আর কতকাল সুযোগ পেয়ে যাবেন ‘ক্লাসি’ লিটন?

0
1877

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে প্রতিভাবান ক্রিকেটার আছে ভুড়িভুড়ি। সেই লম্বা তালিকাতে বেশ বড় নাম লিটন কুমার দাস। দারুণ প্রতিভাবান হলেও মাঠের ক্রিকেটে নিজের প্রতিভার প্রতি সুবিচার তিনি করতে পেরেছেন সামান্যই।     

আর কতকাল সুযোগ পেয়ে যাবেন ‘ক্লাসি’ লিটন?
লিটন দাস। ছবিঃ গেটি ইমেজস

২০১৫ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষিক্ত হওয়া লিটন বাংলাদেশের হয়ে ইতোমধ্যে খেলে ফেলেছেন ৬ বছরেরও বেশি সময়। তবে রঙিন পোশাকে তার পারফরম্যান্স আপনাকে হতাশই করবে। ওয়ানডে ক্রিকেটের কথাই ধরা যাক। এখনো পর্যন্ত ৪৭টি ওয়ানডে ম্যাচ খেলে লিটনের রান ১৩৩৫, গড় ৩০.৩ এবং স্ট্রাইকরেট প্রায় ৯০(৮৯.৭)। স্ট্রাইকরেট চলনসই হলেও আধুনিক ক্রিকেট বিবেচনায় নিলে ৩০ এর গড় মোটেও মানানসই নয়।

Advertisment

টি-টোয়েন্টির অবস্থা যেন আরও নাজুক। এখনো পর্যন্ত ৪১টি টি-টোয়েন্টি খেলে লিটনের রান ৭৪৬। গড় ১৮.৬ এবং স্ট্রাইকরেট ১২৬.৭, এখানেও হতশ্রী দশা গড়ের। ওপেনিং ব্যাটার লিটনের সাথে এমন পরিসংখ্যান কোনোভাবেই মানানসই নয়।

বর্তমানে সময়টা একেবারেই ভালো যাচ্ছে না তার। ব্যাটে রান নেই অনেকদিন ধরে। শুধু এবছরে লিটনের পরিসংখ্যান ঘাটতে গেলে দেখা যাচ্ছে ১১টি ওয়ানডে খেলে লিটনের গড় মাত্র ২৩.৩, স্ট্রাইকরেট প্রায় ৭২(৭১.৯)। টি-টোয়েন্টির অবস্থা তো আরও ভয়াবহ। এবছর ১৩টি টি-টোয়েন্টি খেলে তার গড় মোটে ১০.৮, স্ট্রাইকরেট ১০১.৪। লিটন কি ওপেনার নাকি টেইলএন্ডার পরিসংখ্যান দেখে তা বোঝার উপায় নেই।

লিটনের এই ভয়াবহ ফর্মের কারণে স্বাভাবিকভাবেই বিপদে পড়ছে বাংলাদেশ দল। টপ অর্ডারে দ্রুত উইকেট হারিয়ে ইনিংসের শুরুতেই দিশেহারা হয়ে যাচ্ছে তারা। যার ফলে পরবর্তীতে চাপে পড়ে যাচ্ছেন নিচের দিকের ব্যাটাররা। অনেক সময় ঠিকঠাকমত ইনিংস মেরামতের কাজটাও করা হয়ে উঠছে না, দল পাচ্ছে না বড় সংগ্রহ।

আর কতকাল সুযোগ পেয়ে যাবেন ‘ক্লাসি’ লিটন
লিটন দাস। ছবিঃ গেটি ইমেজস

লিটন নিজের ক্যারিয়ারজুড়েই ছিলেন ধারাবাহিকভাবে ‘অধারাবাহিক’। মাঝেমাঝে হুটহাট সেঞ্চুরি বা হাফ সেঞ্চুরির দেখা মিললেও পরবর্তী আরও ১০-১২ ম্যাচে ব্যর্থ হতেন তিনি। এমন ঘটনাই প্রতিনিয়ত দেখা গেছে তার ক্যারিয়ারে। টানা ব্যর্থতার মাঝে হঠাৎ করেই এক ম্যাচে রান পাওয়া তারপর আবারো সেই ব্যর্থতার চোরাবালিতে তলিয়ে যাওয়া- এভাবেই যেন চলছে লিটনের ক্যারিয়ার।

তবে এতকিছুর পরেও দলে তিনি সুযোগ পেয়ে যাচ্ছেন ক্রমাগত। তাকে সুযোগ দেওয়ার কারণ হিসেবে ক্রিকেট বিশ্লেষক, নির্বাচকদের মুখে একটা কথা খুব বেশিই শোনা যায়- লিটন দারুণ প্রতিভাবান, তিনি ‘ক্লাসি’ ব্যাটার! যার ফলে এত ব্যর্থতার পরেও ম্যাচের পর ম্যাচ সুযোগ পেয়েই যাচ্ছেন লিটন। তবে প্রতিভার ফুলঝুরি থাকলেও মাঠের ক্রিকেটে লিটনের ব্যর্থতার গল্পটা ঘুরেফিরে একইরকম। হোক ওয়ানডে কিংবা টি-টোয়েন্টি- লিটন যেন পথ হারিয়ে ফেলা এক পথিক। ব্যর্থতার চাপে নুইয়ে পড়া লিটনের আত্মবিশ্বাস নিঃসন্দেহে ঠেকেছে তলানিতে। কিছুতেই যেন কিছু হচ্ছে না, পুরোপুরি ছন্নছাড়া এক ক্রিকেটারের নাম এখন লিটন দাস।

তবে ব্যর্থতার ষোলকলা পূর্ণ করে ফেলার পরেও লিটনকে সুযোগ দিয়ে যাওয়াটা কোনো ইতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারছে না। নিজের ব্যর্থতার পাল্লাটাকে কেবল ভারিই করে চলেছেন তিনি। চলমান টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও নিজের ব্যর্থতার ধারা অব্যাহত রেখেছেন স্বাভাবিকভাবেই। মরার ওপর খাঁড়ার ঘা হয়ে এসেছে গুরুত্বপূর্ণ সময়ে লিটনের ক্যাচ মিস। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচের খুবই গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দুইটি ক্যাচ মিস করেন লিটন, সেই ম্যাচ হেরে গিয়ে পরবর্তীতে ব্যাপক সমালোচনার মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে।

সাধারণভাবে দলের সেরা ফিল্ডারদের মধ্যে একজন হওয়া সত্ত্বেও লিটনের ক্যাচ মিস ছিল অবশ্যই দৃষ্টিকটু। ভালো ফিল্ডার হয়েও তার ক্যাচ মিসের কারণ হতে পারে মানসিক অশান্তি। ব্যাটে রান না পেলে মানসিক শান্তিতে দুনিয়ার কোনো ব্যাটারই থাকেননা, খুবই স্বাভাবিক বিষয়। সেই অস্থিরতা, উৎকণ্ঠা, হতাশা থেকে মনোযোগের ঘাটতি সৃষ্টি হতে পারে, যার ফলে লিটনের এই ক্যাচ মিসের ঘটনা ঘটেছে বলেই ধারণা করা যায়।

লিটনের এই টানা ব্যর্থতা কবে কাটবে তা বলা মুশকিল। কিন্তু এত ব্যর্থতার পরেও তাকে বারবার সুযোগ দিয়ে যাওয়াতে যে লাভের লাভ কিছুই হচ্ছে না তা প্রায় স্পষ্টই। লিটন প্রতিভাবান, দারুণ ব্যাটার এ বিষয়গুলো নাহয় মানা গেলো। কিন্তু এসব অজুহাত দিয়ে আর কতকাল সুযোগ দেওয়া হবে তাকে?- এই প্রশ্নটাও দারুণ যৌক্তিক। লিটনকে সুযোগ দিয়ে তো তার ব্যর্থতার পাল্লাটাই কেবল ভারী হচ্ছে। মানসিকভাবে আরও বেশি হতাশ এবং বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছেন তিনি। দলকেও ডোবাচ্ছেন নিয়মিতই। নিজের প্রতিভার প্রতি সুবিচার করতে না পারলে সেই প্রতিভা তো আর তেমন কোনো কাজে আসার কথা না- তাই না?

আর কতকাল সুযোগ পেয়ে যাবেন ‘ক্লাসি’ লিটন
লিটন দাস। ছবিঃ গেটি ইমেজস

অতিরিক্ত সুযোগ দিয়ে যেন লিটনকে আরও বেশি হতাশায় জর্জরিত এক ক্রিকেটারেই পরিণত করছে বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্ট। যার ফলে লিটন এবং বাংলাদেশ দল দুই পক্ষই দারুণ ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। ক্রিকেটীয় কিংবা মানসিক দুই দিক থেকেই চরম ব্যর্থতার বৃত্তে ঘুরপাক খেতে থাকা লিটনকে হয়ত এখন দল থেকে বাইরে রাখার সময় চলে এসেছে। বাংলাদেশ টিম ম্যানেজমেন্টের এ বিষয়টা যত দ্রুত বোধগম্য হয় ততই হয়ত মঙ্গল।

 

বিশ্বকাপের খেলা সরাসরি দেখতে ক্লিক করুন এখানে।

কুইজ খেলে প্রতিদিন বাইক জিততে ক্লিক করুন এখানে।

বল বাই বল লাইভ স্কোর পেতে আর নয় বিদেশি অ্যাপ। বাংলাদেশ ক্রিকেটের সাম্প্রতিক খবর এবং বল বাই বল লাইভ স্কোর আপনার মুঠোফোনে পেতে এখনি প্লে-স্টোর থেকে BDCricTime সার্চ করে ডাউনলোড করুন বাংলাদেশের নাম্বার ওয়ান ক্রিকেট অ্যাপটি। অথবা ডাউনলোড করতে ক্লিক করুন এখানে। ভালো লাগলে অবশ্যই রেটিং দিয়ে উৎসাহী করুন।