Score

“এটিই আমার শেষ বিশ্বকাপ”

সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য ২০১৯ আইসিসি বিশ্বকাপই হতে যাচ্ছে লাসিথ মালিঙ্গার শেষ বিশ্বকাপ। তবে সেক্ষেত্রে দলে জায়গা পাওয়াও হতে যাচ্ছে বড় এক চ্যালেঞ্জ।

“এটিই আমার শেষ বিশ্বকাপ”- মালিঙ্গা

বিগত কয়েক বছর ধরে, বিশেষ করে কুমার সাঙ্গাকারা ও মাহেলা জয়াবর্ধনের মত কিংবদন্তীদের অবসর গ্রহণের পর শ্রীলঙ্কা দল যেন হয়ে উঠেছে পরীক্ষানিরীক্ষার ক্ষেত্র। বাংলাদেশের চাকুরি ছেড়ে চন্ডিকা হাথুরুসিংহে দলটির প্রধান কোচের দায়িত্ব নেওয়ার পর সেটি হয়েছে আরও প্রকট।

তবে দলে যদি সুযোগ পান, তাহলে এটিই হবে মালিঙ্গার শেষ বিশ্বকাপ। এমনটি জানিয়েছেন তিনি নিজেই। শনিবার ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে হারের পর এই কথা জানান ম্যাচে স্বাগতিকদের হয়ে পাঁচ উইকেট তুলে নেওয়া এই পেসার।

Also Read - রুবেলের ভয় 'অঘটন' নিয়ে

মালিঙ্গা বলেন, আমি জানি, যদি সুযোগ পাই তাহলে অবশ্যই বিশ্বকাপ খেলবএটিই আমার শেষ বিশ্বকাপ হবে বুঝতে পারছি

তবে মালিঙ্গা তার কথার সাথে লেজও জুড়ে দিয়েছেন। টিম ম্যানেজমেন্টের ক্ষ্যাপাটে আচরণে মালিঙ্গার মত ফর্মে ফেরা সিনিয়ররাও যে তেমন গুরুত্বপূর্ণ নন, সেটিই যেন ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিলেন, তবে সাম্প্রতিক সময়ে আমার সাথে যা যা ঘটেছে এরপর আমি বিশ্বকাপ খেলার আশা রাখছি নাতবে আমাকে সুযোগ দেয়া হলে আমি অবশ্যই খেলবো

মালিঙ্গা আবার জাতীয় দলে ফিরবেন, এই আশাটিও করেননি অনেকে। কয়দিন তো খেলা ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন আইপিএলের দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের কোচিং স্টাফে। ঐসময় দেশে ফিরতে বলা হলেও বোর্ডের নির্দেশ পালন করেননি। সবকিছুর পরও দলে ফিরতে পারায় নির্বাচকদের প্রতি তার কৃতজ্ঞতা।

মালিঙ্গা বলেন, নির্বাচকেরাই আমাকে সুযোগটি করে দিয়েছিলআমি শুধুমাত্র একজন খেলোয়াড়আমার কাজ হলো যখনই সুযোগ পাবো খেলতে নেমে যাবোআমি দলের বাইরে যখন ছিলাম তখন কানাডায় গ্লোবাল টি-২০ খেলেছিদেশের ঘরোয়া টুর্নামেন্টে সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী হয়েছেসে টুর্নামেন্টের পারফরম্যান্স আমাকে আত্মবিশ্বাস দিয়েছেকারণ আমি এখন আমার ক্যারিয়ারের শেষ দিকে চলে এসেছিএখন আমার পারফর্ম করতে অনুপ্রেরণা দরকার

আরও পড়ুন: এনসিএলের পরই অবসর নিচ্ছেন রাজিন সালেহ

Related Articles

প্রস্তুত হয়ে গেছে ভারতের বিশ্বকাপ স্কোয়াড

মেধাবী বাংলাদেশকে দেখে রোমাঞ্চিত ওয়াকার

নান্নুর হাতে উন্মোচিত হল বিশ্বকাপ ট্রফি

বাংলাদেশে আসছে বিশ্বকাপ ট্রফি

আত্মবিশ্বাস বেড়েছে মিঠুনের