিং দেখে আম্পায়াররা রিপোর্ট করায় দিতে হয় অ্যাকশনের পরীক্ষা। তাতে অবৈধ অ্যাকশনের কারণে নিষিদ্ধ হন বোলিংয়ে।

২০১৫ সালের এপ্রিলে নিজেকে শুধরে আবারও অ্যাকশনের পরীক্ষা দেন। সাফল্যের সাথে উতরেও যান। কিন্তু দুই মাস পরই শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে গল টেস্টে আবারও প্রশ্নবিদ্ধ হয় তার বোলিং। বোলিং অ্যাকশন প্রমাণিত হয় অবৈধ। এক বছরের মধ্যে দু’বার অ্যাকশন অবৈধ প্রমাণিত হওয়ায় ১২ মাসে নিষেধাজ্ঞা পান।

প্রায় ১৬ মাস পর আবারও বোলিংয়ের অনুমতি পান অ্যাকশন শুধরানো হাফিজ। কিন্তু এরপর বছর ঘুরতেই আবারও আতশ কাঁচের নিচে তিনি। হাফিজ অলরাউন্ডার সত্ত্বা পাল্টে নিজেকে শুধুই একজন ব্যাটসম্যান দাবি করতে পারেন!

  • সিয়াম চৌধুরী, প্রতিবেদক, বিডিক্রিকটাইম