এক নজরে ডিপিএলের সর্বোচ্চ দশ উইকেট শিকারী

ঢাকা প্রিমিয়ার লিগের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হয়েছেন আবাহনী লিমিটেদের মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। ২৬ উইকেট শিকার করে এক লক্ষ টাকাও পেয়েছেন তিনি। এছাড়া সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকায় শুরুর দিকেই আছেন কামরুল ইসলাম রাব্বি, শরিফুল ইসলাম। 

সাইফউদ্দিনের ক্ষুরধার বোলিংয়ে আবাহনীর দাপুটে জয়

Advertisment

আবাহনীর ডাওহতাপ এসার সাইফউদ্দিন ১৬ ম্যাচে শিকার করেছেন ২৬ উইকেট। তার বোলিং গড় ১৫.৮০ ও ইকোনমি ৬.৭৯। প্রাইম দোলেশ্বর স্পোর্টিং ক্লাবের কামরুল ইসলাম রাব্বি ১৭ ম্যাচে লাভ করেছেন ২৫ উইকেট। প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাবের বাঁহাতি পেসার শরিফুল ইসলাম ১৬ ম্যাচে নিয়েছেন ২২ উইকেট।

এরপর আছেন বাঁহাতি স্পিনার তানভীর ইসলাম। স্পিনারদের মধ্যেও সবচেয়ে বেশি উইকেট তানভীরের। এছাড়া জাতীয় দলের হয়ে এখনো খেলেননি এমন বোলারদের মধ্যেও সবচেয়ে বেশি উইকেট তানভীরের। মাত্র ৪.৭৯ ইকোনমি রেটে বোলিং করে ও ৯.৩৫ বোলিং গড়ে ২০ উইকেট নিয়েছেন তানভীর।

এক নজরে ডিপিএলের সর্বোচ্চ দশ উইকেট শিকারী

১। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন (আবাহনী লিমিটেড): ১৬ ম্যাচে ২৬ উইকেট, ইকোনমি; ৬.৭৯।
২। কামরুল ইসলাম রাব্বি (প্রাইম দোলেশ্বর): ১৭ ম্যাচে ২৫ উইকেট, ইকোনমি: ৭.৩৮।
৩। শরিফুল ইসলাম (প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব): ১৬ ম্যাচে ২২ উইকেট, ইকোনমি: ৭.১৩।
৪। তানভীর ইসলাম (শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাব): ১১ ম্যাচে ২০ উইকেট, ইকোনমি: ৪.৭৯।
৫। মেহেদী হাসান (গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স): ১৭ ম্যাচে  ১৮ উইকেট, ইকোনমি: ৬.২৪।
৬। জিয়াউর রহমান (শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব): ১৬ ম্যাচে ১৮ উইকেট, ইকোনমি: ৭.২৭।
৭। মেহেদী হাসান রানা (আবাহনী লিমিটেড): ১১ ম্যাচে ১৮ উইকেট, ইকোনমি: ৮.৩৯।
৮। মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (গাজী গ্রুপ ক্রিকেটার্স): ১৭ ম্যাচে  ১৭ উইকেট, ইকোনমি: ৬.৩৪।
৯। রুবেল হোসেন (প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব): ১১ ম্যাচে ১৭ উইকেট, ইকোনমি; ৭.৪৩।
১০। মুস্তাফিজুর রহমান (প্রাইম ব্যাঙ্ক ক্রিকেট ক্লাব): ১৪ ম্যাচে ১৭ উইকেট, ইকোনমি; ৭.১৪।

এছাড়া ১৭ টি করে উইকেট নিয়েছেন আবাহনীর তানজীম হাসান সাকিব ও সালাহউদ্দিন শাকিল। তালিকায় সমানসংখ্যক উইকেট শিকারীদের ক্ষেত্রে ইকোনমি রেটকে প্রাধান্য দিয়ে ক্রমানুসারে সাজানো হয়েছে।